পাইকগাছায় সরকারি রাস্তার কাজে বাঁধা সৃষ্টির পাঁয়তারা : থানায় অভিযোগ

0
246

চেয়ারম্যান-মেম্বরদের মামলায় জড়ানোর হুমকি

পাইকগাছা ব্যুরো : পাইকগাছায় সরকারি রাস্তার কাজে বাঁধা সৃষ্টির পাঁয়তারা। রাস্তা কেটে ক্যানেল বানিয়ে হাজার হাজার বিঘা চিংড়ি ঘেরে পানি বিক্রয়ের অভিযোগ। ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বরদের মামলায় জড়ানোর হুমকি। থানায় অভিযোগ। এ ঘটনায় এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জন গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তার চলমান সংস্কার প্রকল্পের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার জোর দাবী এলাকাবাসীর। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সরকারি কাজে বাঁধা প্রদানের অভিযোগ পেলে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার লক্ষ্মীখোলা এলাকায় স্কুলগামী শিক্ষার্থী ও জনসাধারণের চলাচলের সুবিধার্থে এলাকাবাসীর দাবী ও উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে লস্কর ইউনিয়ন পরিষদ কেওড়াতলা-হেতালবুনিয়া সংযোগস্থল সরকারি রাস্তায় (কেয়ার) দ্বিতীয় কর্মসৃজন প্রকল্পের অধীনে কাজ শুরু হয়েছে। স্থানীয় ৩নং ওয়ার্ড সদস্য তাজউদ্দীন এবং ২নং ওয়ার্ড সদস্য হাসানুজ্জামান সহ স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করেছেন, স্থানীয় প্রভাবশালী টুটুল কাগজী, ইকবাল কাগজী, জিনারুল ডাক্তার সহ কতিপয় ব্যক্তি প্রকল্পের কাজের বাঁধা সৃষ্টির পাঁয়তারা করে উল্টো চেয়ারম্যান-মেম্বরদের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দিচ্ছেন বলে তারা অভিযোগ করেছেন। ঘের মালিক শফি বিশ্বাস ও এলাকার আফছার মোল্যা, শফি গাজী, নুরজাহান, ফাহিমা বেগম জানান, প্রভাবশালী ব্যক্তিরা দীর্ঘদিন ধরে রাস্তা কেটে ক্যানেল সৃষ্টি করে সরকারি গেট দিয়ে পানি উত্তোলন করে বিঘা প্রতি ২শ থেকে ৩শ টাকা হারে চিংড়ি ঘেরে পানি বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। জানা গেছে, সংযোগ স্থলের বাঁধ দেওয়ায় প্রভাবশালী এ ব্যক্তিরা সুবিধাবঞ্চিতের আশংকায় পড়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দিচ্ছে। রাস্তার কাজে বাঁধার চেষ্টা ও মামলার হুমকির কথা স্বীকার করে লস্কর ইউপি চেয়ারম্যান কে,এম, আরিফুজ্জামান তুহিন জানিয়েছেন, এলাকাবাসীর দাবী, দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোঃ আব্দুল মালেক ঘটনাস্থলে পরিদর্শন কালে তার নির্দেশনায় এ রাস্তায় দ্বিতীয় কর্মসৃজন প্রকল্পের আওতায় এ কাজ করা হচ্ছে। এদিকে সরকারি রাস্তার বাঁধ কেটে ক্ষতিগ্রস্থ করার আশংকায় স্থানীয় ইউপি সদস্য জি,এম, তাজউদ্দীন মঙ্গলবার থানায় একটি অভিযোগ করেছেন বলে জানা গেছে। মৌখিক অভিযোগের কথা স্বীকার করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার রায় জানান, যারা সরকারি কাজে বাঁধা সৃষ্টি করবে তাদেরকে চি‎িহ্নত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here