বাজেট বিতর্ক : উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে

0
438

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী : কোনো দেশে গণতন্ত্র কতটা শক্তিশালী তা পরিমাপ করার কোনো যন্ত্র নেই, কিন্তু একটা উপায় আছে। যে-দেশে পার্লামেন্ট সক্রিয় ও সজীব এবং সরকার জবাবদিহিতামূলক, সে দেশে গণতন্ত্র শক্তিশালী বলে ধরে নেওয়া হয়। গণতন্ত্র শক্তিশালী থাকলে কোনো দেশেই গণতন্ত্রের শত্রুরা মাথা তুলতে পারে না। এদিক থেকে বাংলাদেশের একটি দুর্বলতা আছে। দেশটিতে একটি গণতান্ত্রিক সরকার ক্ষমতায় থাকলেও সংসদটি সজীব ও সক্রিয় নয়। কারণ, এই সংসদে একটি পালিত বিরোধী দল থাকলেও আসল বিরোধী দল নেই। আর কোনো সংসদে শক্তিশালী বিরোধী দল না থাকলে সরকারও জবাবদিহিতার ক্ষেত্রে সজাগ থাকার প্রয়োজন অনুভব করেন না।

বাংলাদেশের বর্তমান সংসদও যে প্রকৃত বিরোধীদল শূন্য সেজন্যে ক্ষমতাসীন সরকার দায়ী নন। বিএনপি ও তার মিত্র দলগুলো নানান অজুহাত তুলে গত সাধারণ নির্বাচন বর্জন করায় দেশে এই অবস্থার উদ্ভব হয়েছে। বিএনপি রাজনীতির বৈশিষ্ট্য তারা কেবল ক্ষমতায় থাকতে চায়। সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকা গ্রহণ করতে চায় না। নির্বাচনে জয়ী হলে বলে তা সুষ্ঠু হয়েছে। আর হারলেই রব তোলে এই নির্বাচন অবৈধ হয়েছে। প্রতিপক্ষ তাদের ভোটচুরি করেছে।

এই অবস্থায় আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনার দায়িত্ব ত্যাগ করেনি। গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য সরকার গঠন করেছেন এবং বহুরূপী এরশাদ সাহেবের ত্রিভঙ্গ মুরারির দশাগ্রস্ত পার্টিকে সংসদে বিরোধীদলের ভূমিকা পালনের সুযোগ দিয়েছেন। মুশকিল হলো, এরশাদ সাহেবের দল সরকারে আছেন এবং সংসদে আবার বিরোধী দলও। এটা বিরোধী দল হিসেবে তাদের কোনো ক্রেডিবিলিটি দেয়নি। বিএনপি অঘোষিত প্রধান বিরোধী দল হিসেবে রয়ে গেছে। উল্লেখযোগ্য বিদেশি রাষ্ট্রনেতা ও কূটনীতিকেরা বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গেও সাক্ষাত্ করেন।

তবে সংসদের বাইরেও বিএনপি প্রকৃত বিরোধী দলের ভূমিকায় নেই। সংসদে এসে তারা সরকারের বিভিন্ন ভুলভ্রান্তি ধরিয়ে দিয়ে এবং তার সমালোচনা করে সংসদকে জীবন্ত এবং দেশে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করে তুলতে পারতেন। তাতে সংসদ ও সংসদীয় গণতন্ত্র জীবন্ত হয়ে উঠত এবং সরকারকেও কঠোর জবাবদিহিতার মুখে পড়তে হতো। কিন্তু বিএনপি সে পথে হাঁটেনি। অতীতের ভুল থেকে কোনো শিক্ষা না নিয়ে বিএনপি’র সকল শক্তি ও উদ্যম কেবল সরকার উত্খাতের লক্ষ্যে নিয়োজিত। এজন্য কখনো তারা সন্ত্রাসের পথ ধরেন, ষড়যন্ত্র পাকান, আবার কখনো-বা সরকারের সমালোচনা নয়, তার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচার, অসার তর্জন-গর্জনের মধ্যে তাদের রাজনৈতিক ভূমিকাকে সীমাবদ্ধ রাখেন।

দেশের গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে এই যে অস্বস্তিকর অবস্থা বিরাজিত, তার মধ্যে একটা স্বস্তিকর আবহাওয়া দেখা গেল এবারের বাজেট অধিবেশনে, চলতি আর্থিক বছরের বাজেট নিয়ে আলোচনা ও বিতর্কে সংসদ জীবন্ত হয়ে উঠেছিল এবং সরকারকেও কঠোর জবাবদিহিতার মুখে পড়ে বাজেট সংশোধন করতে হয়েছে। এই সংশোধনীর পরই বাজেট পাস হয়েছে। বাজেট আলোচনায় সংসদে কোনো কোনো সরকার দলীয় সদস্যের কঠোর বক্তব্য শুনে মনে হয়েছিল কোনো বিরোধী দলীয় সদস্যের বক্তব্য শুনছি। পালিত বিরোধী দলের কোনো কোনো সংসদ সদস্যও প্রকৃত বিরোধী দলীয় সদস্যের মতো বাজেটের সমালোচনা করেছেন।

