0
368

01725876964-1 : মুড়লির জোড়া শিব মন্দির, যশোর পৌরসভার অন্তর্গত মুরলীতে যশোর খুলনা মহাসেকের দক্ষিণ পাশে অবস্থিত ঐতিহাসিক জোড়া শিব মন্দির। সেন রাজবংশের সর্বশেষ রাজা ছিলেন লক্ষ্মণ সেন। তিনি শিব ভক্ত পরায়ণ নৃপতি ছিলেন। রাজা লক্ষ্মণ সেন কর্তৃক বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে বহু মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে যশোর জেলার মুরলী গ্রামের জোড়া শিব মন্দির দুটি খুবই মনোরম। রাজা লক্ষ্মণ সেন শিব ভক্ত প্রজাদের জন্য ভৈরব নদের পশ্চিম তীরে ১১৮৯ খ্রীষ্টাব্দে পাশাপাশি এই মন্দির দুইটি প্রতিষ্ঠা করেন। মন্দিরের মধ্যে বেদীর উপর স্থাপন করেন যোগাসনে অধিষ্ঠিত প্রস্তর নির্মিত শিব(মহাদেব) মূর্তি। পাশে শুয়ে আছে বৃষভ বা বলদ। সেই হিসাবে মন্দিরের বয়স হয় প্রায় ৮২৩ বছর। এত বৎসর পার হলেও নির্মাণ শৈলী এত মজবুত এবং স্থানীয় জনগণের রক্ষা করার কারণে সেই প্রমাণে ক্ষয় প্রাপ্ত হয়নি। মন্দিরের অদূরে পূজারীর বসবাসের স্থান, সম্মুখে ভক্তদের অনুষ্ঠানের জন্য ছিল বৃহৎ খোলা চত্বর। প্রতিষ্ঠিত মন্দিরের সম্পত্তি দেবোত্তর হিসাবে রেকর্ডভুক্ত হয়। মন্দির দুটি প্রত্নতাত্ত্বিক এবং ধর্মীয় ঐতিহ্য বহন করে। এর নির্মাণ কুশলতা অতীব দৃষ্টিনন্দন। এই মন্দিরের উচ্চতা প্রায় ৪০ ফুট, ১৫ ফুট করে দৈর্ঘ্য এবং প্রস্থ। চুড়ায় ত্রিশুল, তার নিচেই ১টিতে গণেশ, একটিতে শিব, লাইন ধরে যুক্ত চড়াই এবং টিয়া পাখি, কারুকার্য খচিত দরজা ২টি প্রায় পূর্বমুখী এবং অপর ২টি প্রায় উত্তর ও দক্ষিণমুখী। দরজার উপর লড়াই করছে ২টি অশ্ব এবং সুদৃশ্য পদ্ম। মন্দির দুটি কোনার্কের (উড়িষ্যায়) সূর্য্য মন্দিরের সাথে তুলনীয়। মন্দিরের গায়ে লেখা আছে ১১৮৯ ইং সন।

01725876964-2 : হাজী মোহাম্মদ মহসিন ইমামবাড়া বা মুড়ালী ইমামবাড়া যশোর জেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের অন্যতম একটি পুরাকীর্তি।[১] এটি মুড়ালী নামক স্থানে অবস্থিত বলে একে মুড়ালী ইমামবাড়া হিসেবে ডাকা হয়।
মুড়ালীতে এ ইমামবাড়াটি তৈরি করেন হাঝি মন্নুজান খানম যিনি সম্পর্কে হাজি মোহাম্মদ মহসিনের বৈপিত্রেয়ী বোন ছিলেন। ১৭শ শতকের শেষের দিকে মন্নুজান এ অঞ্চলের সম্পত্তিগুলো পৈতৃক সূত্রে পেয়েছিলেন। পরবর্তিতে নবাব সিরাজউদদৌলা পরাজিত হলে মন্নুজান ও তার স্বামী সৈয়দপুর অঞ্চলে জমিদারি প্রতিষ্ঠা করেন কিন্তু ১৭৬৪ সালে মন্নুজানের স্বামী মৃত্যুবরণ করেন ও পুরো সম্পত্তির মালিক হন মন্নুজান।
১৮০২ সালে তিনি মুড়ালীতে অন্যান্য স্থাপনার সাথে এই ইমামবাড়াটিও নির্মাণ করেন। ১৮০৩ সালে মন্নুজান মৃত্যুর পূর্বে এই ইমামবাড়াসহ তার সব সম্পত্তি হাজি মোহাম্মদ মহসিনকে দিয়ে দেন। ১৯শে মার্চ ১৯৮৭ সালে বাংলাদেশ সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এ ইমামবাড়াটিকে সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসেবে ঘোষণা করে।
আয়তাকার আকৃতির মুড়ালী ইমামবাড়াটি সভাকক্ষ হিসেবে ব্যবহার করা হত। এর মোট আয়তন উত্তর ও দক্ষিণে ১৮.২৯ মিটার এবং পূর্ব থেকে পশ্চিমে ১৫.২৪ মিটার। পুরো কাঠামোটি দশটি স্তম্ভের উপর ভিত্ত করে তৈরি করা হয়েছে যা ৩টি সাড়িতে বিভক্ত।

