বিষাদের ছায়ার মধ্যে সারা দেশে ঈদ উদযাপন

0
224

ডি এইচ দিলসান :দেশ যখন হাওড়ের মড়ক আর পাহাড়ের কান্নায় প্লাবিত তখন একমাস সিয়াম সাধনার পর সারা দেশে যথাযথ ধর্মীয় ভাবমার্যাদা ও উৎসবের মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর পালন করছেন। সকালে সরবত, সেমাই, মিষ্টি খাবার খেয়ে দিনের শুরু হয়। এর পর সামর্থ্য অনুযায়ী নতুন জামাকাপড় পরে শিশু, কিশোর, যুবকসহ সর্বস্তরের মানুষ ঈদগাহ, মসজিদ ও উন্মুক্ত স্থানে ঈদের নামাজে অংশ নেন।

ঈদের নামাজ শেষে ব্যক্তি, পরিবার, স্বজনসহ দেশবাসী তথা মুসলিম উম্মাহর মঙ্গল কামনা করে আল্লাহার দরবারে মোনাজাত করেন মুসল্লিরা। একই সাথে বাংলাদেশের সমৃদ্ধি ও বিশ্বশান্তি কামনা করেও প্রার্থনা করা হয়।

ঈদের দিন বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাষ থাকলেও রাজধানী ঢাকাসহ অনেক জায়গায় সূর্যালোকিত সকালে ঈদগাহ, মসজিদ ও খোলা মাঠেও মুসল্লিদের উপচে পড়া ভীড় দেখা গেছে। তবে ঢাকার বাইরে আনেক স্থানে বৃষ্টির কারণে ঈদ উৎসব কিছুটা হলেও ব্যহত হয়েছে।

ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে রাজধানীতে সকালে জাতীয় ঈদগাহে প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এই জামাতে নামাজ আদায় করেন প্রেসিডেন্ট মো.আবদুল হামিদ। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, মন্ত্রিসভার সদস্য, কূটনীতিক, সরকারি কর্মকর্তাসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন।

ঈদের নামাজ পড়তে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদেও মুসল্লিদের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায়। পাঁচটি জামাতের ব্যবস্থা করা হয় এখানে। এর মধ্যে সকাল সাতটায় প্রথম এবং এর এক ঘণ্টা পর সকাল আটটায় দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

গত ঈদুল ফিতরে জঙ্গি হামলার পর এবছর কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দেশের সর্ববৃহত ঈদ জামায়াত আনুষ্ঠিত হয় কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহে। রেওয়াজ অনুযায়ী নামাজ শুরুর পাঁচ মিনিট আগে ৩টি, তিন মিনিট আগে ২টি ও এক মিনিট আগে ১টি বন্দুকের গুলি ছুড়ে সমবেত মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের প্রস্তুতির জন্য সংকেত দেয়া হয়। এ বছর জামাতে ইমামতি করেন বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ।

এছাড়া, দেশের বিভাগীয় শহর, জেলা শহর, উপজেলা, ইউনিয়ন ও পাড়া মহল্লায় ঈদগাহ ও মসজিদে ঈদের জামায়াতে অংশ নিয়ে অল্লাহর নিকট রহমত ও বরকত কামনা করে বিশেষ মোনাত করেন মুসল্লিরা।

চিরাচরিত নিয়ম অনুযায়ী নামাজ শেষে ভ্রাতৃত্বের কোলাকুলি, কুশল বিনিময় এবং আত্মীয়-স্বজন,পাড়া-প্রতিবেশীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন ধনী-গরিব নির্বিশেষে সব স্তরের মানুষ। নতুন পোশাকে শিশু কিশোরদের মধ্যে উৎসবের আনন্দ ছিল সবচেয়ে বেশী। ঈদে মুরুব্বিদের কাছ থেকে সেলামি গ্রহণ, তারপর নতুন পেষাকে দলেবলে ঘুরে বেড়ানো বা বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ছুটে যাওয়ায় কেটেছে তাদের ঈদের দিনের বাকি সময়।

ঈদের দিন দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল, কারাগার, সরকারি শিশুসদন, ছোটমণি নিবাস, সামাজিক প্রতিবন্ধী কেন্দ্র, আশ্রয়কেন্দ্র, ভবঘুরে কল্যাণকেন্দ্র ও দুঃস্থ কল্যাণকেন্দ্রগুলোতে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।

তবে এর মাঝেও বিষাদের ছায়া অনেকের ঈদকে ম্লান করে রেখেছিল। বিশেষ করে হাওড়ের সাম্প্রতিক বন্যা ও পাহাড়ে ভূমিধসে স্বজন হারা- গৃহহারাদের মাঝে এবারের ঈদ কোনো আনন্দ নিয়ে আসতে পারেনি।

এ প্রসঙ্গে বন্যাদূর্গত সুনামগঞ্জের অধিবাসী এবং সাংবাদিক হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী জানান, দুর্গত হাওরবাসীদের মাঝে এবার আনন্দ নেই। তাছাড়া সিলেট বিভাগীয় শহরেও এবার উৎসবের আমেজ কম দেখা গেছে। অর্থিক মন্দার কারণে এবারের ঈদ উপলক্ষে প্রবাসীরাও কম এসেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here