নির্মাণ খাতে ব্যয় বাড়বে

0
313

ভ্যাট আইন কার্যকর ১ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রতিটন রডে বর্তমানে ৯০০ টাকা মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) আদায় করা হয়। ১ জুলাই নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হলে প্রতিটন রডে সাত হাজার ৫০০ টাকা ভ্যাট দিতে হবে। অর্থাৎ বর্তমানের চেয়ে অতিরিক্ত ৬ হাজার ৬০০ টাকা ভ্যাট দিতে হবে। বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন গ্রেডের প্রতিটন রড বিক্রি হচ্ছে ৪৩ হাজার থেকে ৫৫ হাজার টাকায়। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাড়তি ভ্যাটের কারণে নির্মাণ শিল্পের অন্যতম উপকরণ রডের দাম টনপ্রতি কমপক্ষে পাঁচ হাজার টাকা বাড়বে। এ ছাড়া নির্মাণ শিল্পের আরেকটি প্রধান উপকরণ ইটের দামও বাড়বে। বর্তমানে প্রতিটি ইট বিক্রি হচ্ছে ৬ থেকে সাড়ে ৬ টাকা। প্রতি ইটের দাম বাড়বে এক টাকা । এভাবে নির্মাণ খাতে বেশির ভাগ উপকরণের দাম বাড়বে । এতে সামগ্রিকভাবে এ খাতের খরচ বাড়বে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, নতুন ভ্যাট আইনের ফলে নির্মাণ শিল্পে গড়ে খরচ বাড়বে ১০ শতাংশ।

মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপিতে নির্মাণ খাতের অংশ সাড়ে ৬শতাংশ, যা চলতি মূল্যে ৫ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। রাজনৈতিক অস্থিরতা থাকায় ২০১৩ ও ১৪ সালে এ শিল্পে বিপর্যয় দেখা দেয়। দেড় বছর ধরে দেশে শান্তিময় পরিবেশ বজায় থাকায় এ শিল্প ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তবে বাড়তি করের কারণে এ শিল্পে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বলে সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ ঠিকাদার সমিতির সভাপতি মেজবাউর রহমান সমকালকে বলেন, নতুন ভ্যাট আইনে নির্মাণ খাতের ব্যয় বাড়বে।

এখন বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সিমেন্ট প্রতি বস্তার দাম ৪২০ থেকে ৪৮০ টাকা। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, সিমেন্টের দাম প্রতি বস্তায় ৫০ টাকা বাড়বে। বাড়বে বালুর দামও। জানা গেছে, দেশে যারা বালুর ব্যবসা করেন, তাদের বেশির ভাগেরই ভ্যাট নিবন্ধন নেই। তারা বালু বিক্রির সময় কোনো ভ্যাটের চালান রাখেন না। নতুন ভ্যাট আইনে উপকরণে কর রেয়াত সুবিধা বা ক্রেডিট নিতে হলে চালান দেখাতে হবে। বালু ব্যবসায়ীরা চালান না থাকার কারণে কোনো ধরনের রেয়াত নিতে পারবেন না। ফলে বালুর দাম বাড়বে। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কনস্ট্রাকশনের সভাপতি শফিকুল আলম বলেন, ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হলে নির্মাণ শিল্পে ব্যয় বাড়বে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে কী পরিমাণ বাড়বে তা এখন পর্যন্ত হিসাব করা হয়নি। শিগগিরই তারা বসবেন, ভ্যাটের প্রভাব মূল্যায়ন করে তা জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে। আবাসন মালিকদের সংগঠন রিহ্যাবের প্রথম সহ-সভাপতি লিয়াকত আলী ভূঁইয়া একই রকম মন্তব্য করে বলেন, খরচ তো অবশ্যই বাড়বে।

বর্তমানে ইটের ট্যারিফ মূল্য ধরে ভ্যাট আদায় করা হয়। ১০ লাখ ইটের জন্য সরকারকে ভ্যাট দিতে হয় বছরে মোট সাড়ে ৪ লাখ টাকা। নতুন আইন কার্যকর হলে একই সংখ্যক ইটে ভ্যাট দিতে হবে ৯ লাখ টাকার বেশি। বাংলাদেশ ব্রিকস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আসাদুর রহমান খান সমকালকে বলেন, বাড়তি ভ্যাটের কারণে ইটের দাম বেড়ে যাবে, কমে যাবে বিক্রি। এতে এ শিল্পে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। জানা গেছে, দেশে বর্তমানে ১৭ হাজার কোটি ইটের চাহিদা রয়েছে। বছরে ৫ শতাংশ করে চাহিদা বাড়ছে। সারাদেশে ৬ থেকে সাড়ে ৬ হাজার ইটের ভাটা আছে। সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বলেন, রড, ইট, সিমেন্ট, বালু, তারকাঁটা, নাটবোল্টসহ নির্মাণ খাতে শতাধিক পণ্য ব্যবহৃত হয়। ভ্যাট আইনে প্রতিটি পণ্যের দামই বাড়বে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here