পরিকল্পিত ভাবে তালার কানাইদিয়া গ্রামে হাফিজুরকে খুন করার অভিযোগ : আদালতে মামলা দায়ের

0
253

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা : অর্থ আত্মসাৎ এবং দাম্পত্য কলহকে কেন্দ্র করে উপজেলার চর-কানাইদিয়া গ্রামের হাফিজুর রহমান (২৮)কে খুন করা হয়েছে। হাফিজুরের ভাইরাভাই এবং স্ত্রী পরিকল্পিত ভাবে তাকে খুন করে বলে- নিহত হাফিজুরের পরিবার এবং জনপ্রতিনিধি সহ এলাকার অর্ধশত মানুষের অভিযোগ। এই খুনের ঘটনায় নিহত হাফিজুরের ছোট ভাই মনিরুল শেখ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
নিহত হাফিজুর রহমান তালার জালালপুর ইউনিয়নের চর-কানাইদিয়া গ্রামের মো. মোক্তার শেখ’র ছেলে। গত সোমবার রাতে ভাইরাভাই এর বাড়িতে তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার সাতক্ষীরা মর্গ থেকে ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার সকালে চর-কানাইদিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
বৃহস্পতিবার সকালে সরজমিনে গেলে, স্থানীয় সংরক্ষিত ইউপি সদস্যা পারুল বিবি, হাফিজুরের চাচা পীর আলী শেখ, প্রতিবেশী মোমিন পাড়, গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল লতিফ গাজী, শহিদুল মোড়ল ও ফিরোজা বেগম সহ ক্ষুব্ধ অর্ধ শতাধিক নারী-পুরুষ জানান, প্রায় ৯ বছর আগে হাফিজুর পাটকেলঘাটার শার্শা গ্রামের তাজমা খাতুন নামের এক মেয়েকে বিয়ে করে। এই বিয়েতে তাজমার ভগ্নিপতি কৃষ্ণকাটি গ্রামের রবিউল ইসলাম সামগ্রীক সহযোগীতা করে। বিয়ের পর থেকে তারা স্বামী-স্ত্রী ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকুরি করতো। তাদের চাকুরি থেকে আয় করা টাকা দিয়ে সংসার খরজ চালিয়ে বাকি টাকা তাজমার ভগ্নিপতি কৃষ্ণকাটি গ্রামের মেছের সরদারের ছেলে রবিউল সরদারের নিকট রাখতো। কিন্তু সম্প্রতি ঢাকাতে হাফিজুরের সাথে স্ত্রী তাজমা বেগমের কলহ সৃষ্টির একপর্যায়ে তাজমা বেগম লোকজন নিয়ে স্বামী হাফিজুরকে মারপিট করায়। এঘটনার পর প্রায় ২মাস আগে হাফিজুর তার স্ত্রী তাজমা ও ১মাত্র কন্যা লামিয়া (৭)কে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে চলে আসে। কিন্তু হাফিজুর তাঁর পৈত্রিক বসত-বাড়িতে উঠলেও স্ত্রী তাজমা বেগম পাশ্ববর্তী কৃষ্ণকাটি গ্রামে ভগ্নিপতি রবিউল সরদারের বাড়িতে চলে যায়। এরমধ্যে হাফিজুর তাঁর প্রয়োজনে ভাইরাভাই রবিউল সরদারের নিকট রাখা ৫ লক্ষ টাকা ফেরৎ এবং স্ত্রীকে নিজ বাড়িতে আনতে চাইলে উভয়ের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয় এবং হাফিজুরকে খুন করা হবে বলে হুমকি দেয়া হয়। এই বিরোধ নিস্পত্তির জন্য গত সোমবার বিকালে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এম. মফিদুল হক লিটুর বাড়িতে সালিস’র আয়োজন করা হয়। কিন্তু এদিন সালিস সম্পূর্ন না হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে পুনরায় দিন ধার্য করা হয়।
এলাকার মানুষের অভিযোগ, মঙ্গলবার সালিস সভায় ৫ লক্ষ টাকা না দেওয়া এবং স্ত্রীকে ফেরৎ না পাঠানোর জন্য সোমবার সন্ধ্যায় ভাইরাভাই হাফিজুরকে পরিকল্পিতভাবে রবিউল সরদার তাঁর বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে রবিউল ও তাজমা বেগম সহ অন্যান্য লোকজন পিটিয়ে এবং শ্বাসরোধ করে হাফিজুরকে খুন করে। পরে ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে প্রচার করার জন্য হাফিজুরের মুখে বিষ ঢেলে দেয়। নিহত হাফিজুরের গলাই সহ শরীরের একাধিক স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে দাফনকারীরা জানিয়েছেন।
এদিকে, এক জনপ্রতিনিধির কারনে হাফিজুর খুনের ঘটনায় থানায় মামলা করা সম্ভব হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। যেকারনে নিহত হাফিজুরের ছোট ভাই মনিরুল শেখ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।
এব্যপারে সংশ্লিষ্ট জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এম. মফিদুল হক লিটু জানান, সোমবার বিকালে হাফিজুর ও তার স্ত্রীর মধ্যকার সালিস অনুষ্ঠিত হবার কথা থাকলেও সালিসে সব লোকজন না আসায় মঙ্গলবার সকালে পুনরায় সালিস সভার সময় নির্ধারন করা হয়। কিন্তু তার আগেই হাফিজুর বিষপানে আত্মহত্যা করে।
তালা তানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমান জানান, হাফিজুরের মৃত্যুর ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া মৃত্যুর সঠিক কারন জানার জন্য লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসার পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