01725876964-3 : যশোরের নীলকুঠি,
যশোর-খুলনা মহাসড়কের পাশেই জমজমাট রূপদিয়া বাজার। বাজারের শরীরে এখন নগরায়নের ছোঁয়া। যশোর শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরের এই জনপদের সঙ্গে জড়িয়ে আছে অনেক ঐতিহাসিক ঘটনা। আছে নানা ধরনের কিংবদন্তি। ইতিহাসের বিবরণ আছে পাঠ্যপুস্তকে। অতীতের স্মারক হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে এক বিশাল ভবনের ধ্বংসাবশেষ। কিংবদন্তি আছে লোকমুখে ছড়িয়ে। তাতে কতটা কল্পনার রং চড়ান হয়েছে, তা আজ নির্ণয় করার উপায় নেই।
রূপদিয়া বাজারে প্রবেশের মুখেই বাঁ হাতে ঘন গাছপালা ঘেরা একটি স্থান। কিছুটা ফাঁকা। জংলী লতাপাতায় ঢেকে গেছে চারদিক। আশপাশে কিছু আধুনিক ভবন উঠেছে। ওই লতাপাতা ঢাকা স্থানে পুরনো ভবনের ধ্বংসাবশেষ কৌতূহলী মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। পাশ দিয়েই চলে গেছে ভৈরব নদ। উত্তর প্রানত্মের এই নদ পশ্চিম থেকে পূর্বগামী। ভাঙ্গা ভবনের ধার ঘেঁষা নদীর ওপর বাঁধানো সিঁড়ি। স্পষ্ট বোঝা যায়, এটি অতীতে ঘাট হিসেবে ব্যবহার করা হতো। এখন ভাঙ্গা ঘাট মূল্যহীন। কেন না, যাঁরা ঘাটটি তৈরি করেছিলেন তাঁরা নেই। নদীটিও ক্ষীণকায়া। বর্ষায় নাব্য পায়। তাছাড়া আধুনিক সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা এ এলাকায় নদীর প্রয়োজনও ফুরিয়ে দিয়েছে অনেকখানি। পুরনো ভবনের ধ্বংসাবশেষ সম্পর্কে স্থানীয় মানুষজন জানেন এটি কুঠিবাড়ি। নীলকুঠি। কিন্তু এর ইতিহাস জানে না অনেকেই। এই ধ্বংসাবশেষই যশোর জেলায় স্থাপিত প্রথম নীলকুঠি। ১৭৯৫ সালে এটি নির্মাণ করেন মি. বন্ড। এই বন্ড সাহেবকে ঘিরে রূপদিয়া এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে নানা কিংবদনত্মি। বাংলাদেশে প্রথম নীলচাষ আরম্ভ করেন ফরাসী বণিক লুই বোনড। ১৭৭৭ সালে বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার চন্দননগরের তালডাঙ্গা ও গোন্দলপাড়ায় নীলকুঠি স্থাপন করেন। ক্রমান্বয়ে নীলচাষ ছড়িয়ে পড়ে বাংলার সর্বত্র। তবে যশোর ও নদীয়ার নীল ছিল উৎকৃষ্ট। ১৮১০ থেকে ১৮৬০ সাল পর্যনত্ম নীলকরদের জন্য পরিস্থিতি ছিল অনুকূলে। সে সময় এদেশে সব থেকে বেশি নীলচাষ হয়। ১৮৫৯-৬০ সালের নীল বিদ্রোহের দরম্নন নীলচাষ হ্রাস পায় ক্রমান্বয়ে। পরে পুরোপুরি শেষ হয়ে যায় এর চাষ। যশোরে মি. বন্ড যখন নীলকুঠি স্থাপন করেন, তখন কোম্পানি শাসন পাকাপোক্ত। বিভিন্ন স্থানে রাজস্ব আদায় ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য নতুন নতুন জেলা ও থানা স্থাপন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে যশোরে ১৭৮১ সালে নতুন জেলা স্থাপিত হয়েছে। যার সদর দফতর বসেছে মুড়লীতে। রূপদিয়া থেকে যশোর শহরে আসার পথেই মুড়লী। ১৭৯৫ সালে যশোরে কালেক্টরেট ছিলেন থমাস পোনে। মি. বন্ড ছিলেন তাঁর ব্যক্তিগত বন্ধু। তাঁরই পরামর্শে মি. বন্ড রূপদিয়াতে কুঠি স্থাপন করেন। ভৈরব নদের ঠিক দক্ষিণ প্রানত্মে জঙ্গল কেটে তৈরি হয় বিশাল এলাকা নিয়ে নতুন নতুন ভবন। এলাকাটি ছিল পুরোপুরি জঙ্গলাকীর্ণ। জনবসতি ছিল বিরল। বনে বাঘও থাকত। রূপদিয়া সরাসরি নদীপথে মুড়লীর সঙ্গে সংযুক্ত। অন্যদিকে পূর্বদিকে শেখহাটি, অভয়নগর, ফুলতলা, নয়াবাদ (খুলনা) পর্যনত্মও যাওয়া যায় সহজে।

