নাভারন রেলস্টেশন বস্তি উচ্ছেদ ।। শিউলি বাশফোরের স্বপ্ন হলো ফ্যাকাশে

0
502

আরিফুজ্জামান আরিফ বাগআঁচড়া : পঁচিশটি বসন্ত পার করে কিরন বাশফোর যখন শিউলি বাশফোরের সাথে মালাবদলের স্বপ্নে বিভোর ঠিক তখন বাংলাদেশ রেলওয়ের অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ অভিযান তাদের স্বপ্নকে ঘোলাটে করে দিয়েছে।

কিরন বাশফোর হরিজন সম্প্রদায়ের লোক। যশোরের শার্শা উপজেলার নাভারন রেলস্টেশন সংলগ্ন বাপ দাদার রেখে যাওয়া বাড়িতে বংশ পরস্পরায় বসবাস করে আসছে। ওই সম্পত্তির মালিক বাংলাদেশ রেলওয়ে। খুলনা-কলকাতা মৈত্রী এক্সপ্রেস-২ চালু করার পূর্বপ্রস্তুতির অংশ হিসেবে বুধবার থেকে শুরু হয়েছে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ। আসছে সোমবার ইশ্বরদী আলহাজ্ব মোড়ের হরিজন পল্লির শিউলি বাশফোরের সাথে তার মালাবদলের দিনক্ষন ঠিক রয়েছে কিন্তু মালাবদলের পর ওই বধূকে বরণ করবে কোথায়। বাংলাদেশ রেলওয়ের উচ্ছেদ অভিযানে তার বাস্তভিটাতো রক্ষা পাবে না।তাই তার স্বপ্ন ফ্যাকাশে হতে চলেছে।
নাভারন রেলস্টেশন সংলগ্ন হরিজন পল্লিতে বসবাস করে কিরনের মত ২২টি পরিবার।তাদের প্রত্যেকের চোখে আজ আতংকের ছাপ।উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার কাছে ‘খাসজমি বন্দোবস্ত দিয়ে তাদের যেন উচ্ছেদ করা হয়’ এমনটি দাবি করেছে হরিজন সম্প্রদায়ের লোকজন।
হরিজন পল্লিতে বসবাসকারি ৯০ বছরের বৃদ্ধ মুকুল বাশফোর বলেন,আমার জম্ম হয়েছে এই পল্লিতে।আমার পরিবার অন্তত এক’শ বছর ধরে এখানে বসবাস করছে।ঘরবাড়ি ভেঙ্গে দিলে আমরা এখন কোথায় যাবো।
উপজেলা হরিজন কমিটির সভাপতি হিরালাল বাশফোর বলেন, শার্শা ও ঝিকরগাছা উপজেলার বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ‘সুইপার’ হিসেবে যারা কাজ করেন তাদের সবাই এই পল্লিতে বসবাস করেন। বাড়ি ঘর উচ্ছেদ করলে যুবতী মেয়ে,বউ,বৃদ্ধ এবং বাচ্চাদের নিয়ে আমরা এখন করবো কি, যাবো কোথায় এমনটি প্রশ্ন করেন হিরালাল।
বুরুজবাগান হাইস্কুলের নবম শ্রেনির ছাত্রী বিনারানী বাশফোর বলেন,“একেতে আমরা হরিজন সম্প্রদায়ের লোক তারপরও সরকারের সহযোগিতায় লেখাপড়া শিখছিলাম। এবার উচ্ছেদ আতংকে আমাদের লেখাপড়া বন্ধ হতে চলেছে।আমরা বাঁচতে চাই,লেখাপড়া শিখতে চাই।সরকার আমাদের প্রতি সদয় হবেন।”
ওই স্কুলের অষ্টম শ্রেনির ছাত্রী দীপারানী বাশফোর,ষষ্ট শ্রেণির প্রীতিরানী বাশফোর,হৃদয় বাশফোর এরমত অনেক শিশুরই জম্ম এই হরিজন পল্লিতে।তারা বাবা মায়ের পেশায় না যেয়ে স্কুলে পড়াশুনা করছে।দেখছে বড় হওয়ার স্বপ্ন।কিন্তু ওরা মনে করে তাদের সে স্বপ্ন এই উচ্ছেদের সাথে সাথেই উচ্ছেদ হয়ে যাবে।
বাংলাদেশ হরিজন মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রিয় মহাসচিব রম্ভুলাল বাশফোর প্রতিবেদক কে বলেন,সমাজের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোস্টি হরিজন সম্প্রদায়ের ২২টি পরিবার রেলওয়ের জমিতে বসবাস করে আসছে।এরা অত্যন্ত অসহায় দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের মানুষ।নিজের টাকা দিয়ে জমি কিনে বাড়ি করার মত অবস্থা কারো নেই।তাদেরকে উচ্ছেদ করা হলে যাযাবরের মত জীবনযাবন করতে হবে।তাদেরকে খাসজমি বন্দোবস্ত করার আগে উচ্ছেদ না করার জন্য মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আবেদন করছি।
শার্শা উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা আব্দুস সালাম বলেন, ওরা খাসজমি বন্দোবস্ত চেয়েছেন বিষয়টি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের জানানো হয়েছে।সরকার ভুমিহীনদের পুর্নবাসনে কাজ করছেন।এদেরও পূর্নবাসনের ব্যবস্থা করা হবে তবে সময় লাগবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here