যশোরে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ

0
301

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর সদরের চুড়ামনকাটি বাজার থেকে মুদি ও ধান-চাল ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা তুলে নিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় একটি কালো রংয়ের মাইক্রোবাসে নজরুল ইসলামকে তুলে নেওয়া হয়। সে সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি মধ্য বাগডাঙ্গার সৈয়দ আহমেদের ছেলে। তার নামে বেশ কয়েকটি মামলা আছে। নজরুল বিএনপি কর্মী বলে পরিবারটির পক্ষ থেকে দাবি করা হলেও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তা নিশ্চিত করেননি। নজরুলের স্ত্রী ময়না বেগম প্রত্যক্ষদর্শীদের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, নজরুল ইসলাম বেলা ১১টায় মোটরসাইকেলযোগে চুড়ামনকাটি বাজারে আসেন। এ সময় কালো রঙের একটি মাইক্রোবাস থেকে নেমে সাদা পোশাকধারী ব্যক্তিরা নজরুলকে তুলে নিয়ে যায়। তবে তার মোটরসাইকেলটি বাজারে রেখে যাওয়া হয় ।
ময়না আরো বলেন, আমার স্বামী বিএনপি করে। তবে কোনো নেতা না। মাস কয়েক আগে পুলিশের ক্রস ফায়ারে শানতলা এলাকার যে জাহাঙ্গীর মারা যায়, ওই ঘটনায়ও আমার স্বামীকে আসামি করে পুলিশ। এছাড়া তার নামে বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক মামলা আছে। কোতয়ালী থানার ওসি মো. ইলিয়াস হোসেন এবং ডিবি ওসি ইমামুল হক ওই নামে কাউকে আটক করা হয়নি বলে জানান। নজরুলের স্ত্রী ও মেয়ে ঘটনার পর পরই র‌্যাব, কোতয়ালী থানা ও ডিবি অফিসে যোগাযোগ করেন। কিন্তু কেউই নজরুলকে আটকের কথা স্বীকার করেননি।
এদিকে, সন্ধ্যায় চুড়ামনকাটি এলাকার বেশকিছু লোক র‌্যাব ক্যাম্পে হাজির হয়। তারা দাবি করছেন, নজরুলকে র‌্যাবই উঠিয়ে এনেছে। নজরুল ইসলামের মেয়ে জামাই মুর্শিদ আলম একই তথ্য দেন। এ ব্যাপারে র‌্যাবের আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়া যায়নি। যশোর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,ঘটনাটি আমি কিছু সময় আগে শুনেছি। নজরুল ইসলাম হয়তো কোনো সময় আমাদের দল করতেন। এখন তিনি সরকারি দলের লোকদের সঙ্গে মিশে থাকেন। তাকে বিএনপি কর্মী বলা ঠিক হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here