ভারতের ইউরেনিয়াম খনি খননের ফলে এর থেকে নিঃসৃত ইউরেনিয়াম পানিতে মিশে বাংলাদেশের ফসল ও জলজ প্রাণীর মড়ক !

0
332

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কেন্দ্রের রসায়ন বিভাগের প্রধান ড. বিলকিস আরা বেগম গণমাধ্যমকে বলেছেন, “ভারত থেকে ইউরেনিয়াম মিশ্রিত পানি বাংলাদেশের হাওরগুলোতে আসার সম্ভাবনা অনেক। আর যদি তাই ঘটে তাহলে তা আমাদের জন্যে অনেক বিপদজনক হবে।” তবে কোনো পরীক্ষা না করে সিদ্ধান্ত দেওয়া ঠিক নয় বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

এছাড়া, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের সিলেট ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম বলেছেন, “হাওর অঞ্চলে জলজপ্রাণীদের এমন অস্বাভাবিক মৃত্যুর সঙ্গে (ইউরেনিয়ামের) বিষয়টির সংযোগ থাকতে পারে। যদি ইউরেনিয়াম মিশ্রিত পানি হাওরে এসে পড়ে তাহলে তা আমাদের জন্যে ভয়াবহ বিপর্যয় ডেকে আনবে।”

সম্প্রতি বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বে সিলেট অঞ্চলে হাওরে মাছ, ব্যাঙ ও হাঁসের মৃত্যু ঘটেছে। এর ফলে সেখানকার জনমনে বেশ আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। কেন জলজপ্রাণী মারা যাচ্ছে তা নিয়ে আলোচনা চলছে। কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন, ভারতের মেঘালয় রাজ্যের ইউরেনিয়াম খনি থেকে বিষাক্ত উপাদান হয়তো বন্যার পানিতে মিশেছে এবং ওই পানি হাওরে এসে জমেছে। বাংলাদেশের সীমান্ত থেকে মাত্র তিন কিলোমিটার দূরে ভারতের মেঘালয় রাজ্যে রয়েছে ওপেনপিট ইউরেনিয়াম খনি।

গত মার্চে আকস্মিক বৃষ্টি ও মেঘালয় থেকে আসা পাহাড়ি ঢলের ফলে সুনামগঞ্জ এবং মৌলভীবাজারের হাওর এলাকা প্লাবিত হওয়ায় সেইসব অঞ্চলে ধান নষ্ট হয়। চাষিদের ফসল নষ্ট হওয়ার পর হাওরের মাছ, ব্যাঙ এমনকি হাঁসের মড়ক তাঁদের আতঙ্ককে বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

ভারতের ইউরেনিয়াম খনির সঙ্গে হাওরের জলজপ্রাণীর মৃত্যুর সম্পর্ক থাকার আশঙ্কার একটি বড় কারণ হলো, মেঘালয়েই সেখানকার ইউরেনিয়ামের মাধ্যমে পানি দূষণের অভিযোগ উঠেছে।

গত ডিসেম্বরে মেঘালয়ের স্থানীয় খাসি জনগোষ্ঠী সেই এলাকার রানিকর নদীর পানির রঙ নীল থেকে বদলে সবুজ হয়ে যেতে দেখেন। এর প্রেক্ষিতে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি খাসি স্টুডেন্ট ইউনিয়ন (কেএসইউ) একটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করে। সংগঠনটি সেই নদীর মাছ মরে যাওয়ার বিষয়টিও উল্লেখ করে। এমনকি, জলজপ্রাণীহীন নদীটি এখন মৃত-প্রায় বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

খাসি নেতা মারকনি থঙনি সাংবাদিকদের বলেন, “আমাদের সন্দেহ ইউরেনিয়াম খনি খননের ফলে এর থেকে নিঃসৃত ইউরেনিয়াম পানিতে মিশে নদীর পানির রঙ বদলে গেছে এবং নদীর মাছ মরে গেছে।”

অবশ্য মেঘালয় রাজ্য সরকার বলছে, তাদের দেশে মাছ মারা যাওয়ার ঘটনাটির সঙ্গে ইউরেনিয়াম খনির কোনো সম্পর্ক নেই। রাজ্যের উপ-মুখ্যমন্ত্রী বিন্দো এম লানোঙ বলেন, “যদি তাই হতো তাহলে অন্যান্য জলজ প্রাণীগুলোও মারা যেত।”

ভারতের যে নদীর পানিতে ইউরেনিয়াম মিশে যাওয়ার অভিযোগ করা হচ্ছে, সেটি বাংলাদেশের সুনামগঞ্জের তাহেরপুর উপজেলার জাদুকাটা নদী থেকে মাত্র তিন কিলোমিটার দূরে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here