পরিকল্পিত ভাবে তালার কানাইদিয়া গ্রামে হাফিজুরকে খুন করার অভিযোগ : আদালতে মামলা দায়ের
বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা
অর্থ আত্মসাৎ এবং দাম্পত্য কলহকে কেন্দ্র করে উপজেলার চর-কানাইদিয়া গ্রামের হাফিজুর রহমান (২৮)কে খুন করা হয়েছে। হাফিজুরের ভাইরাভাই এবং স্ত্রী পরিকল্পিত ভাবে তাকে খুন করে বলে- নিহত হাফিজুরের পরিবার এবং জনপ্রতিনিধি সহ এলাকার অর্ধশত মানুষের অভিযোগ। এই খুনের ঘটনায় নিহত হাফিজুরের ছোট ভাই মনিরুল শেখ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
নিহত হাফিজুর রহমান তালার জালালপুর ইউনিয়নের চর-কানাইদিয়া গ্রামের মো. মোক্তার শেখ’র ছেলে। গত সোমবার রাতে ভাইরাভাই এর বাড়িতে তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার সাতক্ষীরা মর্গ থেকে ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার সকালে চর-কানাইদিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
বৃহস্পতিবার সকালে সরজমিনে গেলে, স্থানীয় সংরক্ষিত ইউপি সদস্যা পারুল বিবি, হাফিজুরের চাচা পীর আলী শেখ, প্রতিবেশী মোমিন পাড়, গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল লতিফ গাজী, শহিদুল মোড়ল ও ফিরোজা বেগম সহ ক্ষুব্ধ অর্ধ শতাধিক নারী-পুরুষ জানান, প্রায় ৯ বছর আগে হাফিজুর পাটকেলঘাটার শার্শা গ্রামের তাজমা খাতুন নামের এক মেয়েকে বিয়ে করে। এই বিয়েতে তাজমার ভগ্নিপতি কৃষ্ণকাটি গ্রামের রবিউল ইসলাম সামগ্রীক সহযোগীতা করে। বিয়ের পর থেকে তারা স্বামী-স্ত্রী ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকুরি করতো। তাদের চাকুরি থেকে আয় করা টাকা দিয়ে সংসার খরজ চালিয়ে বাকি টাকা তাজমার ভগ্নিপতি কৃষ্ণকাটি গ্রামের মেছের সরদারের ছেলে রবিউল সরদারের নিকট রাখতো। কিন্তু সম্প্রতি ঢাকাতে হাফিজুরের সাথে স্ত্রী তাজমা বেগমের কলহ সৃষ্টির একপর্যায়ে তাজমা বেগম লোকজন নিয়ে স্বামী হাফিজুরকে মারপিট করায়। এঘটনার পর প্রায় ২মাস আগে হাফিজুর তার স্ত্রী তাজমা ও ১মাত্র কন্যা লামিয়া (৭)কে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে চলে আসে। কিন্তু হাফিজুর তাঁর পৈত্রিক বসত-বাড়িতে উঠলেও স্ত্রী তাজমা বেগম পাশ্ববর্তী কৃষ্ণকাটি গ্রামে ভগ্নিপতি রবিউল সরদারের বাড়িতে চলে যায়। এরমধ্যে হাফিজুর তাঁর প্রয়োজনে ভাইরাভাই রবিউল সরদারের নিকট রাখা ৫ লক্ষ টাকা ফেরৎ এবং স্ত্রীকে নিজ বাড়িতে আনতে চাইলে উভয়ের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয় এবং হাফিজুরকে খুন করা হবে বলে হুমকি দেয়া হয়। এই বিরোধ নিস্পত্তির জন্য গত সোমবার বিকালে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এম. মফিদুল হক লিটুর বাড়িতে সালিস’র আয়োজন করা হয়। কিন্তু এদিন সালিস সম্পূর্ন না হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে পুনরায় দিন ধার্য করা হয়।
এলাকার মানুষের অভিযোগ, মঙ্গলবার সালিস সভায় ৫ লক্ষ টাকা না দেওয়া এবং স্ত্রীকে ফেরৎ না পাঠানোর জন্য সোমবার সন্ধ্যায় ভাইরাভাই হাফিজুরকে পরিকল্পিতভাবে রবিউল সরদার তাঁর বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে রবিউল ও তাজমা বেগম সহ অন্যান্য লোকজন পিটিয়ে এবং শ্বাসরোধ করে হাফিজুরকে খুন করে। পরে ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে প্রচার করার জন্য হাফিজুরের মুখে বিষ ঢেলে দেয়। নিহত হাফিজুরের গলাই সহ শরীরের একাধিক স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে দাফনকারীরা জানিয়েছেন।
এদিকে, এক জনপ্রতিনিধির কারনে হাফিজুর খুনের ঘটনায় থানায় মামলা করা সম্ভব হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। যেকারনে নিহত হাফিজুরের ছোট ভাই মনিরুল শেখ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।
এব্যপারে সংশ্লিষ্ট জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এম. মফিদুল হক লিটু জানান, সোমবার বিকালে হাফিজুর ও তার স্ত্রীর মধ্যকার সালিস অনুষ্ঠিত হবার কথা থাকলেও সালিসে সব লোকজন না আসায় মঙ্গলবার সকালে পুনরায় সালিস সভার সময় নির্ধারন করা হয়। কিন্তু তার আগেই হাফিজুর বিষপানে আত্মহত্যা করে।
তালা তানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমান জানান, হাফিজুরের মৃত্যুর ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া মৃত্যুর সঠিক কারন জানার জন্য লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসার পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here