আম বয়ানের মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার থেকে যশোরে ৩ দিনের আঞ্চলিক বিশ্ব ইস্তেমা শুরু হচ্ছে

0
419

এম আর রকি : আম বয়ানের মধ্য দিয়ে আজ বৃহস্পতিবার ফজরের নামাজের মধ্য দিয়ে যশোরে তিন দিনব্যাপী আঞ্চলিক বিশ্ব ইস্তেমা শুরু হচ্ছে । উপশহর ক্রীড়া উদ্যানকে ইস্তেমার মূল মাঠ করে সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে । আঞ্চলিক ইস্তেমায় যশোর জেলাসহ খুলনা বিভাগের ১০ জেলা ছাড়াও বিদেশি ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা অংশ নেবেন। আজ শুরু হয়ে আগামী ৩০ ডিসেম্বর শনিবার সকাল ১০ টায় আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে ইস্তেমার কার্যক্রম। ২০১৫ সালে যশোরে একই স্থানে আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছিল। ইস্তেমার খেদমতে থাকা মুসল্লিদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, গত বারের ন্যায় উপশহর ক্রীড়া উদ্যানকে ইস্তেমার মূল কেন্দ্রবিন্দু মাঠ করে আরও ৩টি মাঠকে ইস্তেমার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। খুলনা বিভাগের ১০ জেলা ও বিদেশিসহ ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ইস্তেমার উপযোগী এই মাঠগুলোতে অবস্থান করবেন। অন্য মাঠগুলোর মধ্যে রয়েছে উপশহর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ, বাদশাহ ফয়সাল স্কুল মাঠ ও উপশহর ডিগ্রি কলেজ মাঠ। মূল মাঠের নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র থেকে সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করা হবে। ইস্তেমায় অন্য জেলা থেকে আগত মুসল্লিদের জন্য উপশহর পার্কের মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে সেখানে স্থান সংকুলন না হলে অন্যান্য মাঠগুলোর সাথে সমন্বয় করা হবে। আগত মুসল্লিদের যানবাহনের জন্য উপশহর বিরামপুর স্কুল মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে। মূল মাঠে বিদেশি মেহমানরা থাকবেন উত্তর-দক্ষিণ অংশে। মূল মাঠের ১ নম্বর তাবুস্থানে (খিত্তা) অবস্থান করবেন বাঘারপাড়া উপজেলার মুসল্লিরা। একই মাঠের ২ নম্বর তাবুস্থানে সদরের লেবুতলা, চুড়ামনকাটি, কিসমত নওয়াপাড়া, হৈবতপুর ও কাশিমপুরের মুসল্লিরা, ৩ নম্বরে রাখা হবে ফতেপুর, কচুয়া, ইছালী ও বসুন্দিয়া থেকে আগতদের, ৪ নম্বরে দেয়াড়া, আরবপুর, চাঁচড়া, রামনগর ও নরেন্দ্রপুরের মুসল্লিরা অবস্থান করবেন। উপশহর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ৫নম্বর তাবুস্থানে (খিত্তা) কেশবপুর উপজেলা, ৬নম্বরে অভয়নগরের মুসল্লিরা অবস্থান নেবেন। বাদশাহ ফয়সাল স্কুল মাঠে ৭নং খিত্তায় মণিরামপুর, ৮নম্বরে ঝিকরগাছার মুসল্লিরা থাকবেন। উপশহর ডিগ্রি কলেজ মাঠে ৯নম্বর খিত্তায় থাকবেন চৌগাছা এবং ১০ নম্বরে থাকবেন শার্শার মুসল্লি। ইস্তেমা ময়দানে অবস্থানরত কয়েকজন মুসল্লি এ প্রতিবেদমকে জানান, প্রতি বছর তাবলিগ জামাতের উদ্যোগে এই ইস্তেমার আয়োজন করা হয়। তবে আঞ্চলিক ইস্তেমার কেন্দ্রীয় মার্কাসের সিদ্ধান্তে গ্রহন করা হয়। এতে বিদেশিরাসহ জেলা ও জেলার বাইরে থেকে তাবলিগের সাথীরা অংশ নেন। শীর্ষ আলেমরা এতে বক্তব্য দেবেন।ইস্তেমার মাঠ ও তার আশপাশ এলাকায় যাতে কোন নাশকতা মূলক কর্মকান্ড ঘটতে না পারে তার জন ব্যাপকভাবে পুলিশ মোতায়েনসহ গোটা ইস্তেমার মূল মাঠসহ আশপাশের মাঠ পর্যবেক্ষনের জন্য সিসি টিভির আওতায় রাখা হচ্ছে বলে সূত্রগুলো জানিয়েছেন। বুধবার সকাল থেকে খুলনা বিভাগ ছাড়াও অন্য বিভাগ থেকে পুলিশের কর্মকর্তা ও সদস্যরা আসতে শুরু করেছে ইস্তেমায় দায়িত্ব পালন করতে। বুধবার বিকেলে ইস্তেমায় দায়িত্ব পালনকারীদের পুলিশ কর্তা ও সদস্যদের নিয়ে পুলিশের ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here