চৌগাছায় প্যারাসিটামল গ্রুপের ঔষুধের সংকট তীব্র

0
134

নিজস্ব প্রতিনিধ

যশোরের চৌগাছায় প্যারাসিটামল গ্রুপের ঔষুধের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। একারনে বিপাকে পড়েছেন উপজেলার সাধারন রোগীসহ করোনা আক্রান্তরা।

দেশে প্রতিবছর এই সময় আবহাওয়া পরিবর্তনের সাথে সাথে প্রায় বাড়িতেই কমবেশি জ্বর-সর্দি-কাশির প্রাদূর্ভাব ঘটে থাকে। এবং সাধারণত জ্বরসহ বিভিন্ন কারনে মানুষ প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষধ ব্যবহার করে থাকে।

তবে উপজেলাতে এবার করোনার প্রভাব ও সাধারন ঠান্ডা জ্বরের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষধের চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। আর চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে হঠাৎ করেই ফার্মেসিগুলোতে এই সব ঔষধের সংকট দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, চৌগাছা উপজেলায় প্রায় ৮৬টি লাইসেন্সধারী ফার্মেসী ছাড়াও বেশ কিছু ফার্মেসী রয়েছে। তবে হাতে গোনা কয়েকটি ফার্মেসি ছাড়া অন্যান্য ফার্মেসিগুলো প্রায় প্যারাসিটামল শূন্য। আর চাহিদা ব্রদ্ধি পাওয়ায় ফার্মেসীগুলো হতাশা প্রকাশ করছেন।

চৌগাছা ঔষুধ দোকান মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক ও রোমানা ফার্মেসীর স্বত্তাধিকারি প্রভাষক রোকনুজ্জামান বলেন.“ বর্তমানে সকল কোম্পানির প্যারাসিটামল গ্রুপের ঔষুধ সরবরাহ কম। প্রায় ১৫দিন ধরে এই সংকট চলমান। কোম্পানির কাছে চাহিদাপত্র দিলেও তা ঠিকমতো সরবরাহ আসছে না। তবে সংকট থাকলেও কেউ এই ঔষুধের দাম বেশি রাখতে পারবে না। এমন ঘটনা ঘটলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও জানান রোকনুজ্জামান।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.লুৎফুন্নাহার লাকি বলেন,শুধু চৌগাছাতেই না যশোরেও এই ঔষুধের সংকট রয়েছে।

তবে যশোর ড্রাগ এন্ড কেমিস্ট সমিতির সদস্য ও নিপু ড্রাগ হাউজের স্বতাধিকারি আহসান কবির নিপু বলেন,“ বেক্সিমকো কোম্পানির “নাপা’ “নাপা এক্সটেন্ড” ও “নাপা র‌্যাপিড” এবং শিশুদের “নাপা সিরাপ”এর ঘাটতি রয়েছে। এছাড়া অন্যান্য কোম্পানির প্যারাসিটামল গ্রুপের ঔষুধ মোটামুটি আছে।