নিবরাসের আশ্রয়দাতা শামীম সন্ধান দেয় ঝিনাইদহের দুই আস্তানার

0
692

মোঃ জাহিদুর রহমান তারিক : গুলশান হলি আর্টিসানে জঙ্গি হামলার নিহত নিবরাসের আশ্রয়দাতা জঙ্গি শামীমের তথ্যের ভিত্তিতে ঝিনাইদহের দুই আস্তানার সন্ধান পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন কাউন্টার টেররিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম। গত ৫ মে ঝিনাইদহ থেকে জঙ্গি শামীমকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান মনিরুল। মনিরুল ইসলাম বলেন, গুলশান হামলায় অংশ নেওয়া নিবরাসসহ কয়েকজন হামলার আগে ঝিনাইদহে অবস্থান করে। সে সময় তাদেরকে ঝিনাইদহে থাকার ব্যবস্থা করেছিল গ্রেফতার শামীম।

তিনি বলেন, শামীমমের বাড়িতে মাটির নিচে বস্তায় অস্ত্র ও বিস্ফোরক লুকানোর তথ্য সেই পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বলেছিল। তার দেওয়া তথ্যানুযায়ী ঝিনাইদহ সদর এলাকায় বাড়িটিতে অভিযান চালানো হয়। তার বাড়ির মাটির নিচ থেকে বস্তাটি উদ্ধার করা হয়, ধারণা করা হচ্ছে বস্তাটিতে বিস্ফোরক রয়েছে। মহেশপুরের আস্তানাটিতে অভিযান শুরু হলে একজন ঘরের ভেতর থেকে সুইসাইডাল ভেস্টসহ বাইরে এসে বিস্ফোরণ ঘটায়। এরপর পাল্টা প্রতিরোধে পুলিশ সদস্যরা গুলি চালায়। সে পুলিশের গুলি অথবা আত্মঘাতি বিস্ফোরণে সেখানেই মারা যায়।

এ সময় কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের এডিসি নাজমূল করিম ও ঝিনাইদহ এক এএসআই আহত হন। এডিসি নাজমূলের হাত ভেঙে গেছে এবং তার চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আনা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। এএসআই মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন তবে আশঙ্কামুক্ত। তিনি আরও জানান, একটু পরেই আরেক জঙ্গি ঘরের দরজায় এসে বিস্ফোরণ ঘটায়। সেও ওই বিস্ফোরণে মারা যায়।

আস্তানায় নিহত দুই জঙ্গি বহিরাগত বলে জানা গিয়েছে বলেও জানান তিনি। গত ২০ তারিখে ঝিনাইদহের পুরাহাটিতে জঙ্গি আব্দুল্লার বাড়িতে যে অভিযান চালিয়ে বিস্ফোরকের ল্যাবরেটরি পাওয়া যায়, এই দুইজন সেখানেই থাকতেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেই আস্তানায় অভিযানের খবর পেয়ে ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে এসে জঙ্গি জহিরের বাড়িতে অবস্থান নেয় তারা। জঙ্গিরা কেন বর্ডারে এমন এক প্রশ্নের জবাবে মনিরুল ইসলাম বলেন, বিভিন্ন কৌশলগত কারণে বর্ডার এলাকায় বর্তমানে জঙ্গিরা আস্তানা গাড়ছে। বিভিন্ন দেশ থেকে অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহ সহজ এ কারণে হতে পারে। আবার বর্তমানে জঙ্গিরা বাসা ভাড়া পেতে সমস্যা হচ্ছে। সেজন্য সহযোগীদের থাকার জন্য ও নিরাপদ আস্তানা গড়ে তুলছে নিজেদের বাড়িতেই।

‘বর্তমানে নিজেদের আত্মরক্ষার্থে বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে প্রতিরোধ করতে প্রতি আস্তানাতেই প্রচুর পরিমাণ বিস্ফেরক মজুদ রাখা হচ্ছে বলেও’ জানান তিনি। জঙ্গি শামীমের সাথে নব্য জেএমবির সমন্বয়ক তামিম চৌধুরীর সহযোগী হিসেবে ঝিনাইদহে অবস্থান করত উল্লেখ করে তিনি বলেন, সে জেএমবি থেকে নব্য জেএমবিতে যোগদান করে। ঝিনাইদহে আব্দুল্লাহ ছিল বড় নেতা। তার পরে হয়ত আরো দুই একজন আছে যাদেরকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে নেতৃত্ব শূন্যতার কারণে নিচের দিকের অনেক নেতাই গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে চলে আসছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here