যশোরে দেশের সর্বচ্চো তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রি, চলছে লোডসেডিং, বাড়ছে রোগব্যাধি, পুড়ছে ফসলের মাঠ

0
1109

ডি এইচ দিলসান : তীব্র তাপদাহে পুড়ছে যশোর অঞ্চল। আজও জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৮ দশমিক শূন্য ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। প্রচণ্ড তাপদাহ আর আচমকা লোডশেডিংয়ে পুড়ছে যশোরসহ সারাদেশ। এই অস্বস্তিকর গরম থেকে আপাতত রেহাই নেই, এমনটাই জানাচ্ছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।  উতপ্ত হয়ে উঠেছে রাস্তাঘাট। রোদে খাঁ-খাঁ করছে সড়ক জনপদ। বাইরে বের হলেই মনে হচ্ছে অগ্নিকুণ্ড। গরম বাতাস শরীরে বিঁধছে আগুনের হলকার মত। দিনের গরমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে লোডশেডিং। দুঃসহ গরমে মানুষের পাশাপাশি পশু-পাখিরও হাঁসফাঁস অবস্থা।

দু’দিনের দুর্বিসহ গরমে জনদুর্ভোগ বেড়েছে বহুগুণে। শুষ্ক প্রকৃতিতে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন শিশুরা।

খাঁ খাঁ রোদে পুড়ছে গোটা যশোর জেলা। রোববার সকাল থেকেই সূর্যের বিচ্ছুরণে মধ্যবেলায় প্রকৃতি নেয় অগ্নিরূপ।

ভ্যাপসা গরমে এ অবস্থায় একটু প্রশান্তির আশায় অনেকই আশ্রয় নিচ্ছেন গাছের ছায়ায়। কেউ কেউ ভিড় জমাচ্ছেন সরবতের দোকানে। কাঠফাটা রোদে চিল-চাতকের মত হাঁসফাঁসে ওষ্ঠাগত হয়ে উঠেছে খেটে খাওয়া শ্রমজীবীদের জীবন।

কাজে বের হওয়া কয়েকজন শ্রমজীবী মানুষ বলেন, ‘এই গরম আর প্রচণ্ড রোদে বাইরে কাজ করা খুবই কষ্টকর। ‘

দিনের মতো রাতেও গরম থাকায় ফ্যানের বাতাসও আনতে পারছে না প্রশান্তি।এর উপর লোডসোডিং এর কারনে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। আর, এতে নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু ও বৃদ্ধরা।

শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন এমন একজন মা বলেন, ‘এই গরমে বাচ্চারা অসুস্থ হয়ে পড়ছে; কাশি, শ্বাসকষ্টসহ নানা সমস্যায় ভুগছে।’

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ অবস্থা আরো বেশ কয়েক দিন চলবে। ১৫ জুনের আগে তাপমাত্রা তেমন একটা কমার সম্ভাবনা নেই।
প্রচণ্ড গরমে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। মানুষের চলাচল ও স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুদের জন্য সময়টা ভালো যাচ্ছে না মোটেই। হাসপাতালগুলোতে রোগী বাড়ছে। এর মধ্যে ডায়রিয়া ও গরমজনিত নানা রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাই বেশি। পাট ছাড়া ক্ষতি হওয়ার মতো মাঠে অন্য কোনো ফসল না থাকায় পানির অভাবে ক্ষেতেই শুকিয়ে যাচ্ছে ওই পাটের চারা।
গরমে মানুষ কাজকর্ম করতে পারছে না। দুপুরের দিকে শহরগুলো হয়ে পড়ছে ফাঁকা। বেশির ভাগ দোকানপাট, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হচ্ছে দুপুরে। গ্রামে দিনের বেশির ভাগ সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকছে। বিশেষ করে দুপুর ও সন্ধ্যায় পিকআওয়ারে বেশির ভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ থাকছে না।
যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার কৃষক নজরুল ইসলাম জানান, খরায় বেশির ভাগ ক্ষেতের পাটের চারা শুকিয়ে যাচ্ছে। কেউ কেউ সেচ দিয়ে পাট রক্ষার চেষ্টা করছে। কিন্তু প্রচণ্ড খরার কারণে সেচ দিলেও ক্ষেত দু-এক দিনের মধ্যেই শুকিয়ে যাচ্ছে। বেশির ভাগ মানুষ অর্থনৈতিক টানাপড়েনের কারণে সেচ দিতে পারছে না। বোরোধানের দরপতন এই টানাপড়েনের প্রধান কারণ বলে তিনি জানান। পাটের যা অবস্থা তাতে দু-এক দিনের ভেতর বৃষ্টি না হলে এবার পাট আবাদের দারুণ বিপর্যয় হবে।

