পাবলিক টয়লেটে পরিনত হয়েছে মুজিবনগর সরকারের প্রথম জনসভার মঞ্চটি , সংস্কারের কথা দিলেন ডিসি আশরাফ উদ্দিন

0
785

ডি এইচ দিলসান :  যশোর টাউন হল ময়দানে অবস্থিত “স্বাধীনতা উন্মুক্ত মঞ্চটি” পড়ে আছে অবহেলা আর অযত্নে। মঞ্চটি পরিনত হয়েছে ময়লার ভাগাড়ে। যদিও ১৯৭১ সালেল ১১ই ডিসেম্বর এই মঞ্চে পাক হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মুক্ত যশোরের মাটিতে ভাষণ দিয়েছিলেন মুজিবনগর সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ ও রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ।এবং সেই জনসভাই ছিলো স্বাধীন বাংলার প্রথম বিজয় সমাবেশ।

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে মঞ্চটি চারপাশ এখন সাধারন মানুষ পাবলিক টয়েলেট হিসবে ব্যবহার করছে। ওই এলাকার মানুষ ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উচ্ছিষ্ট ময়লা আবর্জনা ফেলে ময়লার স্তুপ তৈরি হয়েছে মঞ্চটি।

অন্যদিকে মঞ্চের ছাদে এবং পাশদিয়ে জমেছে ঘন আগাছা, যা দেখলে সহজেই মনে হবে নিদারুন অযত্নে গুমড়ে কাদছে স্বাধীন বাংলার প্রথম বিজয় সমাবেশের সেই মুজিবনগর সরকার।

মুক্ত বাংলার প্রথম এ জনসভায় প্রবাসী সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, ‘আর ধ্বংস নয়, যুদ্ধ নয়। এই মুহূর্তে কাজ হলো যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়ে তোলা।’ সেদিন তিনি সর্বস্তরের মানুষকে স্বাধীনতা যুদ্ধের চেতনায় দেশ পুনর্গঠনে আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, “স্বাধীন এই দেশে ধর্ম নিয়ে আর রাজনীতি চলবে না। আর তাই জামায়াতে ইসলামী, মুসলিম লীগ ও নেজামে ইসলামকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলো”।

জনসভায় আরো উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য ফণিভূষণ মজুমদার, মরহুম রওশন আলী, মরহুম মোশাররফ হোসেন, মরহুম তবিবর রহমান সরদার, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত ‘চরমপত্র’ পাঠকএম.আর. আখতার মুকুল , ভারতীয় বেতার কেন্দ্র আকাশবাণীর প্রতিনিধি উপেন তরফদারএবং স্বাধীনতার পর নিখোঁজ সাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র পরিচালক জহির রায়হান।

মুক্ত স্বদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত প্রথম এ জনসভার খবর সংগ্রহের জন্য উপস্থিত ছিলেন লন্ডনের ডেইলি টেলিগ্রাফ পত্রিকার সাংবাদিক পিটার গিল, নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকার সিডনি এসএইচ সানবার্গ, ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিনিধিসহ বহু বিদেশি সাংবাদিক।

এর আগ ১৯৭১ সালের ০৬ ডিসেম্বর যশোরে সকালে ও দুপুরে পাকিস্তানের নবম ডিভিশনের সঙ্গে ভারতীয় নবম পদাতিক ও চতুর্থ মাউন্টেন ডিভিশনের প্রচণ্ড লড়াই হয়। বিকেলেই পাকিস্তানি সেনা কর্মকর্তারা বুঝে যান, যশোর দুর্গ আর কোনোভাবেই রক্ষা করা সম্ভব নয়।

‘প্রাচ্যের স্টালিনগ্রাড’ খ্যাত যশোর সেনানিবাসের পতন হওয়ার পরই পাকিস্তানিদের মনোবল ভেঙে চুরমার হয়ে যায়। এ দুর্গের পতনের পরই পূর্বাঞ্চলের সেনাধ্যক্ষ নিয়াজির অভিমত উদ্ধৃত করে এক বার্তায় বলা হয়, ‘যশোরের বিপর্যয়ের ফলে প্রদেশের পশ্চিমাঞ্চলের পতন প্রায় আসন্ন …। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রতিশ্রুত বৈদেশিক সাহায্য পাওয়া না গেলে জীবনরক্ষার জন্য বরং ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারে আলোচনা শুরু করা বাঞ্ছনীয়।’

এদিনই বেনাপোল অঞ্চলে দায়িত্বরত লে. কর্নেল শামসকে নওয়াপাড়ার দিকে দ্রুত সরে যাওয়ার নির্দেশ দেন ব্রিগেডিয়ার হায়াত। আর নিজের ব্রিগেড নিয়ে রাতের আঁধারে খুব গোপনে যশোর ক্যান্টনমেন্ট থেকে তিনি পালিয়ে যান খুলনার দিকে।

৭ ডিসেম্বর ভোরে ৮ নাম্বার সেক্টরের অধিনায়ক মেজর মঞ্জুর মিত্র বাহিনীর নবম ডিভিশনের কমান্ডার মেজর জেনারেল দলবীর সিং যশোরে প্রবেশ করেন। এরপর ১১ ডিসেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদ পেট্রাপোল-বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করে যশোরে আসেন।

এদিন বিকেলে মিত্র বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল বারাতের নেতৃত্বে মিত্র ও মুক্তি বাহিনী সেনানিবাসে প্রবেশ করে দখল নেয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মুক্তির আনন্দে উচ্ছাসিত মুক্তিযোদ্ধা-জনতার ঢল নামে শহরে। পাড়া মহল্লায়ও চলে খণ্ড খণ্ড আনন্দ মিছিল।

মুক্তির আনন্দে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে ফেটে পড়ে গোটা জেলার মানুষ। এরপর ১১ ডিসেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ পেট্রাপোল-বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করে যশোরে আসেন।

প্রবাসী সরকারের প্রথম জনসভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কারণে মঞ্চটি ইতিহাসের অংশ হয়ে রয়েছে। স্বাধীনতার স্মারক বহনকারী ও ঐতিহাসিক মঞ্চটি যশোর ইনস্টিটিউট সংস্কারের উদ্যোগ নিলেও শেষ পর্যন্ত দেখেনি আলোর মুখ।

এ ব্যাপারে যশোর জেলা প্রশাসক ও যশোর ইনস্টিটিউট সভাপতি আশরাফ উদ্দিন, ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, “স্বাধীনতা উন্মুক্ত মঞ্চটি” সংস্কারের জন্য ইতমধ্যে সিদ্ধান্ত হয়েছে, খুব দ্রুতই আমরা কাজে হাত দিবো। তিনি বলেন আমরা অবশ্যয় স্বাধীনতার স্মারক বহনকারী ও ঐতিহাসিক মঞ্চটি সংস্কার করে সুন্দর করবো।

এ দিকে ১১ ডিসেম্বর প্রবাসী সরকারের প্রথম জনসভাকে স্বরন করে এবং নত্রন প্রজন্মকে স্বাধীনতার স্মারক বহনকারী ও ঐতিহাসিক মঞ্চটির গুরুত্ব সম্পর্কে জানানোর জন্য পতাকা র‌্যালি, আলোচনা সভা এবং মোমবাতি প্রজ্জ্বোলনের অনুষ্ঠান করবে যশোরবাসী সমন্বয় কমিটি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here