কেশবপুরে পল্লী বিদ্যুতের লাইন নির্মাণে পরিবহন খরচের নামে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ

0
261

নিজস্ব প্রতিবেদক,কেশবপুর(যশোর) : যশোরের কেশবপুরে পল্লী বিদ্যুতের ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে পরিবহন খরচের নামে গ্রাহকদের কাছ থেকে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। কতিপয় ঠিকাদারের ম্যানেজার, ফোরম্যান, নিয়োজিত দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানরা গ্রামে গ্রামে যেয়ে দ্রুত লাইন নির্মাণ করে দেওয়ার কথা বলে বিদ্যুতের খুঁটি ও মালামালের (ক্যারিং কস্ট) পরিবহন খরচের জন্য হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। গ্রামের সহজ সরল সাধারণ মানুষ তাড়াতাড়ি বিদ্যুৎ পাওয়ার আশায় ওইসব নিয়োজিত ব্যক্তিদের খপ্পরে পড়ে মোটা অংকের টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর উপজেলা ২০১৭ সালের মধ্যে শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে বলে এলাকার সংসদ সদস্য জন প্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক গত বছর ঘোষণা দেন। সে লক্ষ্যে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নির্দেশনায় যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি- ২ কাজ শুরু করেন। গত বছরের সার্ভে অনুযায়ী শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় নিয়ে আসতে এ উপজেলার প্রায় ১৫ হাজার গ্রাহকের জন্য প্রায় ২শ’৭৫ কিলো মিটার সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করতে হবে। ২০১৬ সালের মধ্যে লাইনের ম্যাপ তৈরী ও প্রায় সব কাজের টেন্ডার প্রক্রিয়াও সম্পন্ন হয়েছে বলে জানা গেছে। এরপর কিছু কিছু এলাকার গ্রাহকরা ক্যারিং কস্ট দিয়ে খুটি বসানোর কাজ করে নিয়েছে। এ সময় বাড়ি বাড়ি চাঁদা তুলে শ্রমিকদের থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থাও করতে হয়েছে গ্রাহকদের। জানা গেছে ঠিকাদারের নিয়োজিত ইলেকট্রিশিয়ান, ফোরম্যান বা সংশ্লিষ্ট এলাকার নিয়োজিত দালাল গ্রামে গ্রামে যেয়ে গ্রাহকদের বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে বা আগে কাজ করে দেয়ার কথা বলে মিটার প্রতি ওয়ারিংসহ সাড়ে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা আদায় করছেন। প্রতি বাড়িতে যেখানে দুই পয়েন্টে ওয়ারিং করতে আড়াই হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা ব্যয় হওয়ার কথা। বাকি টাকা ক্যারিং কস্টের জন্য নেয়া হচ্ছে। এলাকার পক্ষ থেকে টাকা ছাড়া ঠিকাদার বা তার লোকদের সাথে যোগাযোগ করলে ওই কাজের ওয়ার্ক হয়নি অথবা মালামাল নেই বলে বলে জানিয়ে দিচ্ছে। অথচ ঠিকাদারের বি-ক্যাশে বা তার নিয়োজিত ব্যক্তি অথবা খুটি বহনের ট্রাক ড্রাইভারের কাছে ক্যারিং কস্ট দিলে খুটি দ্রুত এলাকায় পৌঁছে যাচ্ছে। এ ছাড়াও কোন কোন এলাকায় ম্যাপ অনুযায়ী খুটি না বসিয়ে এদিক ওদিক বসিয়ে জমির মালিকদের নিকট থেকে অর্থ আদায় করছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে সাগরদাঁড়িসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আরইবি চেয়ারম্যানের দপ্তরে মেইল পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। এসব বিষয় নিয়ে অভিযোগ বা জানাজানি করলে তাদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেয়া হচ্ছে। পল্লী বিদ্যুৎ, আরইবি ও ঠিকাদারদের একটি সূত্রে জানা গেছে, কতিপয় ঠিকাদারের দাপটে যশোর আরইবি অফিসের লোকজন অসহায় হয়ে রয়েছে। তাদের মধ্যে যশোরের একজন ঠিকাদার ও মনিরামপুরের একজন ঠিকাদার রয়েছে যারা পরষ্পর আতœীয়।
কেশবপুর পৌর এলাকায় বিদ্যুতায়নে ২০ কিলো মিটার লাইন নির্মাণের জন্য জন প্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক এমপি ২৩/০৪/২০১৬ তারিখে ডিও লেটার প্রদান করেন। ওই বছরের সেপ্টেম্বর মাসে পল্লী বিদ্যুৎ থেকে জানা যায় পৌর এলাকায় লাইন নির্মাণ কাজের টেন্ডার হয়ে গেছে। এরপর ৬ মাস পার হলেও লাইন নির্মাণ হয়নি। যারা ঠিকাদারের সাথে যোগাযোগ করে পিলার ভাড়া দিচ্ছে তাদের খুঁটি বসানো হচ্ছে। মধ্যকুল গ্রামের সোয়া ২ কি.মি. লাইনের কাজে ইউনিয়ন অংশের লোকজন যোগাযোগ করায় ৩ মাস আগে তাদের খুঁটি বসিয়েছে। অথচ ওই গ্রামের পৌর অংশের নাথপাড়া এলাকার লোকজন যোগাযোগ না করায় তাদের খুটি আসেনি বলে তিনি জানান।
বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড যশোর অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী বিশ্বনাথ শিকদার বলেন, ঠিকাদারদের ক্যারিং কস্ট নেওয়ার কোন নিয়ম নেই। ঠিকাদাররা আরইবি ছাড়া কারো নিকট থেকে কোন বিল নিতে পারবে না। যদি কেউ নিয়ে থাকে তদন্ত পূর্বক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here