যশোরের কেশবপুরে হাড়িয়া ঘোপ মোড়ল পাড়া শওকত হত্যাকান্ড

0
280

কিশোরসহ তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশীট ও দোষীপত্র দাখিল,একজনকে অব্যাহতি
এম আর রকি : জমিজমা নিয়ে যশোরের কেশবপুর উপজেলার হাড়িয়া ঘোপ (মোড়ল পাড়া) প্রতিবেশীর হাতে শওকত ওরফে শরকত মোড়ল খুনের সাড়ে ৩ মাস পর এক কিশোরসহ তিনজনের বিরুদ্ধে দু’টি আদালতে চার্জশীট ও দোষীপত্র দাখিল করেছেন। যশোরের কেশবপুর থানার এসআই মোঃ আকরাম হোসেন চৌধুরী তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশীট ও দোষীপত্র দাখিল করেন। আসামীরা হচ্ছে,কেশবপুর উপজেলার হাড়িয়া ঘোপ (মোড়ল পাড়া) মৃত জয়নাল মোড়লের ছেলে মো: নজরুল মোড়ল (৪২) , একই উপজেলার আলতাপোল গ্রামের মোসলেম উদ্দিন বিশ্বাসের ছেলে মো: আলামিন হোসেন ওরফে আলামিন (২০) ও হাড়িয়া ঘোপ ( মোড়ল পাড়া ) গ্রামের আব্দুল লতিফ মোড়লের ছেলে কিশোর আব্দুর রহমান (১৮)। এ সময় একজনের বিরুদ্ধে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত কোন প্রমানীত না হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহত চাওয়া হয়েছে। সে অভিযুক্ত নজরুল মোড়লের কিশোর ছেলে মো: রাসেল।
মামলা বিবারণে জানাযায়,কেশবপুর উপজেলার হাড়িয়া ঘোপ (মোড়ল পাড়া) গ্রামের শওকত ওরফে শরকত মোড়লের সাথে জমিজমা নিয়ে প্রতিবেশী উল্লেখিত আসামীদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। নিহত শওকতের স্ত্রী মোছাঃ রওশনারা বেগম গত বছরের ২২ অক্টোবর কেশবপুর থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন,তার স্বামী ২১ অক্টোবর রাত ১০ টায় খাওয়া শেষে স্থানীয় শরতলার বিলে পাটা চৌকি দেয়ার জন্য যায়। ওই রাতের ১টা ২৫ মিনিটে ওই এলাকার টিটু নামে এক যুবক বাড়িতে এসে জানান,শওকতের লাশ গ্রামের আইজুল বারীর জমিতে পড়ে আছে। খবরের ভিত্তিতে স্ত্রী রওশনারাসহ কয়েকজন ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা লাশের কাছে যাওয়ার সময় দেখতে পান স্বামী শওকতের লাশের পাশ থেকে নজরুল মোড়ল ও আব্দুর রহমানসহ অজ্ঞাতনামা ৬/৭জন লোক দৌড়ে চলে যাচ্ছে। স্ত্রীর দায়েরকরা এজাহারের ভিত্তিতে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সহিদুল ইসলাম নজরুল মোড়ল,আব্দুর রহমানের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞানামা আরো ৬/৭জনের বিরুদ্ধে মামলা নথিভূক্ত করেন। মামলা নং ২০,তারিখঃ২২/১০/১৬ ইং ৩০২/৩৪ পেনাল কোড। পরে অফিসার ইনচার্জ সহিদুল ইসলাম মামলাটি তদন্তর জন্য অত্র থানায় কর্মরত এসআই মোঃ আকরাম হোসেন চৌধুরীকে তদন্তর দায়িত্ব দেন। আকরাম হোসেন চৌধুরী তদন্তর দায়িত্ব নিয়ে এজাহার নামীয় আসামী নজরুল মোড়লকে পরের দিন ২৩ অক্টোবর,২ নভেম্বর কিশোর আব্দুর রহমান ও আলামিন হোসেন ওরফে আলামিনকে ৭ নভেম্বর গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করে। পরবর্তীতে মামলার স্বার্থে ৮ টি আলামত ও ১৩ জনকে সাক্ষ্য হিসেবে অর্ন্তভূক্ত করে। মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষে নজরুল মোড়ল ও আলামিন হোসেনের বিরুদ্ধে গত ৩০ জানুয়ারী চার্জশীট প্রদান করেন। অভিযোগ পত্র নং ২২ তারিখঃ ৩০/১/১৭ ইং ধারা ৩০২/৩৪ পেনাল কোড ও আব্দুর রহমান কিশোর হওয়ায় তার বিরুদ্ধে দোষীপত্র নং ২২(ক) তারিখঃ ৩০/১/১৭, পেনাল কোড ৩০২/৩৪ মোতাবেক আদালতে দাখিল করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here