আমার বলতে দ্বিধা নেই, এবার বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনের বিবরণ শুনে মনে হয়েছে বহুকাল পর একটি জীবন্ত ও সক্রিয় সংসদ দেখছি। যে সংসদে সরকারও কঠোর জবাবদিহিতার মুখোমুখি, সেই জবাবদিহিতার মর্যাদা তারা রেখেছেন এবং বাজেট সংশোধন করেছেন। সরকার প্রমাণ দিয়েছেন, একদলীয় সরকারের ভূমিকা তাদের নয় এবং বর্তমান সংসদেরও ভূমিকা একদলীয় চরিত্রের নয়।

সাধারণত প্রকৃত বিরোধীদল শূন্য সংসদে (বিএনপি আমলের বিরোধী দলশূন্য সংসদের কথা ভাবুন) সরকারি দলের সকল সদস্যকে সরকারের আনীত সব প্রস্তাবে সায় দেওয়া এবং তার প্রশংসাকীর্তনে মুখর দেখা যেত। এবারের বাজেট আধিবেশনে তা দেখা যায়নি। বরং সরকারি দলের অনেক সদস্যকেই দেখা গেছে বিরোধীদলের চাইতেও কড়া ভাষায় বাজেটের সমালোচনা করতে এবং প্রকৃত জনপ্রতিনিধিত্বের ভূমিকা গ্রহণ করতে। তারা প্রমাণ করেছেন, সংসদে সরকারি দলের সদস্য হওয়া সত্ত্বেও জনপ্রতিনিধিত্বের ভূমিকাকে তারা বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন।

এবারে বাজেট জনদাবি মেনে অর্থাত্ বর্ধিত ভ্যাট ও আবগারি শুল্ক সম্পর্কিত প্রস্তাব বাদ দিয়ে পাস হয়ে যাওয়ার পর তার ভালো-মন্দ দিক সম্পর্কে আর আলোচনা করতে চাই না। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল মুহিতের মতে, এটি তার জীবনের শ্রেষ্ঠ বাজেট, অন্যদিকে কোনো কোনো মন্ত্রী এবং সরকার দলীয় এমপি এই বাজেটের বিভিন্ন ত্রুটি তুলে ধরে তাকে কঠোর সমালোচনা করেছেন, এই সমালোচনায় অর্থমন্ত্রীর বেজার হওয়ার কিছু নেই, সংসদে প্রকৃত এবং শক্তিশালী বিরোধী দল থাকলে তাকে আরো কঠোর সমালোচনা শুনতে হতো। সংসদীয় গণতন্ত্রের এটাই বৈশিষ্ট্য। চেক এন্ড ব্যালান্স। কোনো বিরোধী দলশূন্য সংসদে তাই জনস্বার্থ নিরাপদ থাকার কথা নয়।

বাজেট-সংক্রান্ত বিতর্কে এবার সংসদকে অবশ্যই জীবন্ত ও প্রাণবন্ত মনে হয়েছে। অর্থমন্ত্রী সমালোচিত হয়েছেন বটে, আবার প্রশংসিতও হয়েছেন। তোফায়েল আহমদের মতো প্রবীণ সিনিয়র মন্ত্রী অর্থমন্ত্রীর পক্ষে জোরালো ভাষায় কথা বলেছেন। বাইরে জনমত, বিশেষ করে ব্যবসায়ী সম্প্রদায় আবগারি শুল্ক ও ভ্যাট বৃদ্ধির দু’টো প্রস্তাবেরই ঘোর বিরোধী। সরকারি দলের কোনো কোনো সদস্য এবং মন্ত্রী বাজেটের এই ত্রুটি সম্পর্কে সংসদে জনমতেরই প্রতিধ্বনি করেছেন। অর্থমন্ত্রীর প্রতি কোনো ব্যক্তিগত বিদ্বেষ বা কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে তারা তার বাজেটের সমালোচনা করেছেন তা মনে হয় না।

