ঈদকে সামনে রেখে মাদক দ্রব্যসহ ভারতীয় মালামাল মজুদ করতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে যশোরের চোরাকারবারীরা

0
318

উত্তম চক্রবর্ত্তী : ঈদকে সামনে রেখে মণিরামপুের চোরাকারবারীরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তারা ভারতীয় মালামালসহ মাদক দ্রব্য মজুদ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। মরন নেশা ইয়াবা, ফেনসিডিল, ভারতীয় মদসহ নানান প্রকার নেশাজাত দ্রব্য, শাড়ি, থ্রিপিচ, কসমেটিক,ঔষুধসহ নানান দ্রব্যাদি এনে মজুদ করছে। ভারত থেকে সীমান্ত পার করে বাংলার বিভিন্ন প্রান্তরে পাঠাতে উপজেলার বিভিন্ন সড়ক নিরাপদ রুট হিসাবে বেছে নিয়েছে তারা। পাচারকারীরা নির্ধিদায় এ অঞ্চলের ভারত সীমান্তের পুটখালী বর্ডার, গোগা বর্ডার, বেনাপোল বর্ডারসহ আশপাশের কয়েকটি বর্ডার দিয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত ভারতী মালামালসহ মাদক দ্রব্য পার করে কলারোয়া উপজেলার ভিতর দিয়ে খোর্দ্দ গার্ডার ব্রীজ পার হয়ে ও দেয়াড়া গ্রামের ভীতর হয়ে এসে কপোতাক্ষ নদের খেয়াতরী পার হয়ে মণিরামপুর উপজেলায় ওঠে। একই ভাবে ঝিকরগাছা উপজেলার ভিতর দিয়ে এসে দিগদানা খেয়াঘাট ও মাঠশিয়া খেয়াঘাট পার হয়ে মণিরামপুর উপজেলার প্রবেশ করে। পরে এ এলাকার চোরাকারবারীরা পিকআপ, মাইক্রোবাস ও মটরসাইকেলে করে প্রতিনিয়ত বিকালে, সন্ধায় ও গভীর রাতে উপজেলার নিরাপদ রুট পারখাজুরা বাজার পার হয়ে হাজরাকাটি বেলতলা বাজারের উপর দিয়ে ও নেংগুড়াহাট বাজারের রাস্তা দিয়ে মণিরামপুর উপজেলা সদও, কেশবপুর উপজেলা সদর ও নওয়াপাড়া খুলনাতে নিয়ে যায়। আবার অনেক চোরাকারবারী বাঁকড়া বাজার থেকে এসে ডুমুরখালী বাজারের উপর দিয়ে রাজগঞ্জের বাইপাস সড়ক দিয়ে অথবা খেদাপাড়া বাজারের পাশ দিয়ে মণিরামপুর বাজারে ওঠে নওয়াপাড়া ও খুলনায় নিয়ে যায়। চোরাকারবারীরা এবারে ভারত থেকে সীমিত পরিমান শাড়ী ও থ্রিপিচ আনছে বলে জানা গেছে। উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন বাজারের দোকানে এ সকল মালামাল উঠাচ্ছে। তবে এ বছর বেশির ভাগ চোরাকারবারীরা মাদক পাচার করছে বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে। নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক এক চোরাকারবারী প্রতিনিধিকে বলেন, সেপের ব্যবসা হলো মাদক। আর অল্পতে অনেক লাভ। তাই আমরা মাদক আনার কাজটি বেছে নিয়েছি। বিশেষ করে ইয়াবা ট্যাবলেট ও ফেনসিডিল। তবে একটি সুত্রে জানায়, ইয়াবা ট্যাবলেট বারতের চেয়ে বেশি পরিমান মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসছে। কস্কবাজার , চিটাগাং ও ঢাকা থেকে যে সকল পরিবহন বেনাপোলে আসে ঐ সকল পরিবহনে ও বিভিন্ন প্রাইভেট গাড়ীতে এই ইয়াবা সরাসরি বেনাপোলে চলে আসছে। এখান থেকে দেশের দক্ষিন বঙ্গের বিভিন্ন জেলা উপজেলা ও প্রত্যান্ত অঞ্চলে পৌছাচ্ছে। তা ছাড়া ভারত থেকেও অনেক ইয়াবা ট্যাবলেট বেনাপোলে আসে। সবই দেশের দক্ষিন বঙ্গের সব খানে পাচার হয়ে থাকে। যার কারনে ইয়াবা ট্যাবলেট পাচারকারী ও ব্যবসায়ী বেনাপোলে বেশি। ফেনসিডিলও কম নয় বেনাপোলে। ফলে আটক, মামলা ও জেলহাজতের দিকে লক্ষ করলে তার স্পষ্ট প্রমান মিলছে। সদ্য জেলহাজত থেকে জামিনে আসা এক ব্যক্তির সাথে কথা হলে সে জানায়, এখন জেলখানায় যত আসামী রয়েছে অধিকাংশই ইয়াবায় আশক্ত না হয় ইয়াবা ব্যবসায়ী ও পাচারকারী। পুলিশ প্রশাসন এই ব্যবসার সাথে জড়িত ও আশাক্তাকারীদের ধরে জেলহাজতে প্রেরন করলেও কমছে না বরং বাড়ছে। দেখা গেছে এরা জেল থেকে ফিরে আবারও হাটছে ইয়াবার দিকে। প্রশাসন কঠোর পদক্ষেপ গ্রহন করলেও বন্ধের কোন সম্ভবনা দেখা যাচ্ছেনা । তার একটাই কারন নেশাজাত এই ইয়াবা ট্যাবলেটটি ছোট্র আকৃতির তাই। তবে ইয়াবা ট্যাবলেট বিদেশ থেকে আনার পথটি যদি সরকার বন্ধ করতে পারে তাহলে বন্ধ হতে পারে এক মাত্র মরন নেশাটি। মরন নেশা ইয়াবাই আজ শুধু মণিরামপুর নয় দেশের যুব সমাজ, ছাত্রসহ সকলকে জিম্বি করে ফেলেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here