উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে মধ্যপ্রাচ্য

0
317

লেবানন সংকট ও উত্তপ্ত মধ্যপ্রাচ্যগত সপ্তাহে সৌদি আরবে বসিয়া আচমকা লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ আল হারিরির পদত্যাগকে ঘিরিয়া আরো একবার উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে মধ্যপ্রাচ্য। হারিরির পদত্যাগকে ঘিরিয়া মধ্যপ্রাচ্যে প্রধান দুই শক্তি সৌদি আরব ও ইরান কথার লড়াইয়ে জড়াইয়া পড়িয়াছে। এইদিকে, লেবাননে ইরানি সমর্থনপুষ্ট শিয়া সংগঠন হিযবুল্লাহ’র প্রভাব বাড়িয়া যাইবার কথা বলিয়া মাঠে নামিয়াছে ইসরায়েল।

হারিরি প্রাণের ভয়ে পদত্যাগের কথা বলিয়াছেন। হারিরির মতে, লেবাননে ইরান ও হিযবুল্লাহ’র প্রভাব এতটা বাড়িয়া যাইবার বাস্তবতাতে যেকোনো মুহূর্তে তিনি পিতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী রফিক হারারির ন্যায় হত্যাকাণ্ডের শিকার হইতে পারেন। হারিরির এই বক্তব্যকে সামনে রাখিয়া সুন্নি সৌদি আরব ও জায়নবাদী ইসরায়েল প্রচণ্ডভাবে শিয়া ইরান ও ইরানের সরাসরি সমর্থনপুষ্ট সংগঠন হিযবুল্লাহবিরোধী সমালোচনায় লিপ্ত হয়। এই দুই দেশের মতে, মধ্যপ্রাচ্যের উপরে নিজ প্রভাব বাড়াইয়া তুলিবার জন্যই হিযবুল্লাহকে অর্থনৈতিক ও সামরিক সহায়তা অব্যাহত রাখিয়াছে ইরান। এইদিকে, হারিরির বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করিয়াছে লেবাননের সামরিক বাহিনী ও সামরিক বাহিনীর সহিত ঘনিষ্ঠ হিসাবে পরিচিত হিযবুল্লাহ। অনুমেয়ভাবেই এই দুইপক্ষ হারিরির পদত্যাগের মধ্যে সৌদি প্রভাব দেখিতে পাইতেছে। হিযবুল্লাহ’র পক্ষ হইতে হারিরির পদত্যাগকে লেবাননের বিরুদ্ধে সৌদি আরবের যুদ্ধ হিসাবে চিহ্নিত করা হইয়াছে। এই বক্তব্যের সত্যতা যাচাইয়ের সুযোগ না থাকিলেও, সৌদি আরব ও ইহার মিত্র দেশ কুয়েত ও আরব আমিরাত কর্তৃক নিজ-নিজ দেশের নাগরিকদিগকে লেবানন ত্যাগের নির্দেশ প্রদানের বিষয়টি পর্যবেক্ষকদের ভাবনার কারণ হইয়া দাঁড়াইয়াছে। এইদিকে, হারিরির পদত্যাগের মুখে হিযবুল্লাহ’র সহিত নূতন করিয়া সংঘাত শুরু করিবার ভাবনা ভাবিতে শুরু করিয়াছে ইসরায়েল। দেশটির দাবি মতে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধের সুযোগে ইরানের সরাসরি সহায়তায় হিযবুল্লাহ’র সামরিক সামর্থ্য দিনকে দিন বাড়িয়া চলিয়াছে। বর্তমানে ইসরায়েল-লেবানন সীমান্ত অঞ্চলে হিযুবল্লাহ’র অবস্থান শক্ত হইয়া উঠিয়াছে বলিয়াও দাবি করিতেছে দেশটি। ইসরায়েলের এইসকল কথাবার্তার মধ্যে সৌদি আরবের উসকানি দেখিতে পাইতেছে হিযবুল্লাহ।

মধ্যপ্রাচ্যের উপরে নিয়ন্ত্রণ লইয়া সৌদি আরব ও ইরানের দ্বন্দ্ব অনেকদিন ধরিয়াই চলিতেছে। এই অঞ্চলটিতে গৃহযুদ্ধকবলিত একাধিক দেশেই এই দুইটি দেশ শিয়া-সুন্নি লাইনে নিজেদের সাহায্য-সমর্থন দান করিতেছে। এই প্রসঙ্গে ইয়েমেনে সুন্নি সরকারবিরোধী শিয়া বিদ্রোহীদের জন্য ইরান ও সিরিয়াতে শিয়া সরকারবিরোধী সুন্নি বিদ্রোহীদের জন্য সৌদি সমর্থনের কথা উল্লেখ করা যাইতে পারে। সুন্নি শাসক সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর হইতে ইরান শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ ইরাকে প্রভাব বাড়াইয়াছে বহুগুণ। সম্প্রতি সৌদি আরবও দেশটির ব্যাপারে নূতন করিয়া আগ্রহী হইয়া উঠিয়াছে। হারিরির পদত্যাগের মধ্য দিয়া লেবানন এই দুইদেশের নূতন বিরোধ-ক্ষেত্র হইয়া উঠিয়াছে। এই দ্বন্দ্ব অচিরেই স্তিমিত না হইলে অসংখ্য সংকটে নিমজ্জিত মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতি যে অধিকতর খারাপ হইবে তাহা বলাই বাহুল্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here