কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে ।। সভাপতির নাম ঘোষনার পর আসবাবপত্র ভাংচুর- আইনজীবীদের লাঞ্ছিত ঘটনা

0
385

মনির হোসেন : কুমিল্লা জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনকে ঘিরে ১১ মার্চ ফলাফল ঘোষণাকালে সৃষ্টি হয় হট্টগোল। পরে উভয় পক্ষের ৬ জন করে আইনজীবী নিয়ে একটি এমিকাস কিউরি কমিটি গঠিত হয়। গতকাল রোববার এমিকাস কিউরি কমিটি জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের মনোনীত প্রার্থী সভাপতি পদে এডভোকেট মো: ইসমাইলের নাম বিজয়ী ঘোষণার পরে আওয়ামীলীগ আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ ক্ষুব্ধ হয়ে আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের রুমের দরজা, রুমের সামনে থাকা চেয়ার, টেবিল, সেলফ ভাংচুর করে এবং তাদেরকে লাঞ্ছিত করার খবর পাওয়া গেছে।
জানা যায়, কুমিল্লা জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের ভোট গণনাকালে পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক থাকলেও হট্টগোলের সৃষ্টি হয় বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্যপরিষদের (ইসমাইল-মোস্তফা) সভাপতি পদে প্রার্থী মোহাম্মদ ইসমাইলকে প্রদত্ত ২টি ভোট নিয়ে। এ দু’টি ভোটের একটি ব্যালট পেপারে ভোটার ডাবল ক্রস দিয়েছেন। আরেকটি ব্যালটে ক্রস চিহ্ন ও দস্তখত দু’টোই রয়েছে। এ দু’টি ভোটেই সভাপতি পদে মোহাম্মদ ইসমাইল এগিয়ে রয়েছেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী ঐক্য পরিষদের (হাসেম-নুরু) সভাপতি প্রার্থী আবুল হাসেম খানের কাছ থেকে। এদিকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ জানান, গত ৯ মার্চ কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের ভোট গণনা শেষে ফলাফলে দেখা যায় যে, সভাপতি পদে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের মনোনীত এডভোকেট মো: ইসমাইল ৩ ভোটে এগিয়ে রয়েছে। এতে নৈতিকভাবে আওয়ামীলীগ আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ উক্ত ফলাফলে মেনে না নিয়ে বর্তমান নির্বাচন কমিশন আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদককে লাঞ্ছিত করে এবং সভাপতি শফিকুল আলমকে পানির বোতল, কাচের প্লেট ছুড়ে মারে। শুধু তাই নয় অনেক আইনজীবীকে লাঞ্ছিত করে। পরবর্তীতে সভাপতি পদের ভোটের ফলাফল ঘোষণা না করে নির্বাচন কমিশন উভয় পক্ষের ৬ জন করে মোট ১২ জনকে নিয়ে ভোট পুনগণনা করে। এতে পূর্ব ফলাফল প্রতীয়মান হয়। তারপরও ক্ষমতা দেখিয়ে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ফলাফল ঘোষণা করতে বাধা প্রদান করে। পরবর্তীতে আইনজীবী সমিতির সিনিয়র আইনজীবীদের হস্তক্ষেপ ৩ জন আইনজ্ঞকে এমিকাস কিউরি নিয়োগ দেয়া হয়। এমিকাস কিউরিদের সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে মেনে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এতে এমিকাস কিউরি ৩ ভোটের মধ্যে ২টিকে বাতিল করে। ১টি ভোট গ্রহণ করে ফলে এডভোকেট মো: ইসলাম হোসেন সভাপতি পদে নির্বাচিত হন। ফলে ক্ষুব্ধ হয়ে আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ বর্তমান আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অফিস ভাংচুর করে। তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং সাধারণ সম্পাদক এড. মফিজুল ইসলামকে খোঁজাখুজি করতে থাকে। প্রতিক্রিয়া হিসেবে সাধারণ আইনজীবীদের বক্তব্য হচ্ছে, কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির শত বছরের ইতিহাসে এমন জঘন্য কান্ড দেখেনি।
এদিকে এমিকাস কিউরি কমিটি আইনজীবী সমিতির সভাপতি পদে বিজয়ী নাম এডভোকেট মো: ইসমাইল। এর আগে সহসভাপতি পদে এডভোকেট আবদুল মমিন, এডভোকেট বিল্লাল হোসেন ভুঁইয়া, সহ-এনরোলমেন্ট, মেম্বারস অব ম্যানেজিং কমিটির কোম্পানী সদস্য পদে এডভোকেট মোশারফ হোসেন পাখি, এডভোকেট লোকমান হোসেন ও এডভোকেট এনামুল আলম নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়েছেন, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এডভোকেট কাজী নাজমুস সা’দাত, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট কাইমুল হক রিংকু, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট শরীফুল ইসলামসহ এডভোকেট আ.হ.ম তাইফুর আলম, এডভোকেট আবদুল কাদের জিলানী, এডভোকেট জাহাঙ্গীর হায়দার, এডভোকেট ইসমাইল হোসেন রতন, এডভোকেট জসিম উদ্দিন শিশু, এডভাকেট মোস্তফা জামান জসিম, এডভোকেট মমিনুল ইসলাম মজুমদার মুকুল, এডভোকেট মাহবুবুর হক খন্দকার, , এডভোকেট মতিন মোল্লা, এডভোকেট মমিনুল হকসহ অন্যান্য আইনজীবীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here