তারা শহীদ দিবসের মর্যাদা নষ্ট করে দিয়ে এলো: প্রধানমন্ত্রী

0
365

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ফাইল ফটো)বাংলা ভাষার প্রতি সম্মান না থাকায় একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নেতাকর্মীদের নিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের মূল বেদিতে উঠে পড়েছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। খালেদা জিয়া বেতাল হয়ে মধ্যরাতে এমনটি করেছেন বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘তারা শহীদ দিবসের মর্যাদা নষ্ট করে দিয়ে এলো।’

বুধবার বিকেলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শহীদ মিনার একটি পবিত্র জায়গা। তারা শহীদ দিবসের মর্যাদা নষ্ট করে দিয়ে এলো। শহীদ মিনারের যে জায়গায় মহামান্য রাষ্ট্রপতি ফুল দিয়েছেন, আমি ফুল দিয়েছি, স্পিকার ফুল দিয়েছেন, অসংখ্য নেতারা ফুল দিয়েছেন, বিএনপি নেত্রী তার দলবল নিয়ে ঠিক ওই জায়গাটায় ওঠে দাঁড়িয়েছেন। যেখানে সবাই ফুল দেবে সেই বেদিতে যদি উঠে যান, তাহলে তিনি ফুলটা দিলেন কোথায়? নিজের পায়ে দিয়ে এলেন কিনা সেটাই প্রশ্ন? উনি না হয় মধ্যরাতে বেতাল হয়ে গেছেন। কিন্তু উনার দলের লোকেরা দেখবেন না। দলের নেতাকর্মীরা যারা ছিল, তারা কি তাকে ঠিক জায়গায় নিয়ে যাবেন না, নাকি তারাও মধ্যরাতে বেতালা হয়ে যান, সেটা আমি বুঝি না। ‘
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা মানুষ পুড়িয়ে খুন করতে পারেন, তাদের কাছে কী সংস্কৃতির আশা করবেন? এরা আমাদের সংস্কৃতি, ভাষা ও সাহিত্যের মর্যাদা বুঝবেন কীভাবে। তাছাড়া এদের মনে পেয়ারে পাকিস্তান। এজন্য শহীদ মিনারের মূল বেদিতে উঠে পড়েছিলেন। এরা জানেন না কোথায় ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে হয়। ’

মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের সংখ্যা নিয়ে খালেদা জিয়ার বক্তব্যের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা প্রতিষ্ঠিত সত্য যে ৩০ লাখ শহীদ হয়েছেন। আমার মা বোনদের হানাদার বাহিনীরা ধরে ধরে নিয়ে গেছে। আমাদের যে বাড়িতে আটকে রেখেছিল, ঠিক তার সামনের বাড়িতে মেয়েদের ধরে এনে নির্যাতন করেছে। মানুষকে ধরে এনে গাছের সঙ্গে বেঁধে টর্চার করত। আমরা চিৎকার শুনতাম। আর তারপর যদি কেউ বলেন, ৩০ লাখ মানুষ শহীদ হয়নি। পাকিস্তানিরা এটা বলতে পারে। কিন্তু এদেশের একজন প্রতিষ্ঠিত নেতা, দুইবারের প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তানিদের সুরে সুর মিলিয়ে বলেন ৩০ লাখ লোক মারা যায়নি। পাকিস্তানের প্রতি কতো দরদ, কতো প্রেম সেটা আপনারা দেখেন।’
জাতির ভাষা সংগ্রামের ইতিহাস জানতে নতুন প্রজন্মকে তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ইতিহাস ও অতীত জানতে হবে। যে ছেলে ইতিহাস-অতীত জানতে পারে না, সে সত্যিকার অর্থে বাঙালি হতে পারে না।’
ভাষা আন্দোলন থেকে স্বাধীনতা সংগ্রাম, বাঙালির অধিকার আদায়ের প্রতিটি সংগ্রামে আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব দিয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাঙালি জাতির যে অর্জন, তার প্রত্যেকটির পেছনে আওয়ামী লীগের অবদান রয়েছে। ’
বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার পর স্বাধীন বাংলাদেশকে ধ্বংস, আর ইতিহাস বিকৃত করার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতাকে হত্যার পর আমাদের ইতিহাসকে বিকৃতি করা হয়েছে। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে প্রতিটি আন্দোলনে তিনি (জাতির পিতা) নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। তিনি যে সূত্রপাত ঘটিয়েছিলেন-ইতিহাস থেকে তা মুছে ফেলা হয়েছে। উনি (বঙ্গবন্ধু) তো ভাষা আন্দোলনের সময় কারাগারে ছিলেন। ‘উনি কিসের নেতৃত্ব দিলেন’- একথাও আমাদের শুনতে হয়েছে। যারা পাকি প্রেমিক তারাতো ইতিহাস বিকৃত করবেই। আমাদের মধ্যেও অনেকে ইতিহাস বিকৃতি করেছে।’

আওয়ামী লীগ আয়োজিত এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। এতে আরও বক্তব্য রাখেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কবি নির্মলেন্দু গুণ, সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, রামেন্দু মজুমদার, অধ্যাপক মেরিনা জাহান প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here