চৌগাছায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে টাকা নিয়ে চাকুরি না দেয়ার অভিযোগ! টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবী প্রধান শিক্ষকের

0
128

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় সাড়ে ১৩ লাখ টাকা নিয়েও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অফিস সহায়ক (৪র্থ শ্রেণির কর্মচারি) পদে নিয়োগ না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার ঝাউতলা এমকেএনজি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আইনাল হক এবং বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী মেহেদী হাসান। তিনি জানিয়েছেন টাকা নিয়ে চাকরি তো দেননি উল্টো টাকাও ফেরত না দিয়ে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন ওই প্রধান শিক্ষক এবং সভাপতি। তবে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি জানিয়েছেন তার টাকা ফেরৎ দেওয়া হয়েছে।
গত ২ ফেব্রুয়ারী এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তদন্ত কমিটি গঠনের পর বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে।
এর আগে ভুক্তভোগী মেহেদী হাসান গত ৩১ জানুয়ারী যশোরের ডিসি, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও দুদকের (দুর্নীতি দমন কমিশন) যশোর সমন্বিত কার্যালয়ে এবং ১ ফেব্রুয়ারী চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দপ্তরে বিভিন্ন সময়ে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষককে টাকা প্রদানের ভিডিওসহ লিখিত অভিযোগ করেন। ভিডিওতে দেখা গেছে প্রধান শিক্ষক মেহেদীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে এবং সভাপতি বিভিন্ন স্থানে তার কাছ থেকে টাকা নিচ্ছেন।


লিখিত অভিযোগে মেহেদী হাসান বলেন, ‘কিছুদিন আগে উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নের ঝাউতলা এমকেএনজি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্ত্রিকার সার্কুলার দেখে অফিস সহায়ক হিসেবে আবেদন করি। প্রধান শিক্ষকের কথায় আস্বস্ত হয়ে এক সময় তার কাছে নগদ অর্থ প্রদান করি(যার ভিডিও সংরক্ষিত আছে)। প্রথম অর্থ গ্রহণের পরবর্তী চার মাসের মধ্যে বিভিন্ন ধাপে প্রধান শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষকের কথায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমানের কাছে ১৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করি (যার কিছু ভিডিও সংরক্ষিত আছে)।’
তিনি আরও লেখেন, ‘এই টাকা দিতে গিয়ে আার বসতভিটার জমি বিক্রি করি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, গাভী গরু, মোটরসাইকেল বিক্রি করি এবং দুটি এনজিও থেকে মোটা অংকের ঋণ গ্রহণ করি। যার ভার বইতে গিয়ে আমি নিঃস্ব ও রিক্ত হয়ে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। এক পর্যায়ে আমাকে চাকুরি না দিয়ে গত ২১ জানুয়ারী যশোর জেলা স্কুলে নিয়োগ বোর্ড বসিয়ে অধিক অর্থের বিনিময়ে অন্য একজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়। পরবর্তীতে প্রধান শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আমার কাছ থেকে টাকা নেয়নি বলে অস্বীকার করেন এবং আমার ও আমার পরিবারকে নানা প্রকার হুমকি-ধামকি দেন।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, বিষয়টি তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তে প্রমাণিত হলে ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তবে এবিষয়ে প্রধান শিক্ষক আইনাল হক বলেন, তার কাছ থেকে স্কুল উন্নয়নের জন্য ৭লাখ ৪০ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু পরে তাকে একটি স্ট্যাম্পে লিখিত করে স্বাক্ষীদের সামনে ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা নগদ এবং ২ লাখ টাকার চেক প্রদান করা হয়েছে। যার ভিডিও আমাদের কাছে সংরক্ষিত আছে।
স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সভাপতি মিজানুর রহমানও বিষয়টির সত্যথা স্বীকার করেছেন।