কেমন গেল ২০১৭ সাল

0
501

ড. আরএম দেবনাথ : ২০১৭ সালটি কেমন গেল? রাজনৈতিকভাবে কেমন গেল এ কথা সবাই কম-বেশি বোঝেন। কিন্তু অর্থনৈতিকভাবে? এভাবে বুঝতে হলে কিছু তথ্য লাগে। না হয়, বোঝা যায় অভিজ্ঞতা দিয়ে। অভিজ্ঞতা দিয়ে অর্থনীতি বুঝতে কোনো অসুবিধে নেই। বোঝা যায় জিনিসপত্রের দাম দিয়ে। এই দৃষ্টিকোণ থেকে ২০১৭ সালটি ছিল বড়ই অস্বস্তির। মূল্যস্ফীতির অনির্ভরযোগ্য সরকারি তথ্য বলেছে এক কথা। কিন্তু বাস্তবতা ছিল ভিন্ন। শীতকালের শুরুতে এবং এর আগে শাক-সবজির দাম ছিল ভীষণ ঊর্ধ্বমুখী। সবচেয়ে বাজে খবর ছিল চালের মূল্যের। বছরের একটা বড় সময় ধরে চালের দামে অস্থিরতা ছিল। মোটা চালের দাম বাড়ে অসম্ভব হারে। কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা হাজির করেন বন্যাকে। বছরে দুটো বন্যার শিকার হয় দেশ। প্রথমে অকাল বন্যা সিলেটে। এতে প্রচুর বোরো ফসল নষ্ট হয়। অতিরিক্ত বৃষ্টি এবং উজানি ঢলই ছিল এর কারণ। এতে সিলেটের বৃহত্তর অঞ্চল, বৃহত্তর ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনার হাজার হাজার কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই বন্যার ক্ষতি সামলাতে সামলাতেই ঘটে আরেক বন্যা। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় উত্তরবঙ্গের জেলাগুলো এবং দক্ষিণবঙ্গের কিছু জেলা। দুই বন্যায় ফসল ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে চালের দাম বাড়তে থাকে। সরকারের হাতে চালের স্টক নেই। সরকার তার স্বাভাবিক ‘ওপেন মার্কেট অপারেশন’ করতে অপারগ হয়। ফল হয় বিরূপ। সরকার বিদেশ থেকে চাল ও গম আমদানির ব্যবস্থা নেয়। কাস্টমস ডিউটি হ্রাস করা হয়। বাজারে চালের দাম ঊর্ধ্বমুখী থাকে তথাপি। সঙ্গে সঙ্গে শাক-সবজির দামও। সমস্ত সবজির দাম দিগুণ হয়। এর জের এখনো পুরোপুরি কাটেনি। সরকারি হিসাবেই মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির দিকে। এতে বলা বাহুল্য লক্ষ-কোটি মানুষের জীবনে ২০১৭ সালে নেমে আসে কষ্ট। ডিসেম্বর মাসে চালের দাম বাড়ে না। তবু বাড়ছে। বলা হচ্ছে বোরো ওঠার আগ পর্যন্ত তা বাড়তে থাকবে। অতএব ভবিতব্য কী তা ঈশ্বরই জানেন।