01725876964-4 : এগারো শিব মন্দির বা ১১ শিব মন্দির বাংলাদেশের যশোর জেলায় অবস্থিত প্রাচীন মন্দির ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা। সতেরো শতকের মাঝামাঝিতে রাজা নীলকণ্ঠ রায় এই মন্দিরগুলো স্থাপন করেন। অভয়নগর উপজেলার বাঘুটিয়া ইউনিয়নে ভৈরব নদীর তীরে এই স্থাপনাটি অবস্থিত। যশোর সদর উপজেলা থেকে এর দূরত্ব ৪৫ কিলোমিটার।
যশোরের তৎকালীন রাজা নীলকণ্ঠ রায় ছিলেন রাজা প্রতাপাদিত্যের বংশধর। তার রাজধানী ছিল চাঁচড়া। তিনি কিন্তু তিনি বসবাস করতেন অভয়নগরে ভৈরব নদীর পাড়ে। রাজা তার মেয়ে অভয়াকে বিয়ে দেন নড়াইলের নড়াইলের জমিদারের ছেলে নীলাম্বর রায়ের সাথে। বিয়ের কিছু দিন পর নীলাম্বর দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। অল্প বয়সে বিধবা হয় অভয়াদেবী। সে সময়ে হিন্দু ধর্মে দ্বিতীয় বিবাহের কোন নিয়ম না থাকায় অভয়া বাকি জীবন পূজা-অর্চনা করে কাটাতে চায়। নীলকণ্ঠ মেয়ের অনুরোধে ১৭৪৫ সাল থেকে ১৭৬৪ সালের মধ্যে ১১টি শিব মন্দির স্থাপন করেন এবং মেয়ের নামে নগরীর নাম রাখেন অভয়নগর। বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর ২০১৪ সালে থেকে এই স্থানে সংস্কার কাজ চালিয়ে আসছে যা শেষ হবে ২০১৭ সালে।

01725876964-5 : এগারো শিব মন্দির বা ১১ শিব মন্দির বাংলাদেশের যশোর জেলায় অবস্থিত প্রাচীন মন্দির ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা। সতেরো শতকের মাঝামাঝিতে রাজা নীলকণ্ঠ রায় এই মন্দিরগুলো স্থাপন করেন। অভয়নগর উপজেলার বাঘুটিয়া ইউনিয়নে ভৈরব নদীর তীরে এই স্থাপনাটি অবস্থিত। যশোর সদর উপজেলা থেকে এর দূরত্ব ৪৫ কিলোমিটার।
যশোরের তৎকালীন রাজা নীলকণ্ঠ রায় ছিলেন রাজা প্রতাপাদিত্যের বংশধর। তার রাজধানী ছিল চাঁচড়া। তিনি কিন্তু তিনি বসবাস করতেন অভয়নগরে ভৈরব নদীর পাড়ে। রাজা তার মেয়ে অভয়াকে বিয়ে দেন নড়াইলের নড়াইলের জমিদারের ছেলে নীলাম্বর রায়ের সাথে। বিয়ের কিছু দিন পর নীলাম্বর দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। অল্প বয়সে বিধবা হয় অভয়াদেবী। সে সময়ে হিন্দু ধর্মে দ্বিতীয় বিবাহের কোন নিয়ম না থাকায় অভয়া বাকি জীবন পূজা-অর্চনা করে কাটাতে চায়। নীলকণ্ঠ মেয়ের অনুরোধে ১৭৪৫ সাল থেকে ১৭৬৪ সালের মধ্যে ১১টি শিব মন্দির স্থাপন করেন এবং মেয়ের নামে নগরীর নাম রাখেন অভয়নগর। বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর ২০১৪ সালে থেকে এই স্থানে সংস্কার কাজ চালিয়ে আসছে যা শেষ হবে ২০১৭ সালে।