অর্থমন্ত্রী তার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশেই ছিলেন দেশে-বিদেশে প্রভাবশালী আমলা। তাই সাধারণ মানুষের পাল্স বুঝতে তার একটু দেরি হয়। তার প্রতিফলন ঘটেছে এবারের বাজেটে। সারা জীবন রাজনীতি করে আসা আওয়ামী লীগের মন্ত্রীদের অনেকে এবং সংসদ সদস্যরা জনগণের এই পাল্স একটু ভালো বোঝেন। একটি সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশের মানুষের অধিকাংশের কাছে সমর্থিত নয় এমন বাজেট দেওয়া তাদের কাছে স্বাভাবিকভাবেই সঙ্গত মনে নাও হতে পারে তা স্বাভাবিক। সামনে নির্বাচন না থাকলেও সাধারণ মানুষের এই বাজেট সম্পর্কে বিরূপ মনোভাব জেনে সরকারি দলের কোনো কোনো মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য তাদের জনপ্রতিনিধিত্বের দায়িত্ব পালন করতেন বলে আমার বিশ্বাস। কেবিনেট প্রথার সরকারে মন্ত্রীরা নিজস্ব মতামত ব্যক্ত করার অধিকার রাখেন। নইলে তা হয়ে দাঁড়ায় ইলেকটিভ ডিক্টেটরশিপ।

এবারের বাজেট অধিবেশনে সংসদ বিতর্ক ও উত্তপ্ত আলোচনা এতটাই জীবন্ত হয়ে উঠেছিল যে, মনে হয়নি এই সংসদে কোনো প্রকৃত বিরোধী দল নেই। আশা করা গিয়েছিল, বিএনপি এখন সংসদের বাইরে থাকলেও দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর দল হিসেবে চলতি বাজেট সম্পর্কে তাদের মতামত দেবেন, এবং বাজেট সংশোধনের প্রস্তাব দেবেন। তা না করে তারা একটা মজার ভূমিকা নিয়েছেন। বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, “এবারের বাজেট হলো সব চাইতে খারাপ বাজেট।” কিন্তু এই খারাপ বাজেটের জন্য বাজেট এবং অর্থমন্ত্রীর সমালোচনা না করে তিনি উদোর পি্লি বুধোর ঘাড়ে চাপিয়েছেন। অর্থাত্ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘাড়ে সব দোষ চাপিয়েছেন। আবার অর্থমন্ত্রী যেহেতু সংসদে সরকারি দলের অনেকের দ্বারা সমালোচিত হয়েছেন, সেজন্যে তার প্রতি সহানুভূতি দেখিয়েছেন। এ যেন অর্থমন্ত্রীর জন্যে মায়ের চাইতে মাসির দরদ বেশি। খালেদা জিয়া বলেছেন, “আহা, অর্থমন্ত্রী বয়স্ক মানুষ! তাকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাই কীভাবে গালাগালি করেছে তা সকলেই দেখেছেন?”

অর্থমন্ত্রীর জন্য এই দরদ দেখাবার পরই তিনি আক্রমণ করেছেন প্রধানমন্ত্রীকে। বলেছেন, “এই বাজেটের জন্য কি অর্থমন্ত্রী দায়ী? তাকে যেভাবে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, আদেশ দেওয়া হয়েছে সেভাবে বাজেট হয়েছে। আদেশ-নির্দেশ সব কিছুই তো এক জায়গা থেকে হয়।” বেগম জিয়ার এই মন্তব্যটি শুনে হাসব না কাঁদব বুঝতে পারিনি। অর্থমন্ত্রীকে বয়স্ক প্রবীণ মানুষ বলে ভক্তি দেখানোর পর তার বিদ্যাবুদ্ধির উপর এই কটাক্ষ কেন? বর্তমান অর্থমন্ত্রী মুহিত সাহেবের বিদ্যাবুদ্ধি ও পাণ্ডিত্য সম্পর্কে সকলেরই শ্রদ্ধা আছে। তিনি বাজেট প্রণয়নে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে অবশ্যই পরামর্শ নিতে পারেন। কিন্তু তিনি যাবেন প্রধানমন্ত্রীর ডিকটেশন নিতে? এ ধরনের কথা বলা অর্থমন্ত্রীর বিদ্যাবুদ্ধি ও ব্যক্তিত্ব নিয়ে কী তামাসা করা নয়?

এখানেই প্রশ্ন, বেগম জিয়া যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, তখন কি তার অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমান তার ডিকটেশনে বাজেট তৈরি করতেন? নাকি এই ধরনের ডিকটেশন দেওয়ার বিদ্যাবুদ্ধি একজন স্ব-শিক্ষিত রাজনৈতিক নেত্রীর আছে? বর্তমান অর্থমন্ত্রী মুহিত সাহেবও তার সরকারের নীতিমালা মেনেই বাজেট তৈরি করেন, নিজেও কিছু প্রস্তাব যোগ করেন। এই বাজেটেও তিনি তা করেছেন। দেশের মানুষ তা পছন্দ করেনি। ফলে সরকারি দলই তা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। বিএনপি’র তো উচিত ছিল এই বাজেটের ভালো-মন্দ দিক আলোচনায় আনা। তা না করে বাজেটকে নিকৃষ্ট আখ্যা দিয়ে অর্থমন্ত্রীর প্রতি দরদ দেখাল এবং প্রধানমন্ত্রীকে সমালোচনায় টেনে আনা কি লোক হাসানোর রাজনীতি নয়?

