তালার বারাত-মির্জাপুর বিল জোর দখল নিতে দূর্বৃত্তদের অপতৎপরতা : এলাকার মানুষ আতংকিত

0
299

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা (সাতক্ষীরা) : সাতক্ষীরার তালা উপজেলা বারাত-মির্জাপুর বিলের মাছচাষী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. মনজুর রহমান ও তার ঘেরের সাথে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে নানারুপ অপপ্রচার চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহৎ ওই বিলটি জলাবদ্ধতার কারনে বছরের পর বছর ধরে চাষাবাদ বন্ধ থাকায় জমির মালিক ও কৃষকরা চাষাবাদ থেকে বঞ্চিত হচ্ছিল।

এই বিল নিয়ে দূর্বত্ত ও নাশকতা মামলার আসামী কেশবপুরের মোস্তাক গং প্রশাসনের সহযোগীতা নিয়ে ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার চালানোর ফলে ঘের ব্যবসায়ী মুনজুর রহমান ও চাষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হবে বলে গ্রামের লোকজন আশংকা করেছে।

উক্ত বিলের জমি মালিক ও কাজীডাঙ্গা গ্রামের মো. গফ্ফার মোড়ল, ঘের ব্যবাসয়ী জাহিদুর রহমান, ও মো. রিপন জানান, বিগত ৫ বছর ধরে কেশপুর উপজেলার সুফলাকাঠি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. মনজুর রহমান বারাত-মির্জাপুর বিলে শান্তিপূর্ন ভাবে মাছচাষ এবং জমি মালিকদের জমির হারি প্রদান সহ তাদের বোরোচাষ সুবিধা কিরে দিচ্ছে। ফলে জলাবদ্ধ কবলিত ওই বিলে এখন হাজার হাজার টন ধান উৎপাদন হচ্ছে।

চলতি বাংলা বছরের চৈত্র মাসে বিলে মুনজুর রহমানের মৎস্য চাষের ডিড এর মেয়াদ শেষ হবে। যোকারনে তিনি বিধি মোতাবেক আবারও জমি মালিকদের কাছ থেকে রেজিষ্ট্রি ডিড করে নিয়েছেন। কিন্তু এই সকল ডিডকে অমান্য করে এবং জোরপূর্বক অবৈধভাবে উক্ত বিলে মাছচাষ করার জন্য কেশবপুরের মধু-মোস্তাক একটি তঞ্চকি ডিড করে নিয়ে বিল দখল করার পায়তারা চালাচ্ছে।

এঘটনায় বিলের জমি মালিকরা প্রতিবাদ করায় মধু-মোস্তাক গং পরিকল্পিত ভাবে আওয়ামী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের উপর হামলা ও হুমকি প্রদানের গল্প বানিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এমনকি দূর্বৃত্ত ও নাশকতা মামলার আসামী কেশবপুরের মধু-মোস্তাক ও তার পোষ্য লোকজন গ্রামবাসীদের হয়রানী করার জন্য প্রশাসনে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে হয়রানী করে আসছে। এছাড়া নাশকতা মামলার আসামী মোস্তাক আহম্মেদ কৌশলে বারাত-মির্জাপুর বিল দখল করার জন্য জাতীয় পর্যায়ের সম্মাননা প্রাপ্ত সুফলাকাঠি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. মুনজুর রহমানকে একটি রাজনৈতিক দলেল নেতা বানিয়ে পুলিশ প্রশাসন দিয়ে তাকে হয়রানী করার অপচেষ্টায় মত্ত রয়েছে।

এবিষয়ে ভবানীপুর, খরাইল ও মির্জাপুর গ্রামের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ে গৌর ঘোষ, রমেশ ঘোষ, ইউপি সদস্য শ্যামল কান্তি ঘোষ, রবিন মন্ডল ও বিজয় সরকার সহ একাধিক ব্যক্তি জানান, বারাত-মির্জাপুর বিলে ঘের পরিচালনা করে সাবেক চেয়ারম্যান মো. মনজুর রহমান জমি মালিকদের সাথে শর্ত অনুযায়ী যথাসময়ে হারি প্রদান সহ বোরো চাষ যথাযথভাবে করার সুযোগ সৃষ্টি করে দিচ্ছে। কিন্তু একটি মহল ওই বিলে অবৈধভাবে মৎস্য ঘের করার জন্য নানারুপ অপপ্রচার চালানো সহ ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

গ্রামবাসী জানান, বিতর্কীত ঘের ব্যবসায়ী মোস্তাক আহম্মেদ ও তার পোষ্য লোকেরা রাতের আাঁধারে এলাকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষেল বাড়িতে বাড়িতে যেয়ে জমি মালিকদের অধিক হারি দেবার প্রলোভন দেখাচ্ছে এবং নানাবিধ হুমকি দিয়ে এলাকায় সন্ত্রাসী রামরাজত্ব কায়েম করার চেষ্টা চালাচ্ছে। অথচ এই বিলে মোস্তাক গংদের তৎপরতা বন্ধে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ রয়েছে। কিন্তু আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মোস্তাক গং বিল দখল করার ষড়যন্ত্র সহ অপপ্রচার শুরু করায় গোটা বারাত-মির্জাপুর এলাকার মানুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here