পশ্চিমবঙ্গের বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে মুসলিমদের হার অস্বাভাবিকভাবে কমছে!

0
236

শিক্ষাঙ্গান ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গের নামী রাজ্য ও কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে মুসলিম শিক্ষার্থীদের হার অস্বাভাবিকভাবে কমে যাচ্ছে। ২০১৫-১৬ সালের ষষ্ট অল ইন্ডিয়া সার্ভে অন হাইয়ার এডুকেশন (এআইএসএইচই)-এর এক জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয় (এইচআরডি) দ্বারা এই রিপোর্টটি প্রকাশ করেছে।

ভারতের ঐতিহ্যমন্ডিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কয়েকটি হল কলকাতার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়, শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, খড়গপুরের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (আইআইটি), ওয়েস্ট বেঙ্গল ইউনিভার্সিটি অফ টিচারস ট্রেনিং, এডুকেশন প্ল্যানিং অ্যান্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, কল্যাণীর ইন্ডিয়ান ইনস্টিউট অফ ইনফরমেশন টেকনোলজি, আসানসোলে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়, মোহনপুরে বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে একজন মুসলিম শিক্ষার্থীও তাদের নাম নথিভুক্ত করেননি বা ভর্তি হয়নি। এমনকি অ্যামাইটি’র মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষাবর্ষে ১১৪০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে একজন মুসলিম শিক্ষার্থীও ভর্তি হয়নি।

পশ্চিমবঙ্গের মোট জনসংখ্যার ২৭ শতাংশ মুসলিম সম্প্রদায় ভুক্ত। কিন্তু রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে মুসলিমদের হার ০ থেকে ৩ শতাংশ।

উচ্চশিক্ষায় মুসলিমদের পিছিয়ে পড়ার কারণ স্বীকার করে নিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের সংখ্যালঘু উন্নয়ন মন্ত্রী গিয়াসুদ্দিন মোল্লা। তিনি জানান, এটা ঠিক যে কিছু কিছু ক্ষেত্রে মুসলিম শিক্ষার্থীদের হার অত্যাধিক কম এবং আমরা এর কারণ খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি।

নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন প্রতিষ্ঠিত প্রতিচি ইনস্টিটিউট ও অ্যাসোশিয়েশনের যৌথ উদ্যোগে প্রকাশিত ২০১৬ সালের একটি রিপোর্টে মুসলিমদের অবস্থানের কথা তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে মুসলিমদের একটা বড় অংশ বাস করে গ্রামীণ এলাকায়। ফলে মুসলমানদের সামগ্রিক সাক্ষরতার হারে তার ব্যাপক প্রভাব পড়েছে।

সরকারি তথ্য বলছে, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলগুলিতে মুসলিম শিক্ষার্থীরা ঝরে যায়। আর এ কারণেই উচ্চ শিক্ষার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে মুসলিম শিক্ষার্থীদের হার কমছে।

যাদবপুরের মতো পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে দেখা গেছে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে মোট ৮৩২৯ শিক্ষার্থী নাম নথিভুক্ত করেছেন। এরমধ্যে মাত্র ৫০ জন (০.৬ শতাংশ) মুসলিম শিক্ষার্থী। ওই একই শিক্ষাবর্ষে কলকাতার কাছেই বরানগরের কেন্দ্রীয় অর্থায়নে পরিচালিত ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসটিক্যাল ইনস্টিটিউট (আইএসআই)-এ ৭৪০ জনের মধ্যে মাত্র ৮ জন (১.০৮ শতাংশ) মুসলিম শিক্ষার্থী তাদের নাম নথিভুক্ত করেছিলেন। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে নাম নথিভুক্ত করেছিলেন মোট ৪৬ হাজার ৫২২ জন শিক্ষার্থী, এর মধ্যে ২.৩৪ শতাংশ ছিল মুসলিম শিক্ষার্থী। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের মুসলিম শিক্ষার্থীদের এই হার ছিল ২.৬ শতাংশ।

বর্ধমানের আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং মালদার গৌরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে মুসলিম শিক্ষার্থীদের সংখ্যা অন্যদের চেয়ে সবচেয়ে বেশি। পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও মাদ্রাসা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া ৬৭৭২ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬৬৫৬ জনই মুসলিম সম্প্রদায়ের। অন্যদিকে গৌরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে নথিভুক্ত ২৫০০ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুসলিম শিক্ষার্থীর হার ২৭ শতাংশের কিছু বেশি।

SHARE
Previous articleআহা চিকুনগুনিয়া
Next articleএকটি সুন্দর খেলার জন্য
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here