পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে যশোরে পশুহাটগুলে এ বছর জমেনি ॥ পশুর দাম ক্রয় ক্ষমতার বাইরে

0
84

এম আর রকি : ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে যশোর জেলার পশু হাট গুলো এ বছর জমে উঠেনি। উপশহরে ঐতিহ্যবাহী পশু হাটে পশু শুন্য অবস্থা বিরাজ করছে। আয়োজকদের মাথায় হাত। ঈদের দুই দিন আগে উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে অস্থায়ী পশু হাটে একটিও পশুর দেখা মেলেনি। ক্রেতাগণ উপশহর পশু হাটে এসে হতবাক হয়ে ফিরে গেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,যশোর জেলায় গড়ে ওঠা পশু হাটগুলো এ বছর অন্যান্য বছরের তুলনায় জমে ওঠেনি। পবিত্র ঈদুল আযহা আর মাত্র একদিন পর। ১২ আগষ্ট সোমবার ঈদুল আযহা দিন চুড়ান্ত হলেও পশু ক্রেতাগন দিক বিদিকভাবে এই হাট থেকে ওই হাটে ছুটোছুটি করছে। অন্যান্য বছরে ঈদুল আযহার প্রায় দুই সপ্তাহ পূর্ব হতে হাটগুলোতে গরু ও ছাগলে ভরে যেতো। এ বছর শুন্যতা বিরাজ করছে। সূত্রগুলো জানিয়েছেন,উপশহর পশু হাট স্বাধীনতার পর হতে ঐতিহ্যবাহী বহন করে আসছিল। সপ্তাহের প্রতি সোমবার উপশহর নিউমার্কেটের পূর্ব ও উত্তর পাশে বসতো। হাউজিং এষ্টেটের জায়গায় পুরাতন মার্কেট বিলুপ্তি করে সেখানে আধুনিক মার্কেট নির্মাণ ও আবাসিক বহুতল ভবন নির্মানের জন্য উপশহরের ঐতিহ্যবাহী পশু হাট বিলুপ্তি করা হয়। বছর তিন পূর্বে হাটের কার্যক্রম বিলুপ্তি হলে উপশহর ঐতিহ্যবাহী পশু হাট ধরে রাখতে উপশহর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে শুধু মাত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে পশু হাট বসানোর পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়। প্রথম বছর ইউনিয়ন পরিষদের সামনের সড়কে ও উপশহর পার্কের মধ্যে পশু হাট জমে উঠে। ওই বছর হাটের আয়োজকরা গরুর মালিকদের ও ক্রেতাদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচারণ করায় ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। তাছাড়া,নিরাপত্তাহীনতার কারণে খামারিরা সেই বছর হাটে গরু তুললেও কেনাবেচা অনেকটা হ্রাস পেতে শুরু করে। খামারিরা তাদের নিরাপত্তার অভাব মনে করে হাটে গরু না তুলে খামারে তাদের গরু দেখানোর কার্যক্রম শুরু করে। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে ও পত্র পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে খামারে আসার পথ দেখাতে শুরু করে। যার ফলে গরু ক্রেতাগন খামারিদের সন্ধান পেয়ে সরাসরি খামারে গিয়ে গরুর দাম ঠিকঠাক করে কিনতে শুরু করেন। গত বছর যশোর সদর উপজেলার প্রায় ২০ খামারে গরু কেনাবেচা বেশী হয়েছে। এবছরও খামারিরা তাদের গরুর দাম পাবে বলে আশংকা প্রকাশ করেছে। সূত্রগুলে আরো বলেছে, যশোরের ৮ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গরু ছাগলের হাটে যে পরিমান গরু ও ছাগল উঠেছে তার চেয়ে ক্রেতাদের সংখ্যা দ্বিগুনের চেয়ে বেশী হওয়ায় বিক্রেতাগন তাদের গরু ছাগলের দাম উর্ধ্বমূল্যে চাচ্ছে। যার ফলে হাট গুলোতে কেনাবেচা তেমন একটা হচ্ছে না। তবে ক্রেতাগন বিভিন্ন পাড়ায় মহল্লায় গরু ও ছাগলের সন্ধ্যান করে ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রেখে কিনছে। তবে এ বছর ছোট দেশী গরুর দাম হাকিয়ে চাওয়ায় কেনা বেচা তেমন একটা হচ্ছেনা। গত বছর যে গরুর দাম চাওয়া হয়েছিল ৫০ হাজার টাকা । সেই পরিমানের গরু এ বছর চাওয়া হচ্ছে ৮০ হাজারের অধিক। পশু দাম ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাওয়ায় কুরবানীর নিয়ত করে পশু কিনতে যাওয়া ক্রেতাগন দারুন ভাবে হিমশিম খাচ্ছে। ১১আগষ্ট রোববার পশু হাটের শেষ দিন। স্বল্প আয়ের লোকজন এ বছর কুরবানির নিয়ত করলেও ক্রয় ক্ষমতার বাইরে পশুর দাম চলে যাওয়ায় তারা পড়েছে দারুন চিন্তায়। তারপরও ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রেখে ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিরা পশু কিনে ঘরে ফিরবে এমন আশা করে খামার থেকে শুরু করে যেখানে পশু রয়েছে সেখানে ছুটছে ক্রেতাগন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here