আরেকটি গাড়ি হস্তান্তর করল বিশ্বব্যাংক

0
365

নিজস্ব প্রতিবেদক : একজন সাবেক কর্মকর্তার ব্যবহৃত গাড়ি শুল্ক গোয়েন্দাদের কাছে হস্তান্তর করেছে বিশ্বব্যাংক। এই নিয়ে শুল্কমুক্ত সুবিধার অপব্যবহারের অভিযোগে সংস্থাটির মোট তিনটি গাড়ি জব্দ হলো।

আজ রোববার সকালে কাগজপত্র যাচাই শেষে শুল্ক গোয়েন্দা গাড়িটি জব্দ দেখিয়েছে। তবে গাড়িটি ২২ ফেব্রুয়ারি বিকেল পাঁচটায় বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশ অফিস থেকে একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দার সদর দপ্তরে পাঠানো হয়।

সম্প্রতি শুল্কমুক্ত সুবিধায় আনা ১৬টি গাড়ি অপব্যবহারের অভিযোগ বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে এনেছিল শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। এ অভিযোগের পাঁচ দিন পর দুটি গাড়ি জমা দেয় সংস্থাটি।

প্রাথমিকভাবে অনুসন্ধানে জানা যায়, আজকের জব্দ গাড়িটি ব্যবহার করতেন নিহাল ফার্নান্দো। তিনি সংস্থাটিতে ২০০৮ সালের এপ্রিল থেকে ২০১০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশে সিনিয়র রুরাল ডেভেলপমেন্ট স্পেশালিস্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এখানে থাকাকালে ব্যক্তিগত ব্যবহারের উদ্দেশ্যে তিনি গাড়িটি শুল্কমুক্ত সুবিধায় কেনেন। পরে ২০১০ সালের ডিসেম্বরেই স্থায়ীভাবে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন তিনি।

নিহাল ফার্নান্দোর (কাস্টমস পাসবুক নং ৫০/০৮) ব্যবহৃত ওই গাড়ি ২০০৬ সালের টয়োটা এলিয়ন মডেলের। বাংলাদেশ ত্যাগের আগে আইনানুযায়ী কাস্টমস পাসবুক ও গাড়িটি কাস্টমস কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করে যাননি। এতে শুল্ক আইন ভঙ্গ হয়, যা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

বাংলাদেশে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বিদেশি সংস্থায় কর্মরত প্রিভিলেজড পারসনদের শুল্কমুক্ত সুবিধার অপব্যবহারসংক্রান্ত চলমান তদন্তের প্রয়োজনে শুল্ক গোয়েন্দা সদর দপ্তর থেকে বিশ্বব্যাংকের কাছে তথ্য চাওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশ দপ্তর থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারি তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল শুল্ক গোয়েন্দা দপ্তরে উপস্থিত হয়ে তাদের পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করে। শুল্ক গোয়েন্দার তদন্তে সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেওয়া হয়।

সম্প্রতি এনবিআরের এক অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ৩৯৫ জন বিদেশি নাগরিক, যাঁরা এ দেশে বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন, কাজের মেয়াদ শেষে তাঁরা শুল্কমুক্ত গাড়ি-সুবিধার অনুকূলে ইস্যু করা পাসবুকগুলো এনবিআরে ফেরত দেননি। এ তালিকায় বিশ্বব্যাংক, জাইকা, ইউএনডিপিসহ ২৫টি উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান আছে। এর মধ্যে বিশ্বব্যাংকের ৫৩ জন কর্মকর্তা আছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here