বিএনপি’র আরেক নেতা অর্থমন্ত্রী মুহিত সাহেবকে “বলির পাঁঠা” বানানো হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন। বাজেট খারাপ, সরকারও খারাপ; কিন্তু সেই সরকারের অর্থমন্ত্রী এবং বাজেট প্রণেতা সহসা বিএনপি’র এমন দরদের পাত্র হয়ে উঠলেন কেন? অর্থমন্ত্রী যে বাজেট পেশ করেছেন, তার সমালোচনা না করে অর্থমন্ত্রীকে দায়মুক্ত করার এই প্রয়াস কেন? আর কেবিনেট প্রথার সরকারে প্রধানমন্ত্রীই কি সব কিছু একা করতে পারেন? নাকি তা সম্ভব?

আরো একটি রহস্যপূর্ণ ব্যাপার। ঢাকার যে “নিরপেক্ষ” দৈনিকটিকে দেখা যায়, সকল ব্যাপারে বিএনপি’র কণ্ঠে কণ্ঠ মেলাতে, এবারের বাজেট বিতর্কেও দেখা গেল, তারা নিরপেক্ষতার নামে একই নীতি অনুসরণ করেছেন। এবার সংসদে বাজেট বিতর্কটি প্রাণবন্ত হওয়ায় কোথায় তারা তাকে অভিনন্দন জানাবেন, তার বদলে দেখা গেল বাজেট-সংক্রান্ত সমালোচনাকে অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কোনো ধরনের চক্রান্ত হিসেবে তারা তুলে ধরছেন। বাজেট বিতর্কের খবরটি ছাপতে গিয়ে তারা তার হেডিং দিয়েছেন “অর্থমন্ত্রী কাদের নিশানা?” অর্থাত্ বাজেটের কঠোর সমালোচনাকারীরা অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ঘোট পাকাচ্ছেন? অর্থমন্ত্রী নিজেও জানেন এটা সত্য নয়। তার বাজেটে ভুলত্রুটি থাকতে পারে, কিন্তু তার প্রতি প্রধানমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের মন্ত্রী ও সাংসদ সকলের শ্রদ্ধা ও আস্থা রয়েছে।

“নিরপেক্ষ” দৈনিকটি তার নিরপেক্ষতার আরো খেলা দেখিয়েছেন। জনমতের প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে সংসদে সংশোধিত বাজেট পাস করা হয়েছে। ‘নিরপেক্ষ’ দৈনিকটি সেই খবরের শিরোনাম দিয়েছেন “ভোটের পরই ভ্যাট।” অর্থাত্ আগামী নির্বাচনে ভোট পাওয়ার স্বার্থে সরকার আবগারি শুল্ক ও ভ্যাটবৃদ্ধির প্রস্তাব আপাতত প্রত্যাহার করেছেন। কিন্তু ভোটের পরই এই সরকার আবার ক্ষমতায় এলে আবার ভ্যাটের বোঝা জনগণের কাঁধে চাপিয়ে দেবে। কৌশলে দেশের মানুষকে জানিয়ে দেওয়া হলো। এই ভ্যাটের বোঝা এড়াতে হলে আগামী নির্বাচনে ভোটদাতারা যেন আওয়ামী লীগকে ভোট না দেয়। বর্তমানে বাজেট সংশোধন দ্বারা সরকার জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছেন। প্রচারণাটি চাতুর্যপূর্ণ, কিন্তু সত্ ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা নয়।

আগেই বলেছি, বাজেট পাস হয়ে গেছে। এর ভালো-মন্দ দিক নিয়ে আর আলোচনা করব না। এ সম্পর্কে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের প্রাক্তন সভাপতি মীর নাসির হোসেনের বক্তব্যটি প্রণিধানযোগ্য। তিনি বলেছেন, “বাজেটে প্রস্তাবিত ভ্যাট আইনে নানা ধরনের অসঙ্গতি ছিল। এখন যেহেতু তা দু’বছর পিছিয়ে দেওয়া হলো, এই সময়ে এনবিআর ও বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তা মিলে আলাপ-আলোচনা করে এই অসঙ্গতিগুলো দূর করা উচিত। ভ্যাট আইনটি এমন হওয়া উচিত, যাতে সরকারের রাজস্ব বাড়ে, আবার ভোক্তার উপরেও চাপ না বাড়ে। আগামী দুই বছরে এটা নিয়ে প্রস্তুতিমূলক কাজ করা দরকার।” এই বক্তব্য বর্তমান বাজেট সম্পর্কে গঠনমূলক। বাজেটকে পাশে ফেলে রেখে সরকারের বিরুদ্ধে প্রচারণা দেশের জন্য মঙ্গলজনক নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here