পুলিশ প্রহরায় প্রায় ৪ কোটি টাকা অর্থ বাণিজ্যের ৪৫ বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগে ফলাফল ঘোষনা

0
264

বাথরুমে ৪০ মিনিট পালিয়ে রক্ষা পেলেন না শিক্ষা অফিসার

উত্তম চক্রবর্ত্তী,মণিরামপুর : ফলাফল প্রকাশ না করে পালানোর চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে অবশেষে নানা নাটকীয়তার পর পুলিশ প্রহরায় মণিরামপুরের ৪৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আলোচিত দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগের চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ ফলাফল ঘোষণা করেন নিয়োগ কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আশীষ কুমার নন্দী। নিয়োগ কমিটি কর্তৃক প্রায় ৪ কোটি টাকা অর্থ বাণিজ্যের মাধ্যমে এ নিয়োগ সংক্রান্ত দূর্নীতি-অনিয়মের ঘটনা গত ১৫ জুলাই দৈনিক সময়ের খবরসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফলাও ভাবে তথ্য বহুল সংবাদ প্রকাশিত হয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, অফিস কর্তৃপক্ষের আহবানে ৪৫ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণ গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টার পর থেকে শিক্ষা অফিস চত্ত্বরে অবস্থান করেন। এক পর্যায় বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে অফিসের প্রধান সহকারি সরোজিৎ কুমার রায়কে নিয়ে শিক্ষা অফিসার আশীষ কুমার নন্দী অফিসে আসেন। মজার বিষয় হচ্ছে শিক্ষা অফিসার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে অফিসে প্রবেশ করা মাত্রই বিক্ষুব্ধ অপেক্ষমান ফল প্রত্যাশীদের তোপের মূখে পড়েন। এক পর্যায় জনৈক শিক্ষক আব্দুল আলীমের মোটরসাইকেলে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করেন তিনি। পরে জনরোষে পড়ে অফিস কক্ষের বাথরুমে প্রায় চল্লিশ মিনিট ওই শিক্ষা কর্মকর্তা আত্মগোপনে থাকেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। খবর পেয়ে থানার ওসি মোকাররম হোসেনের নেতৃত্বে ২০/২৫ জনের পুলিশের একটি দল সেখানে হাজির হন। এসময় শিক্ষা অফিসার বাথরুম থেকে বের হয়ে পুলিশ প্রহরায় ফলাফল প্রকাশ করেন। ফল প্রত্যাশী ও উৎসুক জনতার সামনে শিক্ষা অফিসার আশীষ কুমার নন্দী বলেন, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি বিদায়ী ইউএনও মোহাম্মদ অতুল মন্ডলের নির্দেশে তিনি পুনরায় ফল প্রকাশের জন্য এসেছেন। এক পর্যায় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে আশীষ কুমার নন্দী জানান, ইউএনও মোহাম্মদ অতুল মন্ডল বদলী হয়ে চলে গেলেও তিনি ব্যাক ডেটে নিয়োগ সংক্রান্ত সকল কাগজপত্রে স্বাক্ষর করে যান। পরে ওই স্বাক্ষরিত ফলাফলই তিনি প্রকাশ করেন। এ নিয়োগে প্রায় ৪ কোটি টাকার অর্থ বানিজ্য করা হয়েছে -এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দুর্নীতির বিষয়টি তার জানা নেই। বিষয়টি নিয়ে সদ্য বিদায়ী ইউএনও মোহাম্মদ অতুল মন্ডলের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর (০১৭১১৯৭৭৭১১)-এ একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি। উল্লেখ্য, গত ২২ জুন আবেদন চেয়ে উপজেলার ৪৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগের সার্কুলার দেয়া হয়। পরে অজ্ঞাত কারনে একটি বিদ্যালয়ের নিয়োগ স্থগিত করা যায়। এতে আবেদনের শেষ তারিখ দেয়া হয় ২৮ জুন। যার আবেদন পত্র যাচাই-বাছাই ২২-২৯ জুন, প্রবেশ পত্র ইস্যু ২৯ জুন, মৌখিক পরীক্ষা ২-৩ জুলাই, ফলাফল প্রকাশ ৩ জুলাই এবং নিয়োগপত্র ইস্যুকরণ ৫ জুলাই নির্ধারন করা হয়। কিন্ত দপ্তরী কাম প্রহরীর নিয়োগের পরিপত্র অনুযায়ী আবেদনের সময় সীমা ১৫ দিন থাকার কারনে ওই আবেদনের সময় ৬ জুলাই পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। কিন্তু এখানে যাচাই-বাছাইয়ের কোন দিনক্ষন নির্ধারন করা হয়নি। এমনকি চাকরী প্রত্যাশীদের সাক্ষাকারের পত্রও ইস্যু করণের কোন তারিখ নির্ধারন করা হয়নি। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ওই নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি সদ্য বিদায়ী ইউএনও অতুল মন্ডলের বদলীর আদেশের প্রেক্ষিতে তড়িঘড়ি করে নিয়োগ বোর্ড করতেই এমন অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হয় বলে অভিযোগ। বিষয়টি নিয়ে আবু জাফর, আব্দুল আজিজসহ একাধিক ব্যক্তি বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন। এদিকে এ নিয়োগ নিয়ে প্রার্থীদের কাছ থেকে প্রায় ৪ কোটি টাকা অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ উঠে নিয়োগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশিত হলে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here