মূল্যস্ফীতির পর আরেকটি বোঝা পড়েছে অর্থনীতির ওপর। এটি নিতান্তই অযাচিত বোঝা। হঠাত্ করে প্রতিবেশী মিয়ানমার তার নিজের নাগরিক রোহিঙ্গাদের ঠেলে দেয় বাংলাদেশে। বাংলাদেশ এখন বহন করছে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর বোঝা। এতে রাজস্ব বাজেটে চাপ পড়েছে ২০১৭ সালে। বনজসম্পদ নষ্ট হচ্ছে। প্রাকৃতিক সম্পদ নষ্ট হচ্ছে। এই বোঝা কতদিন বাংলাদেশকে বহন করতে হবে কেউ জানে না। বন্যা এবং বন্যাজনিত ক্ষয়ক্ষতি, চালের মূল্যবৃদ্ধি, সবজির মূল্যবৃদ্ধি এবং রোহিঙ্গাজনিত রাজস্ব চাপ বাদে অর্থনীতির আরো অঙ্গ আছে যা আলোচনা করতে হয়। ২০১৭ সালে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ছিল ব্যাংকিং খাত। এই খাতের শ্রেণিবিন্যাসিত ঋণ, অব্যবস্থাপনা, দুর্নীতি, পুঁজি স্বল্পতা, প্রভিসন স্বল্পতা ছিল আলোচনার শীর্ষে। বছরের শেষের দিকে কয়েকটি নতুন ব্যাংক এবং তার মালিকদের কীর্তি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। দুই-তিনটি বেসরকারি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, চেয়ারম্যান, অডিট কমিটির চেয়ারম্যানসহ বেশ কিছু সংখ্যক কর্মকর্তাকে পদচ্যুত করা হয়েছে। সারাদেশে আলোচনার বিষয় ব্যাংক। বেসিক ব্যাংকের চেয়ারম্যান বাচ্চুর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে— এটাও ছিল ২০১৭ সালে বড় খবর। পুনর্গঠিত ঋণ (রিস্ট্রাকচারড লোন) এর মালিকরা আবার ব্যাংকের টাকা ফেরত দিতে ব্যর্থ হচ্ছেন, ঋণখেলাপিদের কেউ কেউ দেশ ত্যাগ করতে শুরু করেছেন এসব খবর ছিল ২০১৭ সাল জুড়ে। এদিকে হঠাত্ করে টাকার দাম পড়ে যায়, ডলারের দাম বেড়ে যায়। ৮০-৮১ টাকার পরিবর্তে ৮২-৮৩ টাকা দিয়ে কিনতে হয় এক ডলার। এটি ছিল ‘রেমিটেন্স প্রাপকদের’ জন্য সুখবর। তারা ডলারের দাম বেশি পাচ্ছিলেন। কিন্তু অর্থনীতি এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের জন্য ছিল খারাপ খবর। কারণ ডলারের মূল্য বৃদ্ধি মানে আমদানি খরচ বৃদ্ধি। আবার রয়েছে আমদানিকারক। তারা হবে ক্ষতিগ্রস্ত। এর মানেই হচ্ছে মূল্যবৃদ্ধি ঘটবে। কারণ আমরা আমদানিনির্ভর অর্থনীতি। এমনিতে আমদানি বেশি, রপ্তানি তুলনামূলকভাবে কম। এতে বাণিজ্য ঘাটতি বাড়ছে। ২০১৭ সালে বাণিজ্যঘাটতির প্রবণতা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে খবরে প্রকাশ। বছরের শেষের দিকে অর্থাত্ জুলাই-অক্টোবরে বাণিজ্য ঘাটতি বেড়ে হয়েছে ৫৮০ কোটি ডলার— যা একই সময়ে গেল বছরে ছিল মাত্র ২২৭ কোটি ডলার। এটা খারাপ খবর। এদিকে রপ্তানি আশানুরূপ বাড়ছে না। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রামাফিক রপ্তানি বাড়েনি। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে রপ্তানি বেড়েছে ৬ দশমিক ৮৬ শতাংশ হারে। ২০১৭ সালের নভেম্বরে রপ্তানি আগের তুলনায় কিছুটা হ্রাস পেয়েছে। এদিকে আমদানি রেকর্ড পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে যেখানে ৪৫৮৫ মিলিয়ন ডলারের আমদানি ঋণপত্র খোলা হয়েছিল, সেইস্থলে নভেম্বরে খোলা হয়েছে ১৬,৩৩৩ মিলিয়ন ডলারের। মূলধনী যন্ত্রপাতি, কাঁচামাল, মধ্যবর্তী পণ্যের ঋণপত্র যেমন এই বৃদ্ধির জন্য দায়ী, তেমনি বড় দায় একটি সরকারি ঋণপত্রের। এটি খুলেছে বাংলাদেশ এটমিক এনার্জি কমিশন রূপপুর আণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্রের জন্য। এই বিশাল পরিমাণ ঋণপত্রের কারণে বাণিজ্য ঘাটতি বেড়েছে এবং ‘ব্যালেন্স অব পেমেন্টে’ বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়েছে। বলা বাহুল্য ২০১৭ সালে রেকর্ড পরিমাণ চাল ও গমের আমদানি ঋণপত্রও খুলতে হয়েছে। কারণ চালের উত্পাদন ১৫-১৮ লাখ টন কম হতে পারে বলে সরকারি হিসাবে বলা হচ্ছে। এ ছাড়া গড়ে তুলতে হবে সরকারি স্টক যা এখন আশঙ্কাজনক পর্যায়ে।

