চাকুরী জীবনের শেষ বিদায় অনুষ্ঠানে উপাচার্য আব্দুস সাত্তার

0
385

সাধারণ শিক্ষক থেকে অসাধারণ শিক্ষক হওয়ার প্রতিযোগীতায় লিপ্ত হওয়ার আহবান
বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আব্দুস সাত্তার শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, নিজেদের মধ্যে সব বিভেদ ভুলে সাধারণ শিক্ষক থেকে আপনারা অসাধারণ শিক্ষক হওয়ার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হন। ছাত্ররা হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ ভোমরা। তাদের জাতীয় ও মানবতার উন্নয়নের জন্য গড়ে তুলুন।
বুধবার দুপুরে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেকিম ভবনের গ্যালারিতে ‘বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’ আয়োজিত বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ড. আব্দুর সাত্তার এসব কথা বলেন।
অধ্যাপক ড. আব্দুস সাত্তার ২০০৮ সালের ৭ এপ্রিল যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে যোগ দেন। এই হিসেবে গতকালই তাঁর শেষ কর্ম দিবস ছিল। বিগত আট বছরের উপাচার্য থাকাকালীন নানা অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন আব্দুস সাত্তার। শিক্ষকদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আমাকে নিয়ে কী সমালোচনা হয়েছে কি হয়নি, সেটা আমি মনে রাখিনি। শেষ দিন পর্যন্ত যে আমার কথা শুনছেন এটাই বড় কথা। অনেক বিদায়ী ভিসি তো এটাও পায় না। আমার সৌভাগ্য এটা আমি পেয়েছি। ড. আব্দুস সাত্তার তাঁর বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে দীর্ঘদিনের নানা অভিজ্ঞতার কথা স্মরণ করেন। তিনি বলেন, শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছি যোগ্যতার ভিত্তিতে। কোনো দয়া-দাক্ষিণ্য দেখিয়ে কাউকে নেওয়া হয়নি। সুতরাং আপনারা এই বিশ্ববিদ্যালয়কে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিম-লে পরিচিত করে তুলবেন, এটাই আমার আশা। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষক থাকে কিন্তু আদর্শ হয় মাত্র কয়েকজন। জাতি তাদের বেশি চেনে। আমি আশা করি, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষক শিক্ষার্থীদের আদর্শ হয়ে উঠুক। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান জাহিদের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন প্রকৌশল অনুষদের ডীন ড. বিপ্লব কুমার বিশ্বাস, জীব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডীন ড. ইকবাল কবীর জাহিদ, ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডীন ড. সাইবুর রহমান মোল্যা, বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল আমিন, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান অনুষদের ডীন ড. মো. নাসিম রেজা, ড. ওয়াজেদ আলী মিয়া অ্যাডভ্যান্স স্টাডিস ও রিচার্স সেলের পরিচালক ড. এম. আলাউদ্দিন, শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এস. ভৌমিক, লাইব্রেরীয়ান জনাব বি. কে বালা, পিএমই বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. তোফায়েল আহম্মেদ, এফএমবি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক জনাব সুব্রত মন্ডল, একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব আব্দুস সামাদ প্রমুখ। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদ ও বিভাগের শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে আজকে উপাচার্য আব্দুস সাত্তারের শেষ কর্ম দিবস হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকম-লী ছাড়াও শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও তাঁকে ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এরই অংশ হিসেবে আজ বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের নীচতলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরা বিদায়ী উপাচার্য ড. আব্দুস সাত্তারকে ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। পরে বিকেল ৩ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে মাননীয় উপাচার্যকে ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। বিকেল ৫ টায় সর্বশেষ সাধারণ শিক্ষার্থীদের আয়োজনে ড. মো. আব্দুস সাত্তারকে বিদায় জানানো হয়। উপাচার্যের হাতে ক্রেস্ট তুলে দিয়ে শুভেচ্ছা জানান বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব এস. এম. শামীম হাসান এবং বিশ্ববিদ্যালয় শাখার হল ও বিভাগের নেতৃবৃন্দ। এ সময় ১৯টি বিভাগের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সর্বশেষ উপাচার্য আব্দুস সাত্তার বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার, আনসার সেড ও শিশুপার্কের উদ্ভবন করেন। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে তাঁর শেষ কর্ম দিবসের সমাপ্ত করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here