ধ্বসে পড়েছে মণিরামপুরে কপোতাক্ষ পাড়ের গ্রাম রক্ষা বাঁধ, দ্রুত সংস্কারের দাবি

0
273

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর): মণিরামপুরে কপোতাক্ষ পাড়ের চাকলা-কিসমত চাকলা গ্রাম রক্ষা বাঁধ ধ্বসে পড়েছে। দ্রুত সংস্কার করা না হলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে কপোতাক্ষের উপচে পড়া পানি ঢুকে ফসলসহ বাড়ি-ঘরের ক্ষয়-ক্ষতির আশংকা করছে গ্রামবাসী। জানাযায়, ২০০৬ সালের আগে প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে কপোতাক্ষের উপচে পড়া পানি ঢুকে উপজেলার চাপাতলা, লক্ষিকান্তপুর, চাকলা, কিসমত চাকলা গ্রামের ফসলসহ বাড়ি-ঘরের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হতো। স্থানীয়দের দাবির প্রেক্ষিতে উপজেলার মশ্মিমনগর ইউনিয়ন পরিষদ ও পাউবো (পানি উন্নয়ন বোর্ড) এর পক্ষ থেকে কপোতাক্ষ নদের তীর ঘেষে গ্রাম রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হয়। স্থানীয় সাবেক মেম্বর শহিদুল ইসলাম বলেন, পাউবো’র উদ্যোগে প্রথম পর্যায়ে ২০০৪ সালে খর্দ্দোঘাট বাজার হতে প্রাইমারি স্কুল পর্যন্ত ২ কিলোমিটার, ২য় পর্যায় আশ্রয় সেন্টার হতে নেওলা পাড়া পর্যন্ত আরো ৯শ’ মিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। পরে ২০০৮ সালে খর্দ্দো ঘাট হতে কিসমত চাকলা পর্যন্ত প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। তবে ব্যয় সম্পর্কে জানতে চাইলে পাউবো’র কোন পর্যায়ের কর্মকর্তা মুখ খুলতে চাননি। শাখা কর্মকর্তা কিংকর সাহা বলেন, তিনি সেময় ছিলেন না-তবে পরে খোঁজ-খবর নিয়ে জানানো যাবে।
ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর বলেন, তার সময় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে প্রায় ৪২ লাখ টাকা ব্যয়ে চাপাতলা থেকে লক্ষিকান্তপুর পর্যন্ত গ্রাম রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হয়।
সরেজমিন কিসমত চাকলায় গিয়ে দেখা যায়, কয়েকদিন আগের ভারি বর্ষণে কিসমত চাকলা গ্রামের ফেরিঘাট সংলগ্ন পাউবো নির্মিত বাঁধ আড়াআড়িভাবে প্রায় ৬ মিটার ধবসে পড়েছে। এসময় উপস্থিত স্থানীয় আজিমুদ্দীন বলেন, গত বর্ষা মৌসুমে ওই জায়গায় সামান্য ফাটল দেখা দিলে, গ্রামবাসি স্বেচ্ছাশ্রমে সংস্কার করে। কিন্তু এবার বর্ষার শুরুর আগেই যে অবস্থা, তাতে পাউবো’র পক্ষ থেকে সংস্কার করা না হলে গ্রামবাসি চরম ক্ষতিগ্রস্থ হবে বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য সরোয়ার হোসেন, বর্ষা মৌসুমের আগে এটি সংস্কার করা না হলে চাকলা, কিসমত চাকলা, নেওড়া পাড়া, ভরতপুরের প্রায় ২০ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়বে বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বলেন, কিছু আগে ভারি বর্ষণের কারনে বাঁধ ধ্বসে পড়ার বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্মামী বলেন, ইতোমধ্যে তারা অবহিত হয়েছেন-অতি দ্রুত বাঁধ সংস্কারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here