কেবল বিদেশিদের জন্য জোন হচ্ছে কক্সবাজারে

0
339

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : কক্সবাজারের সাবরং এলাকায় বিদেশি পর্যটকদের জন্য বিশেষ অঞ্চল বা এক্সক্লুসিভ জোন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই জেলায় নাফ ট্যুরিজম কেন্দ্র স্থাপনের কার্যক্রমও এগিয়ে চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

কক্সবাজারের শেখ কামাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আওয়ামী লীগের জনসভায় এ কথা বলেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। সকালে জেলার ১৬টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন অথবা ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনে জেলাটিতে যান তিনি। এরপর বিকালে যোগ দেন জেলা আওয়ামী লীগের সমাবেশে। এ সময় তিনি স্থানীয় উন্নয়নে নানা উদ্যোগের বর্ণনা দেন।

পর্যটন বিভাগের সূত্র জানায় প্রধানমন্ত্রী যে বিশেষায়িত অঞ্চলের ঘোষণা দিচ্ছেন, সেটি হচ্ছে টেকনাফ উপজেলার সাবরং এ। এক হাজার ১৬৫ একর এলাকাজুড়ে প্রকল্পটি তত্ত্বাবধায়ন করছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। এর মধ্যে চাষযোগ্য জমির পরিমাণ ৯১ দশমিক ৬৮ একর, খাস ৯৩৭ দশমিক ৪৬ ও সৈকত এলাকার জমি পড়েছে ১৩৫ দশমিক ৭১ একর। ভূমি অধিগ্রহণ করে তা বেজাকে হস্তান্তরও করা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ ট্যুরিজম জোন (ইটিজেড) নামে এ পর্যটনকেন্দ্রে একাধিক আন্তর্জাতিক মানের হোটেল, কটেজ, বিচ ভিলা, ওয়াটার ভিলা, নাইটক্লাব, কার পার্কিং, সুইমিংপুল, কনভেনশন হল, বার, অডিটোরিয়াম, অ্যামিউজমেন্ট পার্ক, ক্রাফট মার্কেট, ল্যান্ডস্কেপিংসহ বিভিন্ন পর্যটন সুযোগ-সুবিধা থাকবে।

প্রধানমন্ত্রীর এই পরিকল্পনার বিষয়ে জানতে চাইলে এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ারের চেয়ারম্যান ও পর্যটন বিচিত্রার সম্পাদক মহিউদ্দিন হেলাল ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘কক্সবাজারে বিদেশিদের জন্য এক্সক্লুসিভ ট্যুরিস্ট জোন হলে পর্যটন নগরী হিসেবে বিদেশিদের কাছে এটা আরো আকর্ষণীয় হবে। কারণ, অনেক সময বিদেশিরা সমুদ্র সৈকতে গেলে বিড়ম্বনায় পড়ে। ট্যুরিস্ট জোন  হলে সেটা হবে না। তারা তাদের অ্যাকটিভিটিজ সেখানে করতে পারবে। এটা দীর্ঘদিনের দাবি ছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মতো অতীতে কোন প্রধানমন্ত্রী পর্যটনকে এত গুরুত্ব দেননি। আমাদের পর্যটন বিকাশে এ সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে।’

বিদেশিদের জন্য বিশেষায়িত অঞ্চল প্রতিষ্ঠা ছাড়াও পর্যটনের বিকাশে আরও উদ্যোগের বর্ণনা দেন প্রধানমন্ত্রী। কথা বলেন আজ উদ্বোধন করা কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক নিয়েও। তিনি বলেন, ‘আমরা শুরু করেছিলাম। মাঝখানে তা বন্ধ হয়ে যায়। এর ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর তা নির্মাণের কাজ আবার শুরু করি এবং আজ তা উদ্বোধন করি। এ সড়কটি কক্সবাজারের নতুন পর‌্যটন স্পট হিসাবে ট্যুরিস্টদের কাছে আকর্ষণ হবে। এর মাধ্যমে বাণিজ্যরও সুযোগ তৈরি হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় এসে দেশের উন্নয়ন না করে পিছনের দিকে নিয়ে গেছে। আওয়ামী লীগের অর্থনৈতিক নীতিমালা আছে। কীভাবে বাংলাদেশকে পরিচালনা করবো, সেই নীতিমালা আছে বলেই ক্ষমতায় এসে তাৎক্ষণিক কাজ শুরু করি। যার ফল দেশের জনগণ পাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজার পর্যটন এলাকা হওয়ায় এর উন্নয়নের জন্য উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারের রেললাইনের জন্য জমি অধিগ্রহণ শেষ হয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, চট্টগ্রাম থেকে ঘুমধুম সীমান্ত পর্যন্ত এই রেললাইন নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার সড়ক চার লাইনে করার পরিকল্পনার কথাও জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here