আদালতের ওয়ারেন্টের তামিলের নামে পুলিশ রীতিমতো অর্থ বাণিজ্যে লিপ্ত রিকল দেখানো হলেও হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে অনেককে

0
231

বিশেষ প্রতিনিধি: জেলা জুড়ে পুলিশ আদালত থেকে আসামী ধরার ওয়ারেন্ট নিয়ে রীতিমত বাণিজ্য শুরু করেছে। যে কোন মামলায় আদালত থেকে জামিন নিয়ে বাড়িতে থাকার এক পর্যায় পুলিশের বিভিন্ন টিম পর্যায়ক্রমে গিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ করেছেন ভূক্তভোগীরা। জেলার ৮ উপজেলার ৯ থানা ও থানার অধীনে পুলিশ ক্যাম্প,ফাঁড়ি ও তদন্ত কেন্দ্রে দায়িত্বরত কর্মকর্তারা জামিনের কপি মানছেন না বলে জামিনে থাকা ব্যক্তিকে গভীর রাতে হয়রানী মূলকভাবে গ্রেফতার করে থানা হাজতে আনছে বলে খবর পাওয়া গেছে।তাছাড়া, যে সব জামিন প্রাপ্ত ব্যক্তিরা পুলিশের হাতে গভীর রাতে ওয়ারেন্টের বুনিয়াদে গ্রেফতার হওয়ার পর পুলিশের চাহিদা মেটাতে পারছেন তাদেরকে ওই রাতে ছেড়ে দেওয়ার ব্যবসা জমপেশভাবে চলছে।
যশোর শহরের ঘোপ জেলরোড বেলতলা এলাকার মৃত সহিদ কসাইয়ের ছেলে কামাল হোসেন অভিযোগ করেন,গত ৬ আগষ্ট দিবাগত গভীর রাতে কোতয়ালি মডেল থানার এসআই মোস্তাফিজুর রহমানসহ একদল পুলিশ তার বাড়িতে অভিযান চালায়। কামাল হোসেনের ভাই নূরনবীকে গ্রেফতার করে। যে ওয়ারেন্টে নূর নবীকে গ্রেফতার করতে উদ্যোত হন উক্ত ওয়ারেন্টে নূর নবী ও তার বড় ভাই কামাল হোসেন জামিনে রয়েছেন বলে আদালত থেকে প্রাপ্ত রিকলের কপি দেখান। উক্ত রিকলের কপি থানায় রিসিভ করানোর কপি দেখালে এসআই মোস্তাফিজুর রহমান রিকলের কপি নিয়ে যাওয়ার আধাঘন্টা পর কোতয়ালি থানার অপর এসআই খবির হোসেনসহ একদল পুলিশ উক্ত কামাল হোসেনের বাড়িতে অভিযান চালায়। উক্ত ওয়ারেন্টে নূরনবীকে গ্রেফতার করে। নূর নবী জামিনের রিকলের কপি এসআই মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে দেখানোর এক পর্যায় এসআই মোস্তাফিজুর রহমান নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি জানালেও এসআই খবির হোসেন মানতে নারাজ। নূর নবীর বড় ভাই কামাল হোসেনের নাম্বারে ফোন করে ওই রাতে দেখা করতে বলেন। কামাল হোসেন জামিন ও রিকলের কপির বিষয়টি জানালেও এসআই খবির হোসেন তার সিদ্ধান্তে অটুট থাকেন। এক পর্যায় ওই রাতে নূর নবীকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে হাজতে রেখে দেয়। পরবর্তীতে ওই ওয়ারেন্টে দুপুরে আদালতে চালান দিলে আদালতে যাওয়ার সাথে সাথে উক্ত ওয়ারেন্টে কামাল হোসেন ও নূর নবীর জামিন বহাল থাকায় তাদেরকে স্ব-সম্মানে ছেড়ে দেওয়া হয়। প্রতিরাতে কোতয়ালি থানা কর্মরত এসআই,এএসআইগন অভিযানের নামে জামিনে থাকা ওয়ারেন্টের আসামীদের হয়রানী করছে বলে খবর পাওয়া গেছে।এছাড়া,কোতয়ালি থানায় কর্মরত কতিপয় এসআই ও এএসআই ওয়ারেন্ট তামিলের নামে অর্থ বাণির্জে লিপ্ত হচ্ছেন। প্রতিদিন কোন না কোন কর্মকর্তা ওয়ারেন্টের আসামী গ্রেফতার করে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তা মুক্তি দিচ্ছে। এ ধরনের ব্যবসা চলে আসছে ইতিপূর্ব থেকে। এ ব্যাপারে কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান,ওয়ারেন্টের বিষয় গুলো এভাবে ইতিপূর্বে চলে এসেছে জামিনে থাকলেও জামিনের কপি কিংবা রিকলের কপি থানায় যথাযথভাবে অর্ন্তভূক্ত না করায় এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here