একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-৩ সদর আসনটির আওয়ামীলীগের টিকিট পাওয়া নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে শুরু হয়েছে নানা গুঞ্জন

0
421

এম আর রকি : দেশের সীমান্তবর্তী যশোর জেলায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা। কাকে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে? কে মনোনয়ন পাওয়ার যোগ্য এমন প্রশ্ন সাধারণ ভোটার থেকে শুরু করে সর্ব মহলে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষন। যশোর জেলার নির্বাচনী আসন যশোর-৩ শুধু মাত্র সদর উপজেলা নিয়ে গঠিত। এই আসনে সদর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ছাড়াও একটি পৌরসভা রয়েছে। যশোর-৩ আসনের উপর নির্ভর করে যশোর জেলার রাজনৈতিক অবস্থান। ১৫টি ইউনিয়ন আর একটি পৌরসভা নিয়ে যশোর সদর উপজেলায় ভোটার সংখ্যা ৫লাখ ৪১ হাজার ১শ’ ৬৯জন বলে জানিয়েছেন সদর উপজেলার নির্বাচন অফিসার রশিদ আহমেদ।তিনি আরো জানান,১৫টি ইউনিয়ন একটি পৌর সভা ছাড়াও এখানে রয়েছে একটি ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড। সব মিলিয়ে যশোর জেলার যশোর-৩ সদর আসনের ভোটার সংখ্যা জেলার অন্যান্য উপজেলা নিয়ে গঠিত আসনগুলিতে এত বেশী ভোটার নাই। যশোর-৩ সদর আসনে আওয়ামীলীগ স্বাধীনতার পর থেকে এক চেটিয়া সাধারণ ভোটারদের মূল্যায়নের কারনে সংসদ পদটি দখল করে ছিল। বর্তমানে এই আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে কাজী নাবিল আহমেদ সংসদ সদস্য হিসেবে বিগত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী নির্বাচনে নির্বাচিত হন। প্রধান বিরোধীদল বিএনপি মাঠে না থাকার সুযোগে কাজী নাবিল আহমেদ আওয়ামীলীগ প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হলেও এই আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহিন চাকলাদার, আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য প্রার্থী হিসেবে প্রত্যাশা করছে সাধারণ ভোটারগন। জেলার শীর্ষ আসন হিসেবে খ্যাত যশোর সদর-৩ এ আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থী ছাড়াও তাদের ১৪ দলীয় শরীক দলের ন্যাপের এডভোকেট এনামুল হক,জাসদের বীরমুক্তিযোদ্ধা কাজী রবিউল আলমের নাম উচ্চারিত হয় সর্বশ্রেনীর ভোটারদের মধ্যে। তবে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি’র একমাত্র প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলামের নাম ছাড়া কাহারও নাম শোনা যাচ্ছেনা বর্তমানে। চারদলীয় ঐক্যজোট বর্তমানে ২০দলীয় জোটের শরীক দল যশোর-৩ বাদে অন্যান্য আসনে প্রার্থীতা দাবি করে আসছে। এই আসনে প্রধান বিরোধীদল বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা তরিকুল ইসলামকে বিজয়ের ব্যাপারে সাধারণ ভোটারগন আশা পোষন করে আসছে। এই আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থীদের মধ্যে মত বিরোধ থাকায় এই আসনে বিএনপি’র কাছে আওয়ামীলীগ পরাজিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশী বলে সাধারণ ভোটারগন মনে করছেন। গতবার বিএনপি নির্বাচনে মাঠে না থাকায় ফাকা মাঠে আওয়ামীলীগ গোল করার সুযোগ আর পাচ্ছেনা বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি সমর্থিত সূত্রগুলো। আওয়ামীলীগ সমর্থিতরা মনে করছেন এবারও আওয়ামীলীগের প্রার্থীর কাছে বিএনপি’র যত শক্তিশালী ও হেভিওয়েট প্রার্থী থাকুক না কেন উন্নয়নের জোয়ারে বিএনপি’র প্রার্থী পরাজিত হবে। এভাবে যশোর সদরের হাট বাজার,গ্রাম পাড়া মহল্লায় চলছে ভোটের আমেজ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর সদর-৩ আসনটির উপর গোটা জেলার রাজনৈতিক অবস্থান টিকে থাকে। এই আসনটি দখলে আওয়ামীলীগের ও বিএনপি’র প্রার্থী যিনি হবেন তিনি কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রার্থী হওয়ার নিশ্চয়তা পাবেন। এখন দেখার পালা আওয়ামীলীগের এক মাত্র প্রার্থী হচ্ছেন কে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here