খুলনা বিভাগের পর এবার সারাদেশে চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট

0
380

নিজস্ব প্রতিবেদক : এক বাসচালকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশের প্রতিবাদে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকে সারাদেশে চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট। মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে শুরু হয় এ ধর্মঘট। ধর্মঘটের কারণে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে জনজীবনে নেমে এসেছে নানা দুর্ভোগ।
সোমবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর মতিঝিলে অনুষ্ঠিত সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের এক বৈঠকে ধর্মঘটের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের খুলনা বিভাগীয় সমন্বয়ক আব্দুর রহিম বক্স দুদু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
গত রবিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) থেকে খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় অনির্দষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট পালন করে আসছে খুলনা বিভাগীয় সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন। তবে ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিন সোমবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) খুলনা সার্কিট হাউস মিলনায়তনে খুলনার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. ফারুক হোসেনের সভাপতিত্বে পরিবহন শ্রমিকদের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শ্রমিকরা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বলে বৈঠক শেষে জানানো হয়। খুলনার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার ফারুক হোসেন ও খুলনা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বিপ্লব সোমাবর সন্ধ্যা থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহারে যৌথ ঘোষণা দেন।
কিন্তু সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের পক্ষ থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়নি বলে জানানো হয়। খুলনা বিভাগীয় সমন্বয়ক আব্দুর রহিম বক্স দুদু দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছিলন, ধর্মঘট প্রত্যাহারে অনুষ্ঠিত বৈঠকে শ্রমিক ফেডারেশনের কোন প্রতিনিধি অংশ নেয়নি। ওই বৈঠকে ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিলেও সেটি কার্যকর হবে না।
এদিকে শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকা পরিবহন ধর্মঘটের প্রভাবে সারাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। রাজধানীর সঙ্গে সারাদেশের সড়ক পথে যোগাযোগ প্রায় বন্ধ রয়েছে।
মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজধানীর সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে, দূরপাল্লার কোন বাস টার্মিনাল থেকে ছাড়া হচ্ছে না। কাউন্টারের সামনে যাত্রীরা বসে রয়েছেন। যে সব বাস অগ্রিম টিকিট বিক্রি করেছিল সেগুলো ফেরত নেওয়া হচ্ছে।
সিলেটগামী অগ্রদূত বাস কাউন্টার থেকে দেওয়া আগাম টিকিট ফেরত নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্টারে দায়িত্বরত ব্যক্তি জানালেন, সড়ক দুর্ঘটনায় মিশুক-মনির নিহতের ঘটনায় বাসচালককে দেওয়া শাস্তির প্রতিবাদে ধর্মঘট চলছে। সে কারণে আমরা টিকির ফেরত নিচ্ছি। কতদিন এ ধর্মঘট চলবে জানতে চাইলে তিনি বলেন,অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট চলছে। তবে তিনদিনের আগে শেষ হবে বলে মনে হয় না।
টার্মিনালের অধিকাংশ বাস কাউন্টার খোলা থাকলেও সেগুলো থেকে কোন টিকিট বিক্রি হচ্ছে না। যারা টার্মিনালে এসেছেন তাদের কেউই জানতেন না যে পরিবহন ধর্মঘট চলছে। অনেকেরই ধারণা ছিল, বামদলের ডাকা হরতালের কারণে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বাস পরিবহন শ্রমিকরা জানিয়েছেন, বাসচালককে দেওয়া কারাদণ্ডাদেশের প্রতিবাদে তাদের ধর্মঘট চলছে।
সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে শুধু দূরপাল্লার বাসই নয়, শহর এলাকার বাস চলাচলেও শ্রমিকরা বাধা দিচ্ছে। বামদলগুলোর ডাকা হরতালের কারণে বাধা দেওয়া হচ্ছে না বলে তারা জানান।
এদিকে শহর এলাকার বাস চলাচলে বাধা দেওয়ার কারণে যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে নানা দুর্ভোগে। কর্মস্থলে যোগদানে অনেকেই পায়ে হেঁটে রওয়ানা হয়েছেন।
এদিকে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে রাজধানীগামী বাস ঢাকা শহরে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না পরিবহন শ্রমিকরা। রাজধানীর রায়ের বাগ এলাকায় সড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ করে রেখেছে তারা। ফলে রায়ের বাগ থেকে সাইনবোর্ড পর্যন্ত যানবাহনের বিশাল জট তৈরি হয়েছে।
উল্লেখ্য, ছয় বছর আগে ২০১১ সালের ১৩ অগাস্ট মানিকগঞ্জে বাসের ধাক্কায় মাইক্রোবাস আরোহী চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন মারা যান।

সেই দুর্ঘটনার প্রেক্ষিতে দায়ের করা মামলায় ২২ ফেব্রুয়ারি মানিকগঞ্জের আদালত আসামি বাসচালক জামির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। রায়ের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর প্রতিবাদে পরিবহন শ্রমিকরা ধর্মঘটে নামেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here