01725876964-6 : চাঁচড়া শিব মন্দির বাংলাদেশের যশোর জেলার চাঁচড়ায় অবস্থিত। এটা ১৬৯৬ খ্রিস্টাব্দের দিকে মনোহয় রায় নির্মাণ করেন। বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর চাঁচড়া শিব মন্দিরকে সংরক্ষিত স্থাপনা হিসেবে ঘোষণা করেছে।
মন্দিরটি ‘আট-চালা’ ধরনের মন্দির। ‘আট-চালা’ রীতি বাংলার মন্দির স্থাপত্যকলার বিশেষ এক ধরনের রীতি যেখানে বর্গাকার বা আয়তাকার গর্ভগৃহের ‘চৌ-চালা’ ছাদের উপরে আরেকটি ছোট ‘চৌ-চালা’ ছাদ তৈরি করা হয়। শিব মন্দিরটির সামনের দিকের তিনটি খিলান যুক্ত প্রবেশদ্বার আছে এবং পুরো মন্দিরের সন্মুখভাগ পোড়ামাটির ফলকে চমৎকার ভাবে অলংকৃত।

01725876964-7 : মাচের পোনা বিক্রয় কেন্দ্র যশোর। এটি যশোর-বেনাপোল রোডের চাচড়া বাজার মোড়ের মাগুর পট্টিতে অবস্থি। মৎস্য চাষিদের সুবিধার্তে
বাংলাদেশ সরকার এই নির্মান করেন।

01725876964-8 :মির্জানগর হাম্মামখানা, কেশবপুর, যশোর । কেশবপুর থেকে ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে কপোতাক্ষ ও বুড়িভদ্রা নদীর সঙ্গমস্থলে মির্জানগর গ্রামে অবস্থিত নবাব বাড়ির হাম্মাম খানার ভগ্নাস্তুপ। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায় ১৬৪৯ খ্রি: সম্রাট আওঙ্গজেবের আমলে বাংলার সুবেদার শাহ শুজার শ্যালকপুত্র মীর্জা সাফসি খান যশোর ফৌজদার নিযুক্ত হন। তিনি যশোরের কেশবপুর উপজেলার সদর থেকে ৭ কি. মি.পশ্চিমে কপোতাক্ষ নদ ও বুড়িভদ্রা নদীর সঙ্গমস্থল ত্রিমোহিনী নামক স্থানে বাস করতেন। তার নাম অনুসারে এলাকাটির নাম হয় মীর্জানগর। উক্ত স্থানে কিল্লাবাড়ি স্থাপন করেন।

সুবিস্তৃত পরিখা খনন করে এবং ৮/১০ ফুট উচ্চ প্রাচীর বেষ্টিত করে এটাকে মতিঝিল নামকরন করেন। এর এক অংশে বতকখানা, জোনানাসহ হাম্মামখানা (গোসল খানা) ও দূর্গের পূর্বদিকে সদর তোরণ নির্মাণ করেছিলেন। কামান দ্বারা দূর্গটি সুরক্ষিত ছিল, যে কামানটি বর্তমানে যশোরের মনিহার মোড়ে শহীদদের বেদিতে সংরক্ষিত আছে। বর্তমানে সেখানে হাম্মামখানা বাদে কিছু অক্ষত নেই। পূর্ব-পশ্চিমে লম্বা ৪ কক্ষ বিশিষ্ট একটি কুপ সমেত হাম্মামখানাটি মোগল স্থাপত্য শৈলীর অনুকরণে নির্মিত হয়। স্থাপনাটি ৪ গম্বুজ বিশিষ্ট। এর পশ্চিম দিকে পরপর দু’টি কক্ষ। পূর্ব দিকের কক্ষ দু’টি উচু চৌবাচ্চা হিসাবে ব্যবহার করা হত।

পূর্ব পাশ্বে দেয়াল বেস্টনীর ভেতরে রয়েছে ৯ ফুট ব্যাসের পোড়া মাটির ইটের তৈরি র্নিমিত সুগভীর কুপ যে কুপ হতে পানি টেনে তুলে এক ছাদের দু’টি চৌবাচ্চায় জমা করে রোদ্রে গরম করে দেয়াল অভ্যান্তরে গ্রহিত পোড়ামাটির নলের মাধ্যমে স্নান কক্ষে সরবরাহ করা হত।

