ঝিনাইদহে কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত অধ্যাক্ষ কতৃক ব্যাপক জালীয়াতি ও অনিয়মে প্রতিবছরে সরকারের লোকশান লক্ষ লক্ষ টাকা

0
269

স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহের কৃষি প্রশিক্ষণ ইনিষ্টিটিউটে ব্যাপক দুর্নীতিবাজ ও অনিয়ম করা শিক্ষকের খোঁজ পাওয়া গেছে। নাম তার আব্দুল কাদের। অত্র প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাদক ও নারী ব্যবসা, প্রতিষ্ঠানের সম্পদ আত্মগোপন, শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে অধিক টাকা আদায়, প্রতিষ্ঠানের গাড়ি নিজ কাজে ব্যবহার, প্রকল্পের টাকা আত্মসাত সহ বিভিন্ন প্রকার দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। যা আপনারা ধারা বাহিকের মাধ্যমে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

আরো জানা গেছে, কৃষি প্রশিক্ষণ ইউনিটিউটের ক্যাম্পাসে রাতে গড়ে ওঠে নারী ও মাদকের আড্ডা খানা অধ্যক্ষের সমর্থন থাকার কারনে সাধারন ছাত্ররা কিছু বলতে সাহস পায় না। কারন এর সাথে জড়িত আছে কিছু ছাত্রনেতা। যারা ভাল আছে তারাও আস্তে আস্তে ঝুকে পড়ছে মাদকের দিকে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মা বাবা সন্তানের পাঠায় প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে আদর্শ চরিত্র গঠনের মাধ্যম দিয়ে একজন সুনাগরিক হিসাবে দেশ ও দশের কাজে মনোনিবেশ করবে। সেখানে যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই প্রকৃতির অসামাজিক কার্যকালাপ সংগঠিত হয় তাহলে ঐ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা কি ভাবে সুনাগরিক হয়ে গড়ে উঠবে? প্রশ্ন এখন জেলা জুড়ে আপমর জন সাধারনের।

এই প্রতিষ্ঠানের ক্যম্পাসে অনেক গুলো গাছ ছিল। অধ্যক্ষ বিনা টেন্ডারে কয়েক জন ছাত্র নেতার সহযোগিতায় এই গাছ গুলি কেটে তার টাকা নিজ পকেটে পুরেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শুধু গাছের টাকায় নই শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক কাজের সুত্র ধরে উৎপাদিত কৃষি দ্রব্য বিক্রয় করে তা কলেজ ফান্ডে জমা দেন না। তাছাড়া ছাত্রদের মাধ্যমে ছাত্রাবাসে থাকা শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে প্রতিমাসে জোর করে প্রায় ২১ শত করে টাকা আদায় করে। প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, ছাত্রাবাসে তাদের প্রতিমাসে খরচ হয় মাত্র ১১০০-১২০০ টাকা। সেখানে তাদের নিকট থেকে প্রতিমাসে জোর করে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর নিকট থেকে ৮/৯শত টাকা বেশি আদায় করা হয়।

এ নিয়ে প্রতিবাদ করায় সাধারন ছাত্রদের অন্য ছাত্রদের দিয়ে মেরে হাসপাতালেও পাঠানোর নজির আছে। বিশ্বস্ত সুত্রে জানা গেছে, তার এই সমস্ত দুর্নীতির সাথে কিছু কথিত নেতা মার্কা ছাত্র জড়িত। যারা জড়িত ছাত্রাবাসে তাদের কক্ষে দিনের বেলায় বহিরাগতদের সাথে ছাত্রীদের অবাধ যাতায়াত লক্ষ করা যায়। ভঁয়ে সাধারন শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না। যদি কেউ প্রতিবাদ করে তাহলে তাদের উপর অত্যাচার সহ পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি দেওয়া হয়। শিক্ষার্থীরা এখন ব্যাপক আতঙ্ক ও উদ্বিগ্ন অবস্থায় কৃষি প্রশিক্ষণ ইনিষ্টিটিউটে লেখাপড়া করছে। অভিভাবক মহল ও এলাকাবাসী এ বিষয়ে কতৃ পক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here