বিলুপ্তির পথে গ্রামের পরিচিত ডেউয়া ফল

0
518

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর): নির্বিচারে বৃক্ষ নিধন ও বন উজাড়ের কারণে যশোরের মনিরামপুর থেকে বিলুপ্ত হতে চলেছে টক-মিষ্টি স্বাদের ‘ডেউয়া’ ফল। গৃহস্থ পরিবারের পরিত্যাক্ত জমিতে ঝোপ-ঝাড়ের মধ্যে প্রাকৃতিকভাবে জন্মাতো ডেউয়া গাছ। ডেউয়া গাছের বৈজ্ঞানিক নাম অৎঃড়পধৎঢ়ঁং ষধপঁপযধ বা অৎঃড়পধৎঢ়ঁং ষধশড়ড়পযধ জড়ীন. এবং ইংরেজি নাম ‘গড়হশবু ঔধপশ’। দেশের এলাকাভেদে এটি ঢেউয়া, ডেলোমাদার, ডেউফল বা ঢেউফল নামে পরিচিত।
উপজেলা কৃষি অফিসার সুশানÍ কুমার তরফদার বলেন, বর্তমানে বানিজ্যিকভাবে ফলের আবাদ করতে গিয়ে এ ধরনের অপ্রচলিত ফল হারিয়ে যেতে বসেছে। তবে, ডেউয়া অত্যনÍ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ উলে¬খ করে তিনি আরো বলেন, কাঁঠাল জাতীয় ফলের মত এই ফলে কোয়া  (কোষ) থাকে। সাধারনত ফেব্রুয়ারি (ফাল্গুন) মাসে একটি পরিপূর্ণ গাছে ফুল আসে এবং জুন (আষাঢ়) মাসে ফল পাকতে শুরু করে। যা পাকলে বীজের গায়ে জড়ানো রসালো অংশ খেতে হয়। কোন বালাই নাশক ছাড়াই এই ফলের গাছ সহজেই জন্মে।
যশোর মণিরামপুর উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের কৃষিতে রাষ্ট্রপ্রতি পুরষ্কার প্রাপ্ত সাবেক ইউপি সদস্য নিভা রানী বিশ্বাস বলেন, তাদের পরিত্যাক্ত জমিতে এক সময় প্রচুর ডেউয়া গাছ ছিল। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে গ্রামাঞ্চলের অতি পরিচিত এই গাছটি আজ বিলুপ্তির পথে। বর্তমানে তার বাড়িতে একটি গাছে অনেক ডেউয়া ফল ধরেছে। এটি কাঁচা অবস্থায় সবুজ এবং পাকলে লালচে হলদে।
মণিরামপুর হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ অরূপ জ্যোতি ঘোষ বলেন, ডেউয়া ফল ভিটামিন ‘সি’ ,ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, লৌহ ও জিংক সমৃদ্ধ।
সরকারি ইউনানী এন্ড আয়ূর্বেদিক মেডিকেল কলেজ, মিরপুর-ঢাকার সিনিয়র শিক্ষক ও  টাঙ্গাইল আড়াইশ’ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মসলিম উদ্দিন বলেন, একটি মাঝারি সাইজের ডেউয়া ফলে ৭৩ কিলোক্যালরি শক্তি থাকে। এর মধ্যে ফসফরাস ২৫% ও ক্যালসিয়াম ৬৭% মিলিগ্রাম, মিনারেল ১ গ্রাম, চর্বি ১ গ্রাম, প্রোটিন ২ গ্রাম, আঁশ ৩ গ্রাম এবং আদ্রতা ৯০গ্রাম। কাঁচা ডেউয়া টক, ক্ষুধা দূর করে। পাকা ডেউয়া ক্ষুধার্বধক । এ ফলের খাদ্য আঁশ পিত্ত ও যকৃতের উপকারি। চুল পড়া প্রতিরোধ, চুল বৃদ্ধি, সন্ধিবাত ফোলায় উপকার করে। এছাড়া চর্মরোগ, কলেরা রোগের উপশম ছাড়াও রক্ত চলাচল, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ এবং হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here