যশোরে বেড়েছে শিশুদের ঠান্ডাজনিত রোগ, হাসপাতালে ভর্তি ১৯৭ জন

0
492

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে আবহাওয়া পরিবর্তনে শিশুদের ঠান্ডাজনিত রোগ বেড়েছে। ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে কয়েক দিনে তিনগুণ রোগী ভর্তি হয়েছে। সীমিত আসনের বিপরীতে অধিক সংখ্যক রোগী সামলাতে হিমসিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বুধবার দুপুর পর্যন্ত ঠান্ডাজনিত রোগে অন্তত দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তবে এ খবর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অস্বীকার করেছেন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়,গত সপ্তাহে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ১২৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছে। এদের অধিকাংশ ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত। এদের মধ্যে অন্তত দুইজন শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মৃত্যুর বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

সরেজমিনে বুধবার দুপুরে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, ২৪ শয্যার ওয়ার্ডে ৭০ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছে। সঙ্গে স্বজনদের উপস্থিতিতে মানুষে গিজগিজ করছে পুরো ওয়ার্ড। এখানেই চলছে শিশুদের চিকিৎসা। কেউ কেউ শয্যা পেলেও বেশিরভাগ শিশুকে মেঝেতে অবস্থান নিতে হয়েছে।

শহরের ঘোপ এলাকার আফরোজা খাতুন বলেন, তিন দিন ধরে ছেলেটার জ্বর হয়েছে। সঙ্গে সর্দি কাশিও আছে। শিশু হাসপাতালে নিয়েছিলাম। কিন্ত ওরা রাখেনি। সদরে পাঠিয়ে দিয়েছে। এখানে আছি ছেলেকে নিয়ে। কয়দিন থাকতে হবে জানি না।

ঝিকরগাছার দোস্তপুর গ্রামের আতিয়ার রহমান বলেন, কয়েকদিন ধরে নাতি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ঠান্ডা জ্বরে কাহিল হয়ে যাচ্ছে। আজ ডাক্তার রিলিজ দিয়ে দিচ্ছিল। কিন্তু ডাক্তারকে অনুরোধ করেছি আজ রাখার জন্য। এজন্য আজও আছি। বাচ্চাদের নিয়ে খুব কষ্টে আছি।

ওয়ার্ডের সিনিয়র স্টাফ নার্স মুসলিমা খাতুন বলেন, ঠান্ডাজনিত সর্দি, কাঁসি, জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে কয়েকদিনে। ঠান্ডাজনিত কারণে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে।

অপর সিনিয়র স্টাফ নার্স শারমিন আক্তার বলেন, ২৪ শয্যার ওয়ার্ডে ৭০ জনের বেশি রোগী ভর্তি রয়েছে। চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে হিমমিম খেতে হচ্ছে।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক একেএম কামরুল ইসলাম বেনু বলেন, হঠাৎ করে আবহাওয়ার পরিবর্তন হওয়ায় ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা বেড়েছে। বুধবার ৭০ জন শিশু চিকিৎসাধীন আছে। শিশু ওয়ার্ডে পর্যাপ্ত ওষুধ, অক্সিজেন সরবরাহ আছে। তবে শয্যা সংকটে অনেকের কষ্টে থাকতে হচ্ছে। সেবিকা, চিকিৎসকের কোনো অভাব নেই। দুই একদিনের মধ্যেই সমস্যা কাটিয়ে উঠবে বলে আশাবাদী।

তবে ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত কোনো শিশুর মৃত্যু হয়েছে এমন তথ্য আমার জানা নেই বলেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক কামরুল ইসলাম বেনু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here