মণিরামপুরে ৪৬ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী নিয়োগে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ

0
237

নিয়োগে স্বচ্ছতা না থাকায় চাকরী প্রত্যাশীদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মনিরামপুর: ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির মধ্যে দিয়ে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ৪৬ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগে কার্যক্রম প্রায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। এতে নিয়োগ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ অতুল মন্ডল ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আশীষ কুমার নন্দী নিয়োগ প্রত্যাশীদের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব ঘটনায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে অভিযোগ ছাড়াও দূর্নীতির কারনে মাঠ পর্যায়ে নিয়োগ প্রত্যাশীদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা সৃষ্টি হয়েছে।
জানাযায়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় গত ২২ জুন এ নিয়োগ সংক্রান্ত এক পরিপত্র জারি করা হয়। সে আলোকে গত ২৮ জুনের মধ্যে অফিস চলাকালিন সময় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ওই পদে নিয়োগদানে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আগ্রহী প্রার্থীগণের নিকট দরখাস্ত আহবান করা হয়। অফিসের এ আদেশের আলোকে ৪৬ টি পদের বিপরীতে সাড়ে তিনশ’ চাকরী প্রত্যাশীরা আবেদন করেন। সূত্রমতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে সদস্য সচীব করে ৬ সদস্যে’র একটি নিয়োগ কমিটি গঠিত হয়। এ কমিটি আবেদনকারিদের কাগজপত্রাদি যাচাই-বাছাই পূর্বক ২ ও ৩ জুলাই মৌখিক পরীক্ষার সময় নির্দারন করেন। এতে ফল প্রকাশের তারিখ নির্ধারন করা হয় একই মাসের ৩ জুলাই। এছাড়া নিয়োগপত্র ইস্যু’র তারিখ দেয়া হয় ৫ জুলাই।

কিন্তু রহস্যজনক কারনে ৬ জুলাই-এর মধ্যে চাকরী প্রত্যাশীদের নিকট থেকে আবেদন চেয়ে পুনরায় ৭ ও ৮ জুলাই পরীক্ষার নতুন সময় সূচী নির্ধারন করে নিয়োগ কমিটির সভাপতি ও সদস্য সচীবের স্বাক্ষর বিহীন এক পত্র প্রেরন করা হয় সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণের নিকট।একই সাথে কোন তারিখ ছাড়াই চাকরী প্রত্যাশীদের কাছ থেকে সাক্ষাতকার গ্রহনের জন্য পত্র দেয়া হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারনেই এ পত্রে পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণার সময়, দিন নির্ধারন করা হয়নি। খোঁজ-খবর নিয়ে জানাযায়, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বদলীর আদেশ আসে ১৪ জুন জন প্রশাসন মন্ত্রনালয় থেকে। তার এ আদেশের আলোকে তিনি নির্বাহীর দায়িত্ব অর্পন করেন সহকারি কমিশনার (ভূমি) লিংকন বিশ্বাসের উপর ৯ জুলাই অপরাহ্নে। চাঞ্চল্যকর বিষয় হচ্ছে ৯ জুলাই তিনি দায়িত্ব হস্তান্তর করলেও পরের দিন দিনভর ও গভীর রাত পর্যন্ত রীতিমত অফিস করেছেন এখানে।

গভীর রাত অবধি অফিস করাকালিন তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আশীষ কুমার নন্দীকে নিয়ে নিয়োগের সকল কাগজপত্র চুড়ান্ত করেন বলে জানাগেছে (যার ভিডিও রেকর্ড এ প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত)। জানাযায়, নিয়োগ বোর্ডের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ নিয়োগে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করলেও গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রত্যাশিত ফলাফল আলোর মুখ দেখেনি। এ নিয়ে চাকরী প্রত্যাশীদের মাঝে চরম উদ্বেগ, উৎকন্ঠা ও হতাশা বিরাজ করছে। এছাড়া নিয়োগ কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ের ঝামেলা এড়াতে চূড়ান্ত নিয়োগপত্র ফাইল বন্দী করে রেখেছেন বলে জানাগেছে। অভিযোগ উঠেছে, এ নিয়োগ নিয়ে প্রার্থীদের কাছ থেকে প্রায় ৭ থেকে ৯ লাখ টাকা নেয়া হয়েছে।

নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ অতুল মন্ডল তার বিশ্বস্ত জনৈক আব্দুর রশিদ, নবিরুজ্জামানসহ কতিপয় ব্যক্তির মাধ্যমে নিয়োগ প্রত্যাশীদের কাছ থেকে এসব টাকা হাতিয়ে নিয়ে গত বৃহস্পতিবার সূর্য্য উদয়ের আগেই মনিরামপুর ত্যাগ করে নতুন কর্মস্থল টাঙ্গাইলের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। বিশ্বস্ত এ চক্রটি ঝাঁপা পশ্চিম পাড়া, কাশিমপুর, ছালামতপুর, স্বরণপুর, ডুমুরখালি,গালদা, মাহমুদকাটি, মহাদেবপুর, নাউলিসহ একাধিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরী প্রত্যাশী তরিকুল ইসলাম, বাবর আলী, হুমায়ুন কবীর, হারুন অর রশিদ, উত্তম কুমার মন্ডল, অমিত বিশ্বাস, রাসেল হোসেন, মনিরুল ইসলাম ছাড়াও একাধিক চাকরী প্রত্যাশীদের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগ তুলে ভূক্তভোগীদের পক্ষে আব্দুল আজিজ নামের এক ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট একাধিক দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

জানতে চাইলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও নিয়োগ বোর্ডের সদস্য সচীব আশীষ কুমার নন্দী তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, টাকা নেয়ার প্রশ্নই আসে না। নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি সদ্য বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ অতুল মন্ডল বলেন, নিয়ম মেনেই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। তবে ভিন্ন কথা বললেন, জেলা শিক্ষা অফিসার তাপস কুমার অধিকারি। তিনি বলেন, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ইউএনও সকলের সাথে সমন্বয়ের জন্য ফলাফল প্রকাশে বিলম্বিত হচ্ছে বলে তাকে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আশীষ কুমার নন্দী জানিয়েছেন। জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, নিয়োগে কোন প্রকার অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here