ট্রেনের ছাদে উঠলেও গুনতে হচ্ছে ১১০ টাকা

0
230
ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনের ছাদে বাড়ি যাচ্ছেন তাঁরা। সংগৃহীত ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদক: কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনের ছাদে চড়ে বাড়ি যাচ্ছেন ইয়াসিন, আল আমিন, তানভীর ও সাদ্দাম। রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনে দেখা হলো তাঁদের সঙ্গে। বললেন, ১১০ টাকায় টিকিট কেটেছেন। ভেতরে জায়গা নেই। তাই ছাদে উঠেছেন।

ওদের ভাষ্য, ছাদের ওঠার সময় রেলওয়ের কেউ তাঁদের বাধা দেননি। ছাদে উঠতে ভয় লাগে না?—জানতে চাইলে তাঁরা বলেন, ঈদে বাড়ি যেতে হবে। ছাদে হোক আর যেখানে যেভাবেই হোক, তাঁরা বাড়ি যাবেন।

শুধু কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনই নয়, সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া প্রায় সব ট্রেনের ছাদই ছিল যাত্রীতে ভরা।

কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী জানান, ট্রেনের ভেতরে খালি জায়গা থাকলেও অনেকে ছাদে চড়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি যাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, আইন অনুযায়ী কোনো যাত্রী ট্রেনের ছাদে উঠতে পারেন না। তাঁরা যাত্রীদের যথাসাধ্য বুঝিয়েছেন। তাঁরা সচেতন না হলে কিছু করার থাকে না।

রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে আজ শনিবার বেলা সোয়া ১১টা পর্যন্ত রংপুর এক্সপ্রেস ছাড়া ২১টি ট্রেন সময়মতো ছেড়ে গেছে। তবে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রীরা। সকাল নয়টার দিকে ট্রেনটি ছাড়ার কথা। কিন্তু ১১টা পর্যন্ত ট্রেনের দেখা নেই।

স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বলছেন, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ট্রেন ছাড়তে দেরি হচ্ছে। বেলা একটার দিকে ট্রেনটি ছেড়ে যেতে পারে।

রংপুর যাবেন আজহারুল ইসলাম। পরিবার নিয়ে সকাল সাতটার দিকে স্টেশনে এসেছেন। তিনি বললেন, চার-পাঁচ ঘণ্টা ধরে বসে আছেন। বেলা একটার সময় ট্রেন ছাড়লেও এমন সময় পৌঁছাবে যে তিনি বাড়ি যেতে পারবেন না। তাঁর বাড়ি রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার আদমবিচি ইউনিয়নে।

২ ও ৩ নম্বর প্ল্যাটফর্মে রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের অপেক্ষায় শত শত যাত্রী বসে আছেন। আতিক নামের এক যাত্রী বলেন, ‘আমরা রংপুরের যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে আছি।’

রেলওয়ে সূত্র বলছে, আজ সারা দিন ঢাকা থেকে ৬৯টি ট্রেন ছেড়ে যাবে। ঈদ উপলক্ষে তিনটি বিশেষ ট্রেন সার্ভিস চলছে। পার্বতীপুর, রাজশাহী ও দেওয়ানগঞ্জ এক্সপ্রেস। এর মধ্যে দেওয়ানগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনটি ছেড়ে গেছে। বিকেলে যাবে পার্বতীপুর। রাতে রাজশাহী এক্সপ্রেস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here