চোখে অপারেশন শেষে পর্যবেক্ষণে সিদ্দিকুর

0
265

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারতের চেন্নাইয়ে তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের চোখের অপারেশন শেষ হয়েছে। তবে তা ফলপ্রসু হয়েছে কি না, এই তরুণ আবার চোখে দেখতে পারবেন কি না, সেই বিষয়টি এখনও নিশ্চিত নয়।

সিদ্দিকুরের বন্ধু ফরিদ উদ্দিন জানিয়েছেন, পুলিশের কাঁদানে গ্যাসের শেলে চোখে আঘাত পাওয়া এই তরুণ এখন চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছেন।

চেন্নাইয়ের শংকর নেত্রালয়ে সিদ্দিকুরে চোখের অপারেশন শুরু হয় শুক্রবার দুপুরের দিকে। সন্ধ্যার পরে অপারেশন শেষে তাকে পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে রাখা হয়।

গত ২৮ জুলাই চোখের উন্নত চিকিৎসার জন্য চেন্নাই যান সিদ্দিকুর। তার সঙ্গে গেছেন তার ভাই নায়েব আলী ও চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ইফতেখার মুনির। আর ফরিদ উদ্দিন তার চিকিৎসার সব খোঁজ খবর রাখছেন এবং গণমাধ্যমকে তা জানিয়ে দিচ্ছেন।

ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘সন্ধ্যার কিছু আগে অপারেশনের ওটি থেকে তাকে (সিদ্দিকুর) বের করা হয়েছে। তাকে পোস্ট অপারেটিভে রেখে পর্যবেক্ষণ করছেন সেখানকার চিকিৎসক।’

চিকিৎসকেরা সিদ্দিকুরের চোখ ভালো হওয়ার ব্যাপারে কতটা আশবাদী- এমন প্রশ্নের জবাবে ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘এ বিষয়ে কিছু বলতে পারছি না আমি। তাড়াহুড়ো করে কথা শেষ হয়েছে।’

গত ২০ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাতটি সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার তারিখ ঘোষণাসহ বিভিন্ন দাবিতে শাহবাগ এলাকায় অবস্থান নেন। এক পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে সামনে এগোতে চাইলে পুলিশ তাদের বাধা দেয় এবং তাদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিপেটার পাশাপাশি কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে।

কাঁদানে গ্যাসের শেল গিয়ে আঘাত হানে সিদ্দিকুরের দুই চোখে। এই ঘটনার পর সিদ্দিকুর এক চোখের দৃষ্টি হারান পুরোপুরি। অন্য চোখেও ঝাপসা দেখতে থাকেন তিনি।

আঘাত লাগার দুই দিন পর চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে সিদ্দিকুরের রোখে অস্ত্রোপচার করা হয়। কিন্তু সা ফলপ্রসূ হয়নি। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতের চেন্নাই পাঠানো হয়।

কিন্তু সেখানকার চিকিৎসকরা সিদ্দিকুরকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কোনো সুখবর দিতে পারেননি। তবু সিদ্দিকুর অপারেশন করতে রাজি হয়েছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here