স্থাপনাটির দক্ষিণ পার্শ্বে একটি চৌবাচ্চা এবং সুড়ঙ্গ রয়েছে যা তোষাখানা ছিল বলে ধারনা করা হয়। ১৯৯৬ সালে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এটিকে পুরার্কীতি হিসাবে ঘোষণা করে। যশোরের কেশবপুরের মীর্জানগর হাম্মামখানায় দশনাথী ও পর্যটকদের ভীড় লক্ষ্য করা যায়। আজও বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটক ও ভ্রমণ বিলাসী মানুষ ছুটে আসেন তার হাম্মখানা দেখতে এবং পোড়ামাটির গন্ধ নিতে।

01725876964-9 : ভরতভায়না বা ভর্তের দেউল ঢিবি, বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার গৌরিঘোনা ইউনিয়নে অবস্থিত ভরতভায়না গ্রামে অবস্থিত একটি প্রত্নক্ষেত্র, যা খ্রিস্টীয় ৭-৮ শতকের একটি নিদর্শন বলে ধারণা করা হয়। এটি একটি স্থানীয় কাচা সড়ক দিয়ে সাতক্ষীরা-দৌলতপুর জেলা পরিষদ সড়কের সাথে সংযুক্ত।এই প্রত্নস্থলটির পূর্ব দিক দিয়ে বহমান বুড়িভদ্র নদী।
দৌলতপুর থেকে প্রায় ২১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, দৌলতপুর-সাতক্ষীরা সড়কের প্রায় ১ কিলোমিটার দক্ষিণে, বুড়িভদ্র নদীর ডানতীরে প্রায় ৪০০ মিটার পশ্চিমে ভরতভায়না গ্রামে একটি ঢিবি রয়েছে। এসম্পর্কে যশোহর-খুলনার ইতিহাস গ্রন্থে বাবু সতীশ চন্দ্র মিত্র ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে লিখেছেন-

ইহা এখনও ৫০ ফুট উচ্চ আছে, লোকে বলে উহা পুর্বে আরো উচ্চ ছিল, কিন্তু একবার ভূমিকম্পে অনেকটা বসিয়া গিয়াছে। স্তুপটি গোলাকার, উহার পরিধি পাদদেশে ৯০০ ফুটের অধিক হইবে। ইহার দক্ষিণ-পূর্ব্ব দিক দিয়া নদী প্রবাহিত, অন্য তিন দিকে গড়খাই ছিল, তাহার চিহ্ন আছে। দক্ষিণ দিকে নদীর নিকটে একটি পুকুরের খাত দেখিতে পাওয়া যায়। স্তুপটি সম্পূর্ণ ইষ্টকরাশিতে পরিপূর্ণ। পাদদেশে খনন করিয়া প্রাচীরের চিহ্ন পাওয়া গিয়াছিল।

এর অব্যবহিত আগে বাংলার তৎকালীন প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক কে. এন. দীক্ষিত এই স্থান পরিদর্শন করে যে বর্ণনা দেন তা থেকে জানা যায়, স্তুপটি প্রায় ২৫০/২৭৫ মিটার বেড় ও ১০/১২ মিটার উচ্চতাবিশিষ্ট ছিল। তিনি সেখানে ১৬ ইঞ্চি × ১৩ ইঞ্চি × ৩ ইঞ্চি মাপের কিছু ইট দেখে অনুমান করেন যে, এখানকার ইমারতটি গুপ্ত যুগের ছিল এবং এটি ছিল একটি বৌদ্ধ সংঘারাম।[ক] সৌখিন প্রত্নতাত্ত্বিক আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দে প্রত্নস্থলটি ভ্রমণ করে জানান, তখনও এর বিশেষ পরিবর্তন ঘটেনি: তখনও ঢিবিটি ৯ মিটার উঁচু ও বেড় ছিল প্রায় ২১২ মিটার। তবে তিনি জানান, ঢিবির চারদিকের ভূমি প্রায় সমতল অবস্থায় পেয়েছেন তিনি এবং ঘাসের মাঝে প্রচুর ইট দেখেছেন। তিনি জানান, সে স্থানটিকে ঢিবির অংশ ধরলে ঢিবির পরিধি হবে ৪২৪ মিটার।

01725876964-10 : যশোর পৌর তোরন, এটি যশোর জিরো পয়েন্ট মোড়ে থেকে এসপি অফিস-এর মধ্যোখানে অবস্থিত।