জমিজমা সংক্রান্তে যশোরে সাংবাদিকের নামে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দায়ের

0
263

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোরের এক সংবাদিকের বিরুদ্ধে জমিজমা সংক্রান্ত জের ধরে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেছেন যশোরের মনিরামপুর উপজেলার কপালিয়া গ্রামের মৃত. ওয়াজেদ আলীর ছেলে আসাদুল ইসলাম। মামলাটি কেবল ষড়যন্ত্রমূলক না সম্পূর্ণ প্রতারণামূলক আদালত বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য মনিরামপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে নির্দেশ দিয়েছেন।

মনিরামপুর উপজেলার কপালিয়া গ্রামের মৃত. মহাতাপ গাজীর ছেলে ও দৈনিক সমাজের কাগজের সিনিয়র রিপোর্টার গোলাম মোস্তফা মুন্না জানান, তার পিতা ১৯৭৫ সালের ১২ এপ্রিল একই গ্রামের মৃত ওয়াজেদ আলীর কাছ থেকে ১৩শত জমি ক্রয় করেন। যার দলিল নং ৩৪৭৩। কেনা এ জমি নিয়ে মৃত. ওয়াজেদ আলীর উত্তরাধিকারীদের সাথে তাদের বিরোধ বাধে। এ ঘটনায় তিনি স্থানীয় ভাবে অর্ধশতবার শালিসী বৈঠককে সিদ্ধান্ত হলেও ওয়াজেদ গং তা মানেনি।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল মুন্না তাদের কেনা ওই জমি ঝামেলা মুক্ত রাখতে যশোরের বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪৪ ধারা জারির আবেদন করেন। যার নং ৩৯৭/১৬। আদালত মনিরামপুর থানার অফিসার ইন চার্জকে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেন। মনিরামপুর থানা পুলিশ তদন্ত শেষে তার পক্ষে রিপোর্ট প্রদান করেন। বিবাদী মৃত. ওয়াজেদের ছেলে মুজিবর রহমান, রেজাউল মোল্যা, বাবলু মোল্যা, আছাদুল ইসলাম এবং জসিম মোল্যা, কাজল মোল্যা আদালতে নিয়মিত হাজিরা দিয়ে যাচ্ছেন। এর মধ্যে ওয়াজেদ গংরা আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ওই জমি দখলের চেষ্টা করলে ১৪৫ এবং ১৮৮ ধারার আরও দুটি মামলার সৃষ্টি হয়। এর মধ্যেওই জমি থেকে মুজিবর, রেজাউল, বাবলু, আসাদুল পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক রাতের আধারে সুপারি গাছ কেটে নেয়। গাছ কাটার ঘটনায় গোলাম মোস্তফা মুন্না যশোর আদালতে ফৌজদারি ধারায় অভিযোগ করেন। পুলিশ ওই ঘটনায় রেজাউল ইসলামকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

আদালত সূত্রে আরও জানা গেছে, গত ১৭ মে মৃত. ওয়াজেদ আলীর ছেলে আসাদুল ইসলাম সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ও আমলী আদালতে গোলাম মোস্তফা মুন্নার বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করেছেন। যার নম্বর ২৫৯/১৭। মামলায় স্বাক্ষী হিসেবে তার আপন তিন ভাই মুজিবর, রেজাউল এবং বাবলু নাম রয়েছে। মামলায় আসাদুল ইসলাম বলেছেন, গোলাম মোস্তফা মুন্না ২০১৬ সালে ১০ এপ্রিল যে ৩৯৭/১৬ মামলা করেছেন এবং মামলায় যে দলিল দাখিল করেছেন সেটি জাল। সম্পূর্ণ প্রতারণা এবং হয়রানি করার জন্য জাল দলিল সৃষ্টি করেছেন। আদালত বিষয়টি মনিরামপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। সহকারী কমিশনার লিংকন বিশ্বাস বিবাদী গোলাম মোস্তফা মুন্নাকে আগামী ২০জুন তার অফিসে অভিযোগের শুনানীতে অংশ নেয়ার কথা বলেছেন। যার প্রসেস নং ৮৭২ তারিখ ৬.৬.১৭।

