পাইকগাছায় কপোতাক্ষ নদের ভাঙ্গন ভয়াবহ রূপ নিয়েছে : ফসলী জমি, ঘর- বাড়ী, সহায় সম্পদ নদের গর্ভে বিলীন হচ্ছে

0
226

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও এমপি’র ঘোষনা বাস্তবায়নের দাবি, দুই দপ্তরের রশি টানাটানি

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাইকগাছা: পাইকগাছায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সড়ক ও জনপদ বিভাগের রশি টানাটানির ফলে কপোতাক্ষ নদের ভাঙ্গন ভয়াবহ আকারে রুপ নিয়েছে। নির্ঘম রাত কাটাচ্ছে কপোতাক্ষ নদের পাড়ের মানুষ। গত কয়েক দিনে উজানের পানির তোড়ে আগরঘাটা বাজারের আশপাশের এলাকা সহ হরিঢালী, কপিলমুনির চার গ্রামের বহু মানুষের ঘর বাড়ি, ফসলী জমি, গাছপালা নদের গর্ভে বিলীন হয়েছে। ভাঙ্গনরোধে অবিলম্বে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করে ক্ষতিগ্রস্তরা সহ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বররা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভাঙ্গন পরিদর্শন কালে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, এলাকার এমপির এক বছর আগের আর্থিক সহায়তার ঘোষণা বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন। রবিবার সকালে গণমাধ্যম কর্মীরা সরেজমিনে গেলে ভাঙ্গন কবলিত কপিলমুনি-হরিঢালীর চার গ্রামের সহায় সম্বল ঘর-বাড়ি হারানো বহু নারী পুরুষ জড়ো হয়ে তাদের দুঃখ কষ্টের বর্ণনা দেন। দীর্ঘ সময়ের ভাঙ্গনের কথা জানিয়ে মালথ গ্রামের মোহর মোড়ল (৬৫), বক্স মোড়ল (৭৭) জানান, নদের ভাঙ্গনে বাপ-দাদার ভিটে বাড়ি হারিয়ে রাস্তার ধারে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করতে হচ্ছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভাঙ্গনে দু’ইউনিয়নের মালথ, রামনাথপুর, দর্গামহল ও হাবিবনগর গ্রামের বাসিন্ধা জজ নুর ইসলাম সহ হাজারো পরিবারের শত শত বিঘার কৃষি জমি ও জনবসতি, সহায় সম্পদ নদের গর্ভে বিলীন হয়েছে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি ও প্রসাশনের লোকেরা বিভিন্ন সময় সহযোগিতার কথা বললেও তা কার্যকর হয়না। স্থানীয় সিদ্দিকুর রহমান জানান, ইতোমধ্যে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রশীদুজ্জামান ও ইউপি চেয়ারম্যান কওছার আলীর তত্বাবধানে ব্যবসায়ী মহল ও এলাকাবাসীর আর্থিক সহায়তায় কার্গো পাইলিং ইট বালি বল্লি বাঁশ বসিয়ে হুমকির সম্মুখিন আগরঘাটা বাজার ও পাইকগাছা- খুলনা মেইন সড়ক আপাতত রক্ষা পেয়েছে। চেয়ারম্যান কওছার আলী, হরিঢালী’র ৯ নং ওয়ার্ড সদস্য শেখ ফারুক হোসেন লাকী বলেন, জেলা পরিষদ সহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেও কোন সাড়া মেলেনি, এমনকি ভাঙ্গন প্রতিরোধে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ২ লাখ, স্থানীয় এমপি ১০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্ধের ঘোষনা দিলেও আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি। তারা অবিলম্বে এ ঘোষণা বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের শাখা কর্মকর্তা শহীদউল্লাহ মজুমদার, ভাঙ্গন এলাকা তাদের আয়ত্বের বাহিরে তবে তাঁদের ডিজাইন মতো সড়ক ও জনপদ বিভাগের অর্থ সহায়তায় ভাঙ্গন মোকাবেলার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন। পাইকগাছা-কয়রার সংসদ সদস্য শেখ মোঃ নুরুল হক পবিত্র হজব্রত পালনের সৌদি আরবে অবস্থান করায় এ বিষয়ে তাঁর মতামত গ্রহন করা সম্ভব হয়নি। খুলনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ সরকারের দৃষ্টি আকর্শনের জন্য সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে কপোতাক্ষ নদের ভাঙ্গন নিয়ে গণমাধ্যমে তুলে ধরতে বলেন, তবে তাঁর আর্থিক সহায়তার ঘোষনা স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here