পাইকগাছায় দুদকের গণশুনানির পর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে

0
256

বিভিন্ন দপ্তরের কর্মচারীরা উদ্বেগ-উৎকন্ঠার মধ্যে

বাবুল আক্তার, (পাইকগাছা): পাইকগাছায় সদ্য অনুষ্ঠেয় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর উন্মুক্ত গণশুনানিকে ঘিরে সেবা প্রদানকারী সরকারি-বেসরকারি দপ্তরসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। প্রাথমিক সাফল্যে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ সংশ্লিষ্টদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। এদিকে অনেকেই জানিয়েছেন, অভিযোগ দেয়ার পরও গণশুনানিতে তাদের অভিযোগগুলো উত্থাপন হয়নি। এ বিষয়ে দুদকের খুলনা বিভাগীয় উপ-পরিচালক মোঃ আবুল হোসেন জানিয়েছেন, সময় স্বল্পতার কারণে যে সব অভিযোগের শুনানি গ্রহণ করা হয়নি, সেগুলো তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবেন বলে জানিয়েছেন। পূর্ব ঘোষণা মতে, গত ৫ জুলাই পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফকরুল হাসানের সভাপতিত্বে শ’শ’ মানুষের উপস্থিতিতে দুদক, উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির আয়োজনে ও বিআইডিজি’র সহযোগিতায় দেশে ৫৮তম গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক আমিনুল আহসানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি দুদক (অনুসন্ধান) কমিশনার ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ মানুষের সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিত করতে দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য বিভিন্ন দপ্তরের কর্মচারীদের সাবধান করে বলেন, এ শুনানিতে কি অর্জন হলো তা আগস্ট মাসের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশবাসীকে জানানো হবে। ঐ গণশুনানিতে বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে সেবাপ্রদানকারী দপ্তর সমূহের মধ্যে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা কাজী আসাদুজ্জামান, সাব-রেজিস্ট্রার মোঃ আকবর আলি, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম মোঃ ফজলুর রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা প্রভাত কুমার দাশ, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জয়নাল আবদীন, হিসাবরক্ষণ অফিসার মুজিবুর রহমান সহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানদের বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ের উত্তরসহ করণীয় বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন। সভায়, ভূমি সংক্রান্ত কর-খাজনা আদায়ে অতিরিক্ত অর্থ গ্রহণ সম্পর্কে লস্কর ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা লতিফা খানম তার বিরুদ্ধে আনীত ১ম অভিযোগকারী পৌর বাসিন্দা আলহাজ্ব গণি সরদারের পুত্র জিয়াউর রহমানের অভিযোগ সম্পর্কে বলেন, খড়িয়া ঢেমসাখালী মৌজায় ৮৮৯, ৮৯০ খতিয়ানভূক্ত প্রায় ৪০ বিঘা সরকারি সম্পত্তি নিয়ে গণি সরদারের সাথে সরকারের সাথে উচ্চ আদালতে মামলা রয়েছে। এ কারণে সে সরকারী স্বার্থের বাইরে প্রলোভনের উর্দ্ধে উঠে রাজস্ব গ্রহণ করেননি। এছাড়া হিসাব বহির্ভূত প্রভাবশালী সম্পত্তির মালিকরা কৌশলে দীর্ঘদিন ধরে রাজস্ব ফাঁদি দিয়ে যেনতেন প্রকারে খাজনা রশিদ নিয়ে আসছিল। ফাঁকি দেয়া রাজস্ব আদায় করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে তার বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযোগ এনেছেন। গণশুনানিতে একাধিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোলাদানা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা শোকজ পূর্বক বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফকরুল হাসান সরকারের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন ও সেবার মান বাড়ানোর কথা উল্লেখ করে বলেন, বিভিন্ন দপ্তরের অভিযোগের তদন্ত সহ ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) নির্দিষ্ট সময়-সীমার মধ্যে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করবেন বলে জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here