গোলাম মোস্তফা মুন্নার দায়েরকৃত মামলার আইনজীবি আহাদ আলী লস্কার যশোর রেজিষ্ট্রি অফিসের রেকর্ড রুমের সূত্রের উল্লেখ করে জানান, ‘আমার মক্কেলের ৩৯৭/১৬ নম্বর মামলার যে দলিল দাখিল করেছেন তার নং ৩৪৭৩। দলিলের তারিখ ১২.৪.১৯৭৫। জমির খতিয়ান নং ৩২৬, আর এস/ডিপি খতিয়ান নং ১১৬৩, এসএ দাগ-১৩৪৩, আরএস ২৭৫২,জমির পরিমাণ ১৩শতক এবং মৌজা কপালিয়া। এ জমির মাঠ পর্চা, প্রিন্ট পর্চা এবং হালসাল পর্যন্ত খাজনা পরিশোধ করা হয়েছে। যশোর রেজিষ্ট্রি অফিসের রেকর্ড রুমে সংরক্ষিত ভলিউম বইয়ের নম্বর ৪৪, পৃষ্ঠা নং ৩৮ থেকে ৪০ আর দলিলটি রেজিষ্ট্রি হয়েছে যশোরের নওয়াপাড়া রেজিষ্ট্রি অফিসে। দলিলের জমির গ্রহিতা মুন্নার পিতা মহাতাপ উদ্দিন, পিতা-হাতেম গাজী, এবং দাতা হলেন ওয়াজেদ আলী মোল্যা, পিতা জটু মোল্যা উভয় গ্রাম-কপালিয়া। আর বিবাদী আসাদুল ইসলাম প্রতারণার মামলায় যে দলিলের ফটোকপি দাখিল করেছেন তার নম্বর ৩৪৭৩। দলিলের তারিখ ১৩.০৩.১৯৭৫। রেজিষ্ট্রি অফিসের রেকর্ড রুম থেকে জানা গেছে, আসাদের দাখিলকৃত দলিলটি রেজিষ্ট্রি হয়েছে যশোরের মনিরামপুর রেজিষ্ট্রি অফিসে। দলিলের জমিটি মনিরামপুরের হাসাদহ মৌজার, যার দাগ নং ৪২৯ ও ৪২৮, জমির পরিমাণ ১৫ শতক জমির গ্রহিতা জমির দফাদার এবং দাতা লতিব দফাদার, উভয় সাং হাসাদহ। দলিল দুটি একই সালে একই নম্বর হলেও রেজিষ্ট্রি হয়েছে পৃথক দুটি রেজিষ্ট্রি অফিসে এবং জমির মৌজা, দাগ নং, খতিয়ান নং সম্পূর্ণ আলাদা। ফলে আমার মক্কেলের দাখিলকৃত দলিলটি সঠিক একথা জানিয়েছেন যশোর রেজিষ্ট্রি অফিসের রেকর্ড রুমের কর্মকর্তারা। এ সংক্রান্ত আদালতে মামলা বিচারাধীন থাকলেও নতুন করে আরও একটি মামলা করেছেন আসাদুল ইসলাম। এলাকাবাসী জানান, আসাদের পিতা ওয়াজেদ আলীর বিরুদ্ধে একই জমি নাম ঠিকানা গোপন করে একাধিক ব্যক্তির নিকট বিক্রি করেছেন। তাছাড়া জমি না থাকার পরও প্রতারণার মাধ্যমে জমি বিক্রি করেছেন। ১৯৯২ সালে জরিপের সময় যা সকলে জানতে পেরেছেন।

আদালতে মিথ্যা প্রতারণার মামলার ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আনিসুর রহমান জানান, উদ্দেশ্যে প্রণোদিত হয়ে কারও বিরুদ্ধে মামলা করা ঠিক না। এ ব্যাপারে আসাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমাদের নামে মামলা করেছে তাই আমি মামলা করেছে। জাল দলিল কি তা বলতে পারবো না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here