যশোরে জাল সনদে একই পরিবারের ৪ সদস্য শিক্ষাকতা করার অভিযোগ ফাঁস

0
465

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোর কেশবপুর উপজেলা এলাকায় একই পরিবারের ৪ শিক্ষকের বিরুদ্ধে সনদ জালিয়াতি করে চাকুরি করার অভিযোগ উঠেছে। শুধু জাল সনদে চাকরি করছেন না। তারা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে এলাকার অর্ধশত লোককে ভুয়া সনদে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যোগদান করিয়ে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। সম্প্রতি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জাল সনদে চাকুরিরতদের ধরতে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) অভিযান পরিচালনা করায় বেকায়দায় পড়েছেন ওই শিক্ষক পরিবার। দু’দকের দায়েরকৃত মামলায় গ্রেফতার এড়াতে এক সদস্য পালিয়ে বেড়াচ্ছেন । অপর এক সদস্যের নামে মামলা প্রস্তুতি চলছে। বাকি ২ সদস্য এখন রয়েছেন বহালতবিয়তে।
সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, কেশবপুরের তেঘরী গ্রামের বাসিন্দা মোস্তাফিজুর রহমানের পরিবারটি জালিয়াতি সনদের শিক্ষক পরিবার হিসাবে সকলের কাছে পরিচিত। মোস্তাফিজুর রহমান জাল সনদে এসএসজি তেঘরী দারুল উলুম দাখিল মাদ্রাসায় কম্পিউটার শিক্ষক হিসাবে চাকরি করছেন। তার স্ত্রী মর্জিনা খাতুন তেঘরী পল্লী মঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কৃষি বিষয়ের শিক্ষক,ছোট ভাই আনিছুর রহমান একই স্কুলের সহকারী কম্পিউটার শিক্ষক ও আনিছুর রহমানের স্ত্রী মাহমুদা খাতুন বগা শাহ কারারিয়া আলিম মাদ্রাসায় কম্পিউটারের শিক্ষক।
নিভর্রযোগ্য সূত্রগুলো জানায়, মোস্তাফিজুর রহমান  তৃতীয় বিভাগে ডিগ্রি পাশ। কিন্তু দারুল ইহসানের একটি অর্নাস পাশের ভুয়া সনদ দাখিল করে এসএসজি তেঘরী দারুল উলুম দাখিল মাদ্রসায় কম্পিউটার শিক্ষক হিসাবে চাকরি নেন। ২০০৯ সালে পাশ দেখানো ওই সনদের রোল নং ২৫৬৪। এছাড়া মোস্তাফিজুর রহমানের শিক্ষা জীবনে দুটিতে তৃতীয় বিভাগ রয়েছে। তার চাকরির সময় ওই মাদ্রাসায় কম্পিউটার শিক্ষক কোটাটি মহিলাদের জন্য নির্ধারিত ছিল। কিন্তু সে নিয়ম অনুসরণ করা হয়নি। পরবর্তীতে মানব জমিন পত্রিকায় ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর ও ২০১৩ সালের ১০ জানুয়ারি পর পর দুবার বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে বলে অফিসের কাগজপত্রে দেখানো হলেও ওই তারিখের মানবজমিন পত্রিকায় কোথাও ওই বিজ্ঞপ্তি  পাওয়া যায়নি। (সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদকের কাছে ওই তারিখের মানব জমিন পত্রিকা দুটি সংরক্ষিত আছে)। সুত্র বলেছে,মোস্তাফিজুর রহমান এতদিন ওই মাদ্রাসার সুপারকে ম্যানেজ করে জালিয়াতি সনদ গোপন রেখে করে চাকরি করছিলেন। তার সনদ নিয়ে বিতর্ক থাকায় সম্প্রতি ওই মাদ্রাসার সভাপতি মিটিংয়ে প্রতিষ্ঠানের সুপারের কাছে সনদ দেখতে চান। কিন্তু মাদ্রাসার সুপার তা দেখাতে অপারগতা প্রকাশ করাসহ বিভিন্ন দূর্নীতির অভিযোগ গত ৩০ ফেব্রুয়ারী এসএসজি তেঘরী দারুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার সুপারকে কারণ দর্শানের নোটিশ দেন প্রতিষ্ঠানের সভাপতি শামছুর রহমান। নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় সুপারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া মোস্তাফিজুর রহমানের জালিয়াতি সনদের ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।
সুত্র বলছে, মোস্তাফিজুর রহমানের ছোট ভাই আনিছুর রহমান ২০১০ সালের ২০ মে তেঘরী পল্লী মঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারী কম্পিউটার শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। তখন আনিছুর রহমানের কোন নিবন্ধন সনদ ছিল না। একটি জাল সনদ জমা দিয়ে আনিছুর রহমান নিয়োগ নেন । ২০০৮ সালে পাশ দেখানো ওই নিবন্ধন সনদটির রোল নং ১২১১১৩৬০ ও রেজিষ্টেশন নং ৮০০০২২১৪। চাকরিতে যোগদানের পর আনিছুর রহমান ২০১০ সালের ১ নভেম্বর  ১০৫১১৬৯ নং ইনডেক্স  প্রাপ্ত হয়ে বেতন ভাতা উত্তোলন শুরু করেন। এর কিছুদিন পর তার সনদ জালিয়াতির বিষয় প্রকাশ পায়। তখন আনিছুর রহমানের চাচা শামছুর রহমান ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হওয়ায় কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। উল্টো ভাইপোকে বাঁচাতে প্রধান শিক্ষক ২০১১ সালে আনিছুর রহমানের আরও একটি নিবন্ধন সনদ যার রোল নং ৩১৩১১৫১৭ ও রেজিষ্টেশন  নং ১০০০০৬৯১৩৪ প্রতিষ্টানে জমা করে পুরায় নিয়োগের একটি ভুয়া রেজুলেশন তৈরি করেন । তবে পত্রিকায় কোন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়নি। এবং পূর্বের ১০৫১১৬৯ নং ইনডেক্সেই এখনো আনিছুর রহমান বেতন ভাতা উত্তোলন করে যাচ্ছেন।
সুত্র বলছে,মোস্তাফিজুর রহমানের স্ত্রী   মর্জিনা খাতুন ২০০২ সালের ১৩ মার্চ তেঘরী পল্লী মঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কৃষি শিক্ষক হিসাবে চাকরিতে যোগদান করেন। তিনি চাকরিতে যোগদানের সময় কৃষি ডিপ্লোমার ১ম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন। অথচ ওই কৃষি ডিপ্লোমা পাশ করা  সনদেই তখন তিনি পল্লী মঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চাকরি নেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অধিদপ্তর থেকে ৫১৯৯০৪ নং ইনডেক্সধারী হয়ে ২০০৪ সাল থেকে নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলনও করে যাচ্ছেন।
সুত্র বলছে, মোস্তাফিজুর রহমানের ছোট ভাইয়ের স্ত্রী মাহমুদা খাতুন গত ৬ মাস আগে বগা শাহ কারারিয়া আলিম মাদ্রাসায় কম্পিউটার শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। কিন্তু প্রতিষ্ঠানে কর্তৃক শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম সরকারিভাবে বন্ধ থাকায় ব্যাক ডেটে অথ্যাৎ ২০১৫ সালের ৬ মে ওই প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ পরীক্ষার মাধ্যমে তিনি চাকরিতে যোগদান করেন বলেন একটি ভুয়া রেজুলেশন করা হয়। ওই তারিখে কোন নিয়োগ পরীক্ষায় অনুষ্ঠিত হয় নিই। এমনকি ডিজি’র প্রতিনিধি হিসাবে সরকারী সিটি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তোরাব হাসানের স্বাক্ষর জাল করেন বিষয়টি জায়েজ করা হয়। সরকারী সিটি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তোরাব হাসান বিষয়টি জানতে পেরে দুর্নীতি দমন কমিশনকে অবহিত করেন। দুর্দক বাদী হয়ে যশোর জর্জ কোর্টে মামলা করেন। মামলা নং: জি আর ৭৭/১৭, তারিখ৩০/০৫/১৭। ওই মামলায় মাহমুদা খাতুনের নামে ওয়ারেন্ট জারী হওয়া গ্রেফতার এড়াতে তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।
সুত্র বলছে, শুধুমাত্র সনদ জালিয়াতি করে মোস্তাজিুর পরিবারের ৪ জন সদস্য চাকরি করছেন না। তারা ওই এলাকার স্কুল-কলেজ ও  মাদ্রাসার প্রায় অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে জালিয়াতি সনদে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যোগদান করিয়ে প্রায় কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। অনেকের কাছ থেকে টাকা নিয়েও চাকরিতে যোগদান করাতে ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু টাকা ফেরত দেননি।
সুত্র বলছে,সম্প্রতি দুর্নীতি দমন কমিশন সনদ জালিয়াতিকারীদের ধরতে অভিযান পরিচালনা করায় বেকায়দায় পড়েছেন ওই পবিরারের সদস্যরা। বিভিন্ন স্থানে দৌড়ঝাঁপ করছেন।
বিভিন্ন সময় ওই পরিবারের একাধিক সদস্যের বিরুদ্ধে সনদ জালিয়াতির সুনিদিষ্ট অভিযোগ ওঠে। একাধিকবার জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপÍরে এ সংক্রান্ত অভিযোগ জমা পড়ে। কিন্তু ম্যানেজ ফরমুর্লায় জেলা শিক্ষা অফিসার তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।
অভিযোগের ব্যাপারে ওই জালিয়াতি শিক্ষক পবিরারে মুল হোতা ও এসএসজি তেঘরী দারুল উলুম দাখিল মাদ্রাসায় কম্পিউটার শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ নিয়ে ডিজি থেকে যাচাইবাছাই হয়েছে। পত্রিকায় লিখে কোন লাভ হবে না। অপর এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী মাহমুদা খাতুন পলাতক তা আপনাদের কে বলেছে। সবই মিথ্যা। এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার (ডিইও) আমিনুল ইসলাম টুকুর  মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ঢাকায় জরুরী মিটিংয়ে আছি, পরে কথা বলবো। এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড.এসএম ওহিদুজ্জামানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করে হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here