রোববার যশোরে দেশের সর্বোচ্চ ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে, যা এ সপ্তাহের সর্বোচ্চ। আর ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
থার্মোমিটারের পারদ চড়তে চড়তে যদি ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে, আবহাওয়াবিদরা তাকে মৃদু তাপপ্রবাহ বলেন। তাপমাত্রা বেড়ে ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে বলা হয় মাঝারি তাপপ্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র তাপপ্রবাহ হিসেবে বিবেচনা করে আবহাওয়া অধিদপ্তর।
আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাস অনুযায়ী, মে মাসে দেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে এক থেকে দুটি তীব্র এবং অন্যত্র দুই থেকে তিনটি মৃদু বা মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।
কালা গ্রামের কৃষক খাজা আহমেদ বলেন, প্রচণ্ড খরার কারণে ক্ষেতে মুগ কলাইয়ের গাছ শুকিয়ে যাওয়ায় ফলন বিপর্যয় ঘটছে। খরার কারণে জমিতে গাছ মরে যাওয়ায় অনেক কৃষক জমি ছেড়ে দিয়েছেন। যদি সঠিকভাবে বৃষ্টিপাত হতো তাহলে আরো কয়েক দফায় ক্ষেতের মুগ তোলা সম্ভব হতো।
আমচাষি হাসানের দাবি এভাবে টানা খরার একপর্যায়ে বৃষ্টিপাত হলে আম্রপলি আমের ফলন বিপর্যয় হতে পারে। টানা খরার পর বৃষ্টিপাত হলে আম ফেটে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে আমচাষিরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।
এ দিকে প্রচণ্ড তাপদাহ ও অসহ্য গরমের কারণে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার কমে যাচ্ছে। অনেকেই বাইরে বের না হয়ে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত বাড়িতে কাটিয়ে দিচ্ছেন। আবার কেউ বা গরম থেকে একটু প্রশান্তি পেতে ডাব, তালের শাস, ফ্রিজের ঠাণ্ডা পানি খাচ্ছেন। রাস্তাঘাটে লোকজনের উপস্থিতি থাকছে কম। হাসপাতাল-কিনিকগুলোয় ডায়রিয়া, পেটের পীড়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হচ্ছেন। এ অবস্থা আরো দীর্ঘ দিন ধরে চলতে থাকলে মানুষসহ সব প্রাণীকুল জীবন ওষ্ঠাগত হয়ে উঠবে।
দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু যা বর্ষাকে নিয়ে আসবে, তা এখনও অনেক দূরে বঙ্গোপসাগরেই আটকে আছে। কালবৈশাখীর ঝড়-বৃষ্টিতে যে গরম থেকে সাময়িক স্বস্তি মিলবে, সেরকম পরিস্থিতি এখন আবহাওয়ামণ্ডলে নেই। সংলগ্ন এলাকায় ঘূর্ণাবর্ত তো দূরের কথা, কোনও নিম্নচাপ অক্ষরেখা নেই।

সারাদেশের দিনের তাপমাত্রা সামান বৃদ্ধি পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস জানায়। ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্থানে বহমান তাপমাত্রা অব্যাহত থাকতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে শনিবার থেকে শুরু হওয়া তাপদাহের কারণে এই উচ্চ তাপমাত্রা আরো কিছুদিন বহাল থাকবে। রবিবার যশোরে দেশের সর্বোচ্চ ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে, ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, বঙ্গোপসাগরের উপর উচ্চচাপ বলয় জলীয় বাষ্পকে ঠেলে ঢুকিয়ে দিচ্ছে। বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্প বেশি থাকায় ভ্যাপসা গরমে রবিবার জেরবার হতে হয়েছে।
দিনভর তেতেপুড়ে যাওয়া গরমের সঙ্গে ঘর্মাক্ত, অস্বস্তিকর পরিস্থিতি। তাতে নাজেহাল অবস্থা গোটা দেশ জুড়ে। ভারতের বিহারে ‘‌লু’‌ হাওয়া বইছে। আগামী দিন দুয়েক এরকম চলবে। ‘‌লু’‌–এর পরিস্থিতি গড়ে উঠতে পারে রাজশাহী অঞ্চলের জেলাগুলিতে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্র বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র আকাশ মেঘলাসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। এছাড়া সারাদেশের দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে । ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্থানে বহমান তাপমাত্রা অব্যাহত থাকতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

বঙ্গোপসাগরে বর্ষা এখন আটকে থাকলেও ফের তার অগ্রগতি শুরু হবে বলে আশা করছেন আবহাওয়াবিদরা। দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে একটি ঘূর্ণাবর্ত সৃষ্টি হতে চলেছে। এটির প্রভাবে কয়েকদিনের মধ্যে বর্ষা অগ্রসর হয়ে দক্ষিণ-পশ্চিম, দক্ষিণ-পূর্ব, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে ঢুকে পড়বে বলে তারা মনে করছেন। এতে দেশের মূল ভূখণ্ডে বর্ষার ঢুকে পড়ার প্রক্রিয়া ত্বরাণ্বিত হবে। এখন পর্যন্ত আবহাওয়া দপ্তরের আশা, নির্ধারিত পয়লা জুনের আশপাশেই ভারতের কেরেলায় বর্ষা পৌঁছাবে। কেরেলায় ঠিক সময়ে বর্ষা এলেই তা নির্ধারিত সময় অর্থাৎ জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে বাংলাদেশে পৌঁছাবে, তবে তাও নির্ভর করছে মৌসুমি বায়ুর মতিগতির উপর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here