মণিরামপুরে আলোচিত ব্যবসায়ী পরিমল হত্যাকান্ডের ১৮ দিন অতিবাহিত

0
200

ফাঁসি চাই লেখা কালো ব্যানার টানিয়ে ব্যবসায়ীদের শোক অব্যাহত

উত্তম চক্রবর্ত্তী,মণিরামপুর : যশোরের মণিরামপুরে আলোচিত ব্যবসায়ী পরিমল পাল (৪৪) হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত খুনিরা চিহ্নিত, কিন্তু তাদেরকে পাওয়া যাচ্ছে না পুলিশের এমন বক্তব্যে হতবাক হয়েছেন ব্যবসায়ী মহলসহ গোটা মণিরামপুরবাসী। এ হত্যাকান্ডের ১৮ দিন পার হলেও সন্দেহভাজন দুই জনকে আটক ছাড়া পুলিশ-প্রশাসনের খাতা শুন্য। অপরদিকে পৌর শহেরর বিভিন্ন ব্যবসায়ী মার্কেটে কালো ব্যানার টানিয়ে খুনিদের ফাঁসি চাই লিখে পরিমল হত্যার শোক পালন করে চলেছেন ব্যবসায়ী সমাজ। নৃশংস এ হত্যাকান্ডের পর থেকে প্রতিবাদের ঝড় বুকে নিয়ে ব্যবসায়ী সংগঠনসহ সর্বস্তরের মানুষ রাজপথে নেমে নানা কর্মসূচি পালন করছে। কিন্তু তাতে কোন ফল না হওয়ায় আগামীতে কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি দেয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা।
মণিরামপুর ব্যবসায়ী সংগঠনের উপদেষ্টা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান বলেন, ব্যবসায়ী পরিমল পাল হত্যাকান্ডের পর থানার ওসি ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের কাছে বলেছেন পরিমলকে যারা হত্যা করেছে তারা ইতিমধ্যে চিহ্নিত হয়েছে। সময়ের ব্যাপার মাত্র খুনিদের গ্রেফতার করে জনতার সামনে আনা হবে। এদিকে পরিমল হত্যার প্রতিবাদে সম্প্রতি ব্যবসায়ীদের ডাকা কয়েকটি প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত জনতার সামনে বক্তব্য প্রদানের সময় ব্যবসায়ী সংগঠনের সভাপতি অরুন কুমার নন্দন বলেন, যেহেতু থানা পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হল খুনিরা চিহ্নিত, তাহলে তারা গ্রেফতার হচ্ছে না কেন? সংগঠনের সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ শফিকুল ইসলাম ও যুগ্ম-সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, থানা পুলিশ ব্যবসায়ী পরিমল হত্যাকান্ড নিয়ে নানা টাল-বাহানা শুরু করেছেন। এখন গোটা ব্যবসায়ী সমাজ ফুঁসে আসেন নৃশংস এ হত্যাকান্ড নিয়ে। অনেকেও মন্তব্য চিহ্নিত খুনিরা বাংলাদেশে আসে নাকি অন্য কোন দেশে পালিয়ে গেছে। আবার কেউ কেউ বলছেন ব্যবসায়ী পরিমল পাল হত্যাকান্ড ইতিপূর্বের অনেক হত্যাকান্ডের ন্যায় ধামাচাপা পড়ে না যায়। লক্ষ্যকরা গেছে এ হত্যাকান্ডের পর থেকে ব্যবসায়ীদের মধ্যে ভীতি ও চরম হতাশা বিরাজ করতে। পাশাপাশি খুনিরা ধরা না পড়ায় নিহতের পরিবারে অজানা আতঙ্কসহ এখনও রয়েছে শোকের মাতম। হিন্দু সম্প্রদায়ের ব্যবসায়ীরা নানা আতঙ্কে সন্ধ্যার পর পরই তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বাড়ি ফিরছেন। খুনিদের গ্রেফতার পূর্বক সর্বোচ্চ শাস্তির দাবীতে ব্যবসায়ী সংগঠনের উদ্যোগে এ পর্যন্ত যে সকল কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। তা হচ্ছে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে প্রেস ব্রিফিং, সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে সড়ক অবরোধ, একাধিকবার প্রতিবাদ সমাবেশ ও মিছিল, মানববন্ধন, পুলিশ প্রশাসনের প্রতি ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট স্বারকলিপি প্রদান এবং দফায় দফায় ব্যবসায়ী সংগঠনের কার্যালয়ে নতুন কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা করতে সভা আহব্বান করা হয়। ব্যবসায়ীদের প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, জনপ্রতিনিধিসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ। ব্যবসায়ীরা আন্দোলন করতে রাজপথে নামার পরেও এ হত্যাকান্ডের দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি হয়নি। হত্যাকান্ডের পর স্থানীয় পুলিশের দৃশ্যমান অগ্রগতি না থাকায় ব্যবসায়ীরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপিতে উল্লেখ করেন, পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা ও র‌্যাবসহ বিভিন্ন আইন-শৃংখলা বাহিনী নিয়োগ করে ব্যবসায়ী পরিমলের খুনিদের গ্রেফতার করতে হবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শীর্ষ ব্যবসায়ী সংগঠনের সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ শফিকুল ইসলাম বলেন, পুলিশের ঘোষনা অনুযায়ী চিহ্নিত খুনিদের গ্রেফতার করতে ব্যর্থ হলে আগামী ২১ জুলাই শুক্রবার ব্যবসায়ী সংগঠনের নিজস্ব কার্যালয়ে মিটিং করে ব্যবসায়ীদের মতামতের ভিত্তিতে আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষনা করা হবে। উল্লেখ্য, গত পহেলা জুলাই রাত সাড়ে ১০ টার দিকে ১০ লক্ষ টাকার ব্যাগ লুট করার সময় থানা থেকে মাত্র কয়েক’শ গজ দূরে নিজ বাসভবনের সামনে দূবৃর্ত্তরা বোমা হামলা ও কুপিয়ে ব্যবসায় পরিমল পালকে নৃশংসভাবে হত্যা করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here