তালা সোনালী ব্যাংক থেকে গ্রাহকদের লক্ষ লক্ষ টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাৎ : জনমনে ক্ষোভ বাড়ছে

0
235

ঘটনায় দায় আমানতকারীদের উপর চাঁপানোর চেষ্টা

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা: সোনালী ব্যাংক- তালা শাখা হতে আমানতকারীদের লক্ষ লক্ষ টাকা কৌশলে জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাৎ করা হয়েছে। ব্যাংকের কতিপয় কর্মকর্তারা পরস্পর যোগসাজসে গ্রাহকদের নামে লোন উত্তোলন দেখিয়ে কৌশলে এই টাকা আত্মসাৎ করেছে। এঘটনায় ব্যাংকে আমানতকারী ক্ষতিগ্রস্থরা প্রতিকার পাচ্ছেনা। উল্টো তাদের হয়রানী করা হচ্ছে এবং জালিয়াতির ঘটনা ধামাচাঁপা দিতে ব্যাংক কর্মকর্তারা নানান অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এসব ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার সকালে তালা রিপোটার্স ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, তালা উপশহরের মহল্লাপাড়া গ্রামের কাজী আমিনুল বারী মান্টুর স্ত্রী ও ব্যাংক কর্তৃক ভুক্তভোগী আমানতকারী মরজিমুন আক্তার।
লিখিত বক্তব্য পাঠকালে মরজিমুন আক্তার বলেন, তিনি একজন নি¤œ মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষ। নিজ পরবিারের ভবিষ্যতে অর্থনৈতিক নিরাপত্তার নিশ্চিত করার জন্য সোনালী ব্যাংক- তালা শাখায় বিগত ২০০৮ সালের ১৫ জুলাই ১০ বছর মেয়াদী একটি ইডিএস হিসাব খোলেন। যার হিসাব নং- ৬৪২ এবং পাশ বই নং- ৩৭৩৯৭। এই হিসাবে তিনি প্রতি মাসে ৫০০ টাকা করে অদ্যবদী প্রায় ৯ বছর যাবৎ তার কষ্টার্জিত টাকা জমা দিয়ে আসছেন। কিন্তু এরই মধ্যে মরজিমুন আক্তারকে ব্যাংক থেকে জানানো হয়, বিগত ০৪/০৪/১৭ তারিখে তিনি ৫০ হাজার টাকা লোন উত্তলোন করেছেন। কিন্তু লোন উত্তোলন না করেও রোন নেবার কথা শুনে তিনি হতবাক হয়ে যান।
মরজিমুন আক্তার বলেন, তিনি কখনও তার ইডিএস হিসাবের বিপরীতে লোন উত্তলোন করেননি। তাঁর স্বাক্ষর জাল জালিয়াতি করে ব্যাংকের কতিপয় কর্মকর্তারা এই লোন উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছে। এছাড়াও ব্যংকের কর্মকর্তারা তাঁর হিসাব সহ আরো প্রায় অর্ধশত ব্যক্তির হিসাব এর বিপরীত থেকে কয়েক লক্ষ টাকা কৌশলে লোন হিসেবে উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছে। ইডিএস হিসাব থেকে লোন হিসেবে ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করার ঘটনার প্রতিবাদ করায় এবং নিজের হিসাবের টাকা ঠিক রাখার জন্য মরজিমুন আক্তার ব্যাংকের ম্যানেজারকে বললে- ব্যাংক ম্যানেজার বর্তমানে মরজিমুন আক্তারকে নানাবিধ হয়রানী করা সহ নিজেদের (ব্যাংক কর্মকর্তা) আত্মসাৎ করা টাকার দায় নিরিহ মরজিমুন আক্তারের উপর চাপানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।
মরজিমুন আক্তার বলেন, তিনি যে লোন নেননি তার প্রমান হিসেবে তিনি ব্যাংক ম্যানেজারের নিকট লোন উত্তোলনের তারিখ ০৪/০৪/১৭ এর সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখার দাবী করেন। কারন সেদিন তিনি ব্যাংকে যাননি এবং কোনও লোন গ্রহন করেননি। কিন্তু ব্যাংকের ম্যানেজার তা কর্নপাত না করে লোনের বোঝা জোর করে মরজিমুন আক্তারের উপর চাপিয়ে দিয়ে তাঁর দীর্ঘ বছরের কষ্টার্জিত অর্ধ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার জন্য চেষ্টা করছে। এছাড়া লোন উত্তোলনের জন্য যে আবেদন ফরম রয়েছে সেখানে তার স্বাক্ষর পরীক্ষা করার জন্য দাবী করা হলেও ব্যাংক ম্যানেজার তা করছেন না। এঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ ও ভুক্তভোগী মরজিমুন আক্তার ঘটনার তদন্ত পূর্বক ন্যায্য টাকা পাবার জন্য সোনালী ব্যাংকের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা এবং সরকারের গোয়েন্দা বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
উল্লেখ্য, সোনালী ব্যাংক তালা শাখার প্রায় অর্ধ শত ইডিএস, ডিপিএস ও ডিপোজিট আমানতকারীদের হিসাবের বিপরীত থেকে ইতোমধ্যে ব্যাংকের কতিপয় কর্মকর্তা ও কর্মচারী পরস্পর যোগসাজসে লক্ষ লক্ষ টাকা লোন হিসেবে উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছে। এবিষয়টি জানাজানি হবার পর থেকে ব্যাংকের এক কর্মচারী স্বপরিবার নিয়ে পালিয়ে গেছে। জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা টাকা উঠিয়ে নেওয়ায় বর্তমানে আমানকতারী গ্রাহকরা চরম বিপাকে পড়েছে এবং ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। জনগনের বিশ্বস্ত সোনালী ব্যাংকে টাকা রাখার পর তা আত্মসাৎ হয়ে যাওয়া এবং টাকার নিরাপত্তা না থাকায় গ্রাহকদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাহকরা ঘটনার সুষ্ঠ প্রতিকার এবং তদন্ত দাবী করলেও ব্যাংকের ম্যানেজার তা না করে গ্রাহকদের সাথে চরম দূর্ব্যবহার করছে এবং ব্যাংকের কর্মকর্তা কর্মচারীদের আত্মসাৎকৃত টাকার দায় গ্রাহকদের উপর চাপানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। এতে করে ভুক্তভোগী গ্রাহক সহ তালাবাসীর মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে। ইতোমধ্যে একাধিক ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাহক ঘটনার প্রতিকার পেতে থানায় জিডি করেছেন এবং ব্যাংকের উর্দ্ধথন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করেছেন। অতিদ্রুত জালিয়াতির বিষয়টি সমাধান করে গ্রাহকদের টাকা ফেরৎ না দিলে সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তাদের সাথে জনগনের ভয়াবহ বিরোধ সৃষ্টি হবার আশংকা দেখা দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here