একটানা ভারী বর্ষনে রাজগঞ্জ অঞ্চলে শাকসবজির ব্যাপক ক্ষতি, ঘের ভেসে যাওয়ায় মাছ ধরার হিড়িক

0
386

উত্তম চক্রবর্ত্তী: একটানা বৃষ্টিতে রাজগঞ্জ অঞ্চলে শাকসবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পানিতে তলিয়ে গেছে  বেগুন, পটল, বরবটি, পুইশাক, উছতে, লাউ, শশৃা ও লাল শাকের ক্ষেত। ভেসে গেছে অনেক মাছের ঘের, বাড়িতে পানি ওঠাই বিষক্ত সাপের উপদ্রপ বেড়ে গেছে। পানির স্রোতে ঝাঁপা বাওড়ের সংযুক্ত সকল খালে মাছ ধরার ব্যাপক হিড়িক পড়েছে। সরে জমিনে ঘুরে দেখা গেছে,এক টানা বৃষ্টির কারনে রাজগঞ্জের ঝাপা ইউনিয়নের হানুয়ার গ্রামের কামরুলের প্রায় ৬ বিঘা, একই গ্রামের সেলিমের সাড়ে ৫ বিঘা , বর্গা চাষি মধুর ৩ বিঘা ও আবক্করের ৪ বিঘা, খালিয়া গ্রামের আতিয়ারের ২ বিঘাসহ এ ইউনিয়নে প্রায় কয়েকশ বিঘা বেগুন ও পটলের ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। চাষি কামরুল জানায়, ৬ বিঘা বেগুন চাষ করে আমার যে পরিমান খরচ হয়েছে সে পরিমান টাকা এখনও বিক্রি করতে পারেনি। ফলে এ বছর আমার প্রায় ২ থেকে আড়াই লাখ টাকার বেশি ক্ষতি হচ্ছে। একই গ্রামের সেলিম ও মধু একই সুরে কথা বললেন। চালুয়াহাটী ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, বেগুন. বরবটি, পটল, লাই,পুইশাখ,লাল শাখ, শশাসহ আরো অনেক প্রকারের শবজি বাগান পানিতে থই থই করছে। ইউনিয়নের সিংহের খাজুরা গ্রামের মসলেম, আহাদ, তাজউদ্দীন, কুদ্দুস ও জিয়ারের সাথে কথা হলে তারা প্রতিনিধিকে জানান, আমরা ২/৩ বিঘা করে বেগুন, পটল ও বরবটি লাগিয়েছি। এ সব সবজি পানির নীচে। তাই এবার আমাদের দু:খের শেষ নেই। একই ইউনিয়নের হয়াতপুর গ্রামের নিজাম উদ্দীন, আব্দুর রশিদ, চালুয়াহাটী গ্রামের রহিম জানাই তাদের চাষকৃত সব সবজি পানির নীচে। মোবারকপুর গ্রামের কামাল,টিটু ও গোলাম বিশ্বাস  বলেন চাষ করে সবে ফসল বিক্রি করা শুরু করেছি। এরই মাঝে হঠাৎ বৃষ্টিতে তলিয়ে গেল সকল ফসল। ফলে এবারে সবজি চাষে আমাদের অনেক লোকসান হবে।
উল্লেখ্য বাংলাদেশের মধ্যে রাজগঞ্জ অঞ্চলে কৃষকরা শাকসবজি চাষে সব থেকে বেশি পরিমান ভুমিকা রাখার কারনে, কৃষকদের যাতায়াতের সুবিধার্থে সম্প্রতি আমেরিকা জনগনের পক্ষ হতে ও ইউএসএআইডি সংস্তার অর্থায়নে ১কোটি ৩৫লাখ টাকার উর্দ্ধে ব্যয় করে রাজগঞ্জের মোবারকপুর শ্বশান ঘাট মোড় হতে নেংগুড়াহাট বাজার পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলোমিটার রাস্তা পাঁকা করেন। এ অঞ্চলের শাকসবজি চাষিদের সুবিধার্থে শুধু রাস্তা পাকা করন নয় সাথে সাথে সিংগের খাজুরা আশ্রয়ন প্রকল্পের মোড়ের রাস্তার দু-ধারে ঐ শাকসবজি বিক্রির জন্য আরো ৫৭ লাখ ৬৩ হাজার ১ শ ২৫ টাকা  ব্যয়ে দুটি চাতাল তৈরী করেছেন। এ অঞ্চলের কৃষকদের যেন মাঠ থেকে শাকসবজি তুলে বিক্রি করতে দুরের কোন বাজারে যেতে না হয়। শুধু এই নয় সংস্থাটি এ অঞ্চলের চাষিদের মাঝে বছরের বার মাস শাকসবজি চাষের জন্য ঐ চাতালের পাশে একটি ট্রেনিং সেন্টার তৈরী করেছেন। বছরের প্রায় প্রতি মাসে এ অঞ্চলের চাষিদের শাকসবজি চাষে ট্রেনিং দিয়ে থাকেন ঐ সংস্থা সহ বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে। এক সময় রাজগঞ্জের রামপুর, শাহাপুর , হয়াতপুর, মোবারকপুর, চালুয়াহাটী, সিংহের খাজুরা, মশ্বিমনগর সহ ১০/২৫ টি গ্রামে শীতের মৌসুমে এত পরিমান শাকসবজির চাষ হতো যে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের প্রায় জেলাই রাজগঞ্জের তরকারী চালান হতো।
এদিকে একটানা কয়েক ঘন্টার বৃষ্টিতে শাকসবজির ক্ষয় ক্ষতি সম্পর্কে জানতে চাইলে, চালুয়াহাটী ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফারুখ হাসান বলেন, আমি কৃষকদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি পানিতে বেগুন, পটল, বরবটিসহ অনেক শাকসবজির ক্ষেত তলিয়ে গেছে। তবে বন্দের দিন থাকায় আমি মাঠে যেতে পারিনি।
কথা হয় ঝাঁপা ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পলাশ কুমারের সাথে তিনি বলেন, পানিতে সব থেকে বেশি ক্ষতি হয়েছে বেগুনের। শুক্রবার হলেও আমি অনেক সবজির ক্ষেত দেখেছি। বেগুন, পটল সহ অনেক সবজি ক্ষেতে পানি থই থই করছে। আমার ইউনিয়নের সর্বচ্ছ বেগুনের বেশি ক্ষতি হয়েছে। তবে কি পরিমান ক্ষতি হয়েছে তা এখনও নির্ধারন করা যায়নি।
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুকান্ত কুমার তালুকদার জানান, বৃষ্টিতে শাকসবজির অনেক ক্ষতি হয়েছে। তবে কি পরিমান শাকসবজির ক্ষতি হয়েছে তা সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছে না। কারন বন্ধের দিন থাকায় অনেক ইউনিয়নের উপসহকারী কর্মকর্তারা মাঠে যেতে পারেনি। তবে উপজেলার পশ্চিমাঞ্চল তথা রাজগঞ্জ অঞ্চলে সব থেকে বেশি পরিমান শাকসবজির ক্ষতি হয়েছে বলে জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here