এদিকে ব্যাংকিং খাতে আমানতের অভাব দেখা দিয়েছে ২০১৭ সালের শেষের দিকে। দীর্ঘদিন ব্যাংকে ঋণের কোনো চাহিদা ছিল না। কিন্তু ২০১৭ সালের মধ্যবর্তী সময় থেকে ঋণের চাহিদা বাড়তে থাকে। অবশ্যই তা বেসরকারি খাতের ঋণ। সরকারি ব্যাংকঋণ বাড়েনি। সরকার সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নিচ্ছে বেশি বেশি। বেসরকারি খাতের ঋণ বেড়ে যাওয়ায় আমানতে (ডিপোজিট) টান পড়েছে। ফলে আমানতের ওপর সুদের হার সামান্য বাড়তে শুরু করেছে। ব্যাংকাররা এতদিন আমানতকারীদের প্রতি অবহেলা করেছে। এখন তাদের মূল্য কিছুটা বেড়েছে। কারণ অস্বাভাবিক বেসরকারি ঋণ বৃদ্ধি। বছরের শুরুতে ঋণ বৃদ্ধির পরিমাণ ছিল মাত্র সাড়ে ১৫ শতাংশ। শেষের দিকে তা হয়েছে প্রায় ১৯ শতাংশ। হঠাত্ করে বেসরকারি ঋণ বৃদ্ধির কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক দুশ্চিন্তাগ্রস্ত। ব্যাংকঋণ বাড়ছে, ঋণপত্র খোলার পরিমাণ বাড়ছে, ডলারের মূল্য বাড়ছে। এসব দৃশ্যত ভালো খবর। কিন্তু এর মধ্যে অনেক সময় লুকিয়ে থাকে দুশ্চিন্তার খবর। টাকা পাচার হচ্ছে কি না। ঋণের টাকার অপব্যবহার হচ্ছে কিনা? টাকা শেয়ার বাজারে, জমিতে ডাইভার্ট হতে শুরু করেছে কিনা এসবই দুশ্চিন্তার খবর। এছাড়া ৬-৭ বছর আগের মতো হঠাত্ বেসরকারি ঋণ ১৯ শতাংশ হারে বাড়া শুরু করেছে কেন? নির্বাচন সামনে। আর একবছরও নেই। কালো টাকার মালিকরা কোনো কারসাজি করতে শুরু করেছে কিনা এটাই সন্দেহ। যাই হোক না কেন এ কারণে ডলারের ওপর চাপ বেড়েছে। ফলে ডলারের দাম বেড়েছে। বেড়েছে ভারতীয় রুপির দাম। ভারত থেকে প্রচুর মাল আমদানি হয়। চালও আমদানি হয়। চালের দাম ইতোমধ্যেই বেড়ে গেছে। এসব ২০১৭ সালে দুশ্চিন্তার কারণ ছিল। অর্থনীতির স্বাভাবিক গতির তুলনায় শেয়ার বাজারের গতি ছিল কিছুটা বেশি। সারা বছর অবশ্য বাজার ছিল উঠা-নামার মধ্যে। একধরনের অস্বস্তি এবং অস্থিতিশীলতার মধ্যে ২০১৭ সালে শেয়ার বাজার শেষ হয়েছে ভালো সূচক দিয়ে। সূচক বেড়েছে, বাজার মূলধন বেড়েছে এবং বেড়েছে বিদেশি বিনিয়োগ। ২০১৬ সালের গড় লেনদেন ৪৯৪ কোটি টাকার স্থলে ২০১৭ সালে গড় লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৮৭৪ কোটি টাকা। বাজার মূলধন আলোচ্য বছরে বেড়েছে প্রায় ২৪ শতাংশ। ২০১৭ সালে ৪টি কোম্পানির ‘রাইট শেয়ার’ অনুমোদন পেয়েছে। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ ২০১৭ সালে ছিল প্রায় সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকা। অথচ আগের বছর তা ছিল পৌনে ৯ হাজার কোটি টাকা মাত্র। এই হিসাবে পুঁজি বাজারের অবস্থা ভালোই ছিল। কিন্তু একধরনের ভীতিও ছিল বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। নির্বাচনকে সামনে রেখে ‘স্পেকুলেটররা’ কী করে বসে! শেয়ার বাজারের উত্থানে কি রেমিটেন্সের কোনো ভূমিকা আছে? মনে হয় না। কারণ রেমিটেন্স প্রাপকরা বড় আকারে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করে এমন কোনো খবর নেই। এছাড়া রেমিটেন্স দিনদিন হ্রাস পাচ্ছে। যদিও ২০১৭ সালের নভেম্বরে রেমিটেন্স অক্টোবর মাসের তুলনায় কিছুটা বেশি ছিল কিন্তু আগস্টের তুলনায় ছিল বেশ কম। বস্তুত রেমিটেন্সের বাজার খুবই অস্থিতিশীল। এসব প্রেক্ষাপটে দেখলে ২০১৭ সালটি ছিল বেশ অস্বস্তির। ২০১৭ সাল মানে দুই অর্থবছর আছে এখানে। শেষের ছয় মাস পড়েছে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে। এর অর্থ হচ্ছে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাস বড় অস্বস্তির ছয় মাস।

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির টাকা (এডিপি) সেভাবে খরচ হচ্ছে না। রাজস্বের অভাব আছে। এমতাবস্থায় অর্থবছরটি কীভাবে শেষ হবে তার চিন্তা সরকারকে করতে হবে। বিশেষ করে মূল্যস্ফীতির ওপর নজর রাখতে হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধি, ডলারের মূল্যবৃদ্ধি, রোহিঙ্গা চাপ ইত্যাদি ২০১৮ সালকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে। ২০১৯ সালের প্রথমদিকেই নির্বাচন। নির্বাচনী খরচ শুরু হবে ২০১৮ সালের মধ্যবর্তী সময় থেকেই। এমতাবস্থায় সাবধানতা অবলম্বন করা সরকারের পক্ষে জরুরি কাজ হবে বলে আমি মনে করি।

লেখক : অর্থনীতিবিদ। সাবেক শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here