বর্ষাকালে, বৃষ্টি নেই বিপদে আছে রাজগঞ্জের আমন চাষিরা

0
45

উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর(যশোর)অফিস : পশ্চিম মণিরামপুর তথা রাজগঞ্জ এলাকায় বৃষ্টির পানির অভাবে চলতি আমন ধানের চারা রোপন কার্যক্রম মুখথুপড়ে পড়েছে। পানির জন্য কৃষকদের মাঝে দেখা দিয়েছে হাহাকার। বর্ষাকালের আষাঢ়-শ্রাবণ মাসেও বৃষ্টির দেখা নেই। প্রচন্ড রোদ আর খরার কবলে পড়ে বাধ্য হয়েই জমিতে কৃষকেরা স্যালোম্যাশিন দ্বারা পানি তুলে জমিতে ধানের চারা রোপনের উপযোগি করে তুলছে। এতে কৃষকদের বাড়তি শ্রমসহ গুনতে হচ্ছে বাড়তি খরচও। ফলে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থও হচ্ছেন কৃষকেরা।
বুধবার সকালে রাজগঞ্জের বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, মাঠে ধান রোপনের জন্য পর্যাপ্ত পানি নেই। অনেক মাঠ পানির অভাবে ফেটে গেছে। সেই মাঠে স্যালোম্যাশিন চালিয়ে পানি তোলা হচ্ছে। এর জন্য স্যালোম্যাশিন মালিকদের ঘন্টা চুক্তি হারে গুনতে হচ্ছে টাকা। ফলে কৃষকেরা আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।
একদিকে ধানের দাম কম, অন্যদিকে, সার-কীটনাশকের দাম বেশি, এরপর পানি কিনে আমন ধান চাষ করতে হলে লোকসানের পরিমাণটা অনেক বেশিই হবে বলে হতাশা প্রকাশ করেন কৃষকেরা।
কথা হয় রাজগঞ্জের হানুয়ার গ্রামের কৃষক সমশের আলীর সাথে। তিনি বলেন, আমাদের এলাকার কৃষকরা সাধারণতো ইরি-বোরো, আউশ ও আমন এই তিনটি ধান চাষের মওসুম পাই। ইরি-বোরো ধান চাষ করতে হয় শীতের সময়। তাই ইরি-বোরো চাষ করতে হয় স্যালোম্যাশিনের পানি দিয়ে। ফলে খরচ হয় অনেক। বৃষ্টি না হওয়ার কারণে আউশ ধান চাষ এখন আর বেশি একটা হয় না। তাই লাভের আশা করতে হয় আমন চাষে। কিন্তু চলতি বছরে আষাঢ়-শ্রাবণ মাসেও বৃষ্টির দেখা নেই। তাই ধান রোপনে খুব বিপদে আছি।
ঝাঁপা গ্রামের কৃষক খলিল, হায়বাত আলী, আমজেদ আলীসহ আরো কয়েকজন জানান, খুব কষ্ট করে সেচের পানি দিয়ে আমন ধানের চারা রোপনের জন্য জমি প্রস্তুত করছি শুধু লাভের আশায়।
স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, যেহেতু বৃষ্টি হচ্ছে না, সেক্ষেত্রে স্যালোম্যাশিনের পানির উপর ভরসা করেই ধান চাষ করতে হবে। তাতে খরচ একটু বেশিই হবে। এবছর পশ্চিম মণিরামপুর তথা প্রস্তাবিত রাজগঞ্জ উপজেলার রোহিতা, হরিহরনগর, খেদাপাড়া, ঝাঁপা, মশ্বিমনগর ও চালুয়াহাটী এই ৬টি ইউনিয়নে আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৮ হাজার হেক্টর। আশা করি লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here