ব্রিটেনে এখন সরকার গঠন করবে কারা

0
192

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক : ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচনে আসন সংখ্যার দিক দিয়ে লেবারদের চেয়ে কনজারভেটিভরা এগিয়ে থাকলেও কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠা অর্জনে সক্ষম হয়নি। ফলে প্রশ্ন উঠেছে, এখন সরকার গঠন করবে কে। সাধারণত যে দল থেকে সবচেয়ে বেশি এমপি জয়ী হবেন সেই দলই সরকার গঠন করবে। কিন্তু হাউস অফ কমন্সে কোনো দলই স্পষ্ট সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় সেটা হবে না। দ্বিতীয় স্থানে থাকা লেবাররাও অন্য দলের সহযোগিতায় সরকার গঠন করতে পারে।

সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে ৬৫০টি আসনে মোট ৩২৬টি আসনে জিততে হবে। ৩২৬টি আসন পেলে সংসদে সেই দল নতুন আইন প্রণয়নের ক্ষমতা অর্জন করে। কোনো দল যদি এককভাবে ৩২৬টি আসন না পায়, তাহলে সেটা হবে ‘ঝুলন্ত পার্লামেন্ট’ অর্থাৎ একাধিক দলকে জোটবদ্ধভাবে ৩২৬টি আসন পেতে হবে। যেটা হয়েছিল ২০১০-এর সাধারণ নির্বাচনে।

ঝুলন্ত পার্লামেন্ট হলে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় থাকবেন এবং ডাউনিং স্ট্রিটেই বসবাস করবেন যতক্ষণ না কারা নতুন সরকার গঠন করবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। এক্ষেত্রে দলের নেতাদের মধ্যে দফায় দফায় বৈঠক চলবে। তারা চেষ্টা করবে জোট গঠন করে একটা সরকার গঠন করতে অথবা কনজারভেটিভ দলের নেতা থেরেসা মে অথবা লেবার নেতা জেরেমি করবিনকে প্রধানমন্ত্রী করে হয়ত কোনো একটা সমাঝোতার ভিত্তিতে সরকার গঠন করতে। অথবা দুই দলের মধ্যে কোনো একটি দলের নেতা সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে তারা সংখ্যালঘু সরকার গঠন করবেন এই ভিত্তিতে যে যখন সংসদে আইন পাশ করতে হবে, তখন ছোট দলগুলোর সমর্থন তারা নিশ্চিতভাবে পাবেন।

থেরেসা মে-কে প্রথমে সরকার গঠনের সুযোগ দেওয়া হবে এবং দেন-দরবার চলাকালীন তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ক্ষমতায় থাকবেন। এটা যদি স্পষ্ট হয় তিনি এই চেষ্টায় ব্যর্থ হয়েছেন, এবং জেরেমি করবিন সফল হয়েছে তাহলে থেরেসা মে-কে পদত্যাগ করতে হবে। তবে থেরেসা মে তার প্রয়াস চালানোর পাশাপাশি জেরেমি করবিনও এই চেষ্টা চালিয়ে যেতে পারবেন। মে-র সামনে যত বিকল্প আছে সব তিনি চেষ্টা করার পরই যে করবিন আলোচনা শুরু করতে পারবেন, তা নয়। তারা একই সঙ্গে অন্য দলগুলোর সঙ্গে দর-কষাকষি, দেন-দরবার চালিয়ে যেতে পারবেন।

এই প্রক্রিয়া শেষ করার কোনো ধরাবাঁধা সময়সীমা নেই। ২০১০ এর নির্বাচনে একটা জোট গঠনের জন্য পাঁচ দিন সময় লেগেছিল, তবে সাধারণত এই আলোচনা ও দরকষাকষিতে আরও বেশি সময় লাগে। প্রথম দফায় চূড়ান্ত সময়সীমা দেওয়া হবে ১৩ জুন পর্যন্ত। নতুন সংসদ শুরু হবে সেইদিন। থেরেসা মে-কে ক্ষমতায় থাকতে হলে ১৩ জুনের মধ্যে একটা সমঝোতা সম্পন্ন করতে হবে। তবে থেরেসা মে-কে নিশ্চিত হতে হবে যে জেরেমি করবিন এই সমঝোতা করতে পারছেন আর তিনি পারছেন না।

সমঝোতায় আসতে না পারলে দুই দলের জন্য একমাত্র পরীক্ষা হলো সংসদে কোনো নতুন আইন পাশ করানোর জন্য প্রয়োজনীয় ভোট তাদের আছে সেটা প্রমাণ করা। ১৯ জুন রানি তার ভাষণের মাধ্যমে সংসদের অধিবেশন শুরু করবেন।

২০১০ সালের চেয়ে এবারে অন্য দলের সঙ্গে জোট গঠন করে কোয়ালিশনের এই সম্ভাবনা বেশি। এটা নির্ভর করছে ৪টি বিষয়ের ওপর: যে দলগুলো কোয়ালিশনে থাকছে কার্যকর সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য তাদের যথেষ্ট এমপি জয়ী হয়েছেন কি না। সবচেয়ে বড় দল এই জোট গড়তে চায় কি না অথবা তারা সংখ্যালঘু সরকার হিসাবে একাই সরকার গঠন করতে চায় কি না। যে দলগুলোর এই কোয়ালিশনে থাকার সম্ভাবনা, তারা তাদের দলকে নিশ্চিতভাবে বোঝাতে পারবে কিনা যে এটা দলের জন্য ভাল। কোয়ালিশনের সম্ভাব্য দলগুলো মনে করে কি না যে বিভিন্ন নীতিতে তাদের সহমতের জায়গা রয়েছে অথবা তাদের কোনো কোনো নীতিতে ছাড় দিয়েও তারা কোয়ালিশনে কাজ করতে পারবে।

কনজারভেটিভ ও লেবার সংখ্যালঘুর সরকারে তাদের এমপিরাই সব মন্ত্রী পদে থাকবে। তবে অন্য দলের এমপিদের ভোট ছাড়া তারা সংসদে নতুন কোনো আইন পাশ করতে পারবে না। ব্রিটেনে অতীতেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেয়ে সরকার গঠনের নজির আছে। তবে এধরণের সরকার তেমন স্থায়ী বা সফল হয় না। ২০০৭ এবং ২০১১ সালে স্কটল্যান্ডে সংখ্যালঘু সরকার ক্ষমতায় ছিল। কিন্তু এ ধরনের সরকার কার্যকরভাবে পরিচালনা কঠিন, কারণ সবরকম আইন পাশের জন্য ছোট দলগুলোর সঙ্গে অনবরত দেন-দরবার করতে হয়, যেটা খুব সহজ নয়। সূত্র : বিবিসি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here