ঐতিহ্যবাহী যশোরের হাজ্বী মুহাম্মদ মহসীন স্কুলে প্রধান শিক্ষকসহ তিনটি পদে নিয়োগ চুড়ান্ত পথে

0
357

এম আর রকি : সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শনিবার ঐতিহ্যবাহী যশোরের দানবীর হাজী মুহাম্মদ মহসীন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক,সহকারি প্রধান শিক্ষক ও লাইব্রেরীয়ান পদে জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। তবে মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নয়। একটি মহলের চুক্তিবদ্ধ প্রার্থীদেরকে প্রধান শিক্ষক,সহকারী প্রধান শিক্ষক ও লাইব্রেরীয়ান পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া চুড়ান্ত প্রক্রিয়ার পথে রয়েছে। এ নিয়োগ দূর্নীতিগ্রস্থ বলে দাবি করেছেন পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারী অন্যান্য প্রার্থীরা। এ তথ্য নির্ভরযোগ্য সূত্রের। গত বৃহস্পতিবার অত্রপত্রিকায় উক্ত বিদ্যালয়ে চারটি পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া নিয়ে লাখ লাখ টাকা বানিজ্য হচ্ছে বলে খবর প্রকাশিত হয়। উক্ত বিদ্যালয়ে লোক নিয়োগে প্রধান শিক্ষক,সহকারি প্রধান শিক্ষক ,অফিস সহকারি ও লাইব্রেরীয়ান পদে মেধাবী ও যোগ্যতা প্রার্থী চুড়ান্ত নিয়ে সংশয় দেখা দিলেও একটি মহলের দীর্ঘদিনের আশা আখাংকা অর্ধকোটি টাকা উপার্জনের চুক্তি বাস্তবায়নে রুপ নিয়েছে। এই নিয়োগ প্রক্রিয়া যোগ্যতা ও মেধার ভিত্তিতে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ গ্রহন করা হলেও তা ভাটা পড়ে যায়। তার কারণ শনিবার যশোর সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে যে নিয়োগ প্রক্রিয়া হয়েছে তা ছিল পূর্বের রুপ রেখা। উক্ত রুপ রেখা ও নির্দেশ অনুযায়ী মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে উক্ত বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক শাহআলম প্রধান শিক্ষক,আব্দুল মজিদ সহকারি প্রধান শিক্ষক ও রোকশানা রশিদ লাইব্রেরীয়ান পদে নিয়োগ পেয়েছেন। নির্বাচিত কমিটিতে যশোর সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা,উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষক পারভেজ আলম,যশোর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের প্রতিনিধি হিসেবে ওই দপ্তরের একাডেমিক সুপার ভাইজার আশিক আহমেদ,দানবীর হাজ্বী মুহম্মদ মহসীন বিদ্যালয়ের অবসর প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক চুক্তিভিত্তিক প্রধান শিক্ষক নাজমুল ইসলাম ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শেখ সালাউদ্দিন টিপু উপস্থিত ছিলেন। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, উক্ত বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নাজমুল ইসলাম ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর অবসরে যান। অবসরে যাওয়ার পর থেকে প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পদটি শুন্য হওয়ার পর ওই পদগুলো আকড়ে ধরার টার্গেট নিয়ে আদালতে মামলা মোকদ্দমা হয় । প্রধান শিক্ষক পদটি শুন্য হওয়ার পর বেতন ছাড়াই ওই বিদ্যালয়ে শুন্য পদে প্রধান শিক্ষকের পদে অবসরে যাওয়া নাজমুল ইসলাম চুক্তিভিত্তিক হিসেবে প্রধান শিক্ষক পদে দায়িত্ব গ্রহন করেন। সূত্রগুলো আরো জানায়, প্রধান শিক্ষক পদ ছাড়াও সহকারি প্রধান শিক্ষক, অফিস সহকারী ও লাইব্রেরীয়ান পদে নিয়োগ দেওয়া নিয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।,প্রধান শিক্ষকের পাশাপাশি উক্ত বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পদটি র্দীঘদিন শুন্য হয়ে পড়ে। ম্যানেজিং কমিটি ও শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে আদালতে মামলা হওয়ায় উক্ত বিদ্যালয়ে সকল নিয়োগ ও ম্যানেজিং কমিটি গঠন প্রক্রিয়া র্দীঘদিন স্থগিত হয়ে পড়ে। এহেন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ করতে ৩০ নভেম্বর নিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ম্যানেজিং কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পদটি সাবেক ছাত্রলীগের নেতা স্থানীয় বাসিন্দা শেখ সালাউদ্দিন টিপু লাভ করেন।
আবেদনের প্রেক্ষিতে ইতিপূর্বে প্রধান শিক্ষক পদে ৮জন,সহকারি প্রধান শিক্ষক পদে ৪জন,অফিস সহকারি পদে ১৭জন ও লাইব্রেরিয়ান পদে ১৩জন আবেদন পত্র জমা দেন। এই নিয়োগ বাস্তবায়নে গত ২০ জানুয়ারী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার দিনক্ষন ধার্য্য হলেও অর্থলেন কারী মহলের কারণে সেই নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। পদগুলো পূরনে উক্ত বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট একটি মহল ৪০ লাখ থেকে অর্ধকোটি টাকা চুক্তিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া বাস্তবায়নে জোর তৎপরতা অব্যাহত রাখে। পরবর্তীতে বিভিন্ন মাধ্যমে এই পরিকল্পিত নিয়োগ বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষ থেকে সরিয়ে এনে ২৫ ফেব্রুয়ারী শনিবার সকালে সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে নিয়োগ পরীক্ষা চুড়ান্ত করা হয়। এই নিয়োগের ব্যাপারে ইতিপূর্বে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শেখ সালাউদ্দিন টুকুর মোবাইল ফোনে আলাপকালে তিনি সাংবাদিকদের জানান,নিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিদ্যালয়ে চারটি শুন্য পদ পুরনে ৫ জনের নিয়োগ কমিটি গঠন করার নিয়ম। নিয়োগ কমিটির পাঁচ জনের প্রতিজন ১০ মার্ক করে ৫০ মার্ক প্রদানের মাধ্যমে নিয়োগ পক্রিয়া বাস্তবায়ন করা হয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে এই নিয়োগে মোটা অংকের উৎকোচ লেনদেনের কোন সুযোগ নেই। নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন,উক্ত বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক শাহআলম প্রধান শিক্ষক পদটি পূরনে মরিয়া হয়ে ওঠে। তিনি প্রধান শিক্ষক পদটি আকড়ে ধরতে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে মাঠে থাকতে প্রস্তুত হন। এছাড়া, লাইব্রেরীয়ান পদে রোকসানা রশিদ নামে এক নারী ৬লাখ টাকা দেওয়ার প্রস্তাব দিলেও ১০ লাখ টাকা দাবি করার গুঞ্জন উঠে। বাকী অফিস সহকারি ও সহকারি প্রধান শিক্ষক পদটি পুরণেও মোটা অংকের দেন দরবার চলতে থাকে। শনিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী সকালে নিয়োগ প্রক্রিয়া নিজেদের অনুকূলে রাখতে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বাতিল করে যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হওয়া ওই মহলের ষোলকলার এক আনা বাদে পূরণ হয়। অফিস সহকারি পদটি শুন্য রেখে বাকী তিনটি পদ পূরণ চুড়ান্ত প্রক্রিয়ায় রুপ নেয়। এ ব্যাপারে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শেখ সালাউদ্দিন টিপুর সাথে বুধবার দুপুরে সাংবাদিকরা ২২ ফেব্রুয়ারী নিয়োগের ব্যাপারে মোটা অংকের লেনদেনের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তিনি সত্য নয় বলে জানান। শনিবার প্রধান শিক্ষক,সহকারী প্রধান শিক্ষক ও লাইব্রেরীয়ান পদে যারা নিয়োগ পেয়েছেন তাদের যোগ্যতা ও মেধা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন নিয়োগ পক্রিয়ায় অংশ নেয়া প্রার্থীরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন প্রার্থী এই অর্থনৈতিক লেনদেন প্রক্রিয়ায় নিয়োগ বাতিলের জোর দাবি জানিয়েছেন।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here