ধর্ম প্রচার করায় দেওয়ানবাগী অনুসারীদের হামলায় ৪জন আহত : বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টায় একটি মহল

0
849

নিজস্ব প্রতিবেদক : ইসলাম প্রচার করায় বাঁকড়া এলাকার চিহ্নি সন্ত্রাসী ও দেওয়ানবাগী অনুসারীরা আমাদের ওপর উপর্যপুরী হামলা চালাচ্ছে। এমনকি হাফিজুর রহমান নামে দেওয়ানবাগীর এক অনুসারীর নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা বাড়ি বাড়ি যেয়ে হত্যার হুমকিও দিচ্ছে। তারা বলছে, ধর্ম প্রচার ছেড়ে না দিলে জামায়াত-শিবির বলে পুলিশে চালান দেয়া হবে। গত কয়েকদিন ধরেই চিহ্নিত এসব সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে বিভিন্নভাবে অপপ্রচার চালিয়ে আমাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। মঙ্গলবার রাজগঞ্জ প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া কওমি মাদ্রাসায় শিক্ষক মুফতি আতাউর রহমান বিক্রমপুরী। এসময় সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ডাঃ নাসির উদ্দিন, আসাদুজ্জামান, সমাজসেবক নজরুল ইসলাম প্রমূখ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ২৬ অক্টোবর থেকে প্রস্তাবিত বাঁকড়া থানা ইমাম পরিষদের পক্ষ থেকে দিগদানা নগর সরদারপাড়া জামে মসজিদে আমরা বক্তব্য রাখছিলাম। গত ০১-১১-২০১৭ রাত ৮টার দিকে ভন্ডপীর দেওয়ান বাগীর স্থানীয় উপদেষ্টা মাস্টার সেলিম গং দিগদানা নগর গ্রামের আসাদুজ্জামানের বাড়িতে যেয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এসময় দেওয়ান বাগীর হুজুরের বিরুদ্ধে বয়ান করার জন্য কোন বক্তা যেন না মসজিদে না আসে বলে হুমকি দেয়। এর এক পর্যায়ে হাফিজুর রহমানের নেতৃতে একদল সন্ত্রাসী রাত ১১টার দিকে ডাঃ নাসির উদ্দিনের বাড়িতে যেয়ে চড়াও হয়। এসময় তারা ডাঃ নাসিরকে মারপিট করে। তার ডাক চিৎকারে পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে। পরিবারের সদস্যদের আসতে দেখে হাফিজুরের নেতৃত্বে থাকা সন্ত্রাসী বাহিনী দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। তারা যাওয়ার সময় বলে যায় যে বিষয়টি নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে পরিবারের সবাইকে খুন জখম করে এলাকা ছাড়া করব।
এরপর গত ২ নভেম্বর সকালে যশোর দড়াটানা মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, বাঁকড়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি তাওহিদুর রশীদ রিয়াদ এবং আমিসহ এলাকার কিছু গন্যমান্য ব্যক্তি বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় মসজিদে আলোচনা করি। আলোচনা শেষ করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে আসাদুজ্জামানের বাড়ির নিকট পৌছালে সেখানে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসী হাফিজুর রহমান ও ভন্ডপীর দেওয়ান বাগীর স্থানীয় মূখপত্র মাস্টার ইউসুফ আলীর ক্যাডার বাহিনী আমাদের গতিরোধ করে এবং প্রকাশ্যে দিবালকে আমাদেরকে লাঞ্চিত করে। আমরা তাদের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তারা ইসলাম ধর্মের কোন দলিল নেই বলে অপপ্রচার চালায়। এর প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসীরা আমাদের ওপর হামলা চালায় ও মারপিট করে। পরদিন বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে মারাত্মক আহত ডাঃ নাসির উদ্দিন একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এ ঘটনার জের ধরে হাফিজুরের নেতৃত্বে থাকা বাঁকড়া বাজারে মাওলানা সিরাজুল ইসলামের উপর পুনারায় হামলা চালায়।
ঘটনাটি নিয়ে দ্রুত স্থানীয় চেয়ারম্যান ইবাদ আলীর বাসায় বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ শিকদার মতিয়ার রহমানের উপস্থিতিতে ভুক্তভোগিসহ উভয়ের মধ্যে বিষয়টি আপোস মিমাংসা হয়।
এদিকে মিমাংসার ৫ঘন্টা অতিবাহিত হতে না হতেই আবারও হামলা চালায় হাফিজুর ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী। তাদের হামলার শিকার হন ডাঃ নাসির উদ্দিন। এসময় তাকে হত্যার উদ্দ্যেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাতসহ দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাট চালায়।
এঘটনা এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে এসে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করলে তারা দ্রুত পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এসময় সন্ত্রাসীরা ঘোলাপানিতে মাছ শিকারসহ প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে দুটি মটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনের খবর পেয়ে বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং মারাত্মক আহত ডাঃ নাসির উদ্দিনকে উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। গত ৫ নভেম্বর রাতে স্থানীয় মসজিদের ইমাম ইমাদুল হকের উপর হাফিজুরসহ তার ক্যাডার বাহিনী আবারও হামলা চালায়। এসব ঘটনায় আমরা শংকিত ও আতংকিত অবস্থায